‘বিদেশি ছাত্রছাত্রীদের ফি দিতে হবে’ | জার্মানিতে উচ্চশিক্ষা | DW | 19.04.2013
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানিতে উচ্চশিক্ষা

‘বিদেশি ছাত্রছাত্রীদের ফি দিতে হবে’

যুক্তরাষ্ট্রে কিংবা যুক্তরাজ্যে বৃত্তি না পেয়ে পড়াশুনো করতে গেলে প্রথম যে বাধাটি আসে, সেটি হল সুউচ্চ ফি৷ সে তুলনায় জার্মানিতে ফি সামান্যই৷ লাইপসিশ শহরের একটি কলেজ এবার ইইউ-বহির্ভূত ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে মোটা ফি নেবে৷

জার্মানির স্যাক্সনি রাজ্যের লাইপসিশ শহরের সংগীত-নাটক মহাবিদ্যালয় এইচএমটি৷ ইসরায়েল থেকে আগত সামুয়েল গিটম্যান সেখানকারই ছাত্র৷ এ'যাবৎ প্রতি সেমেস্টারে ১১০ ইউরো ফি দিচ্ছিলেন সামুয়েল৷ আগামী সেপ্টেম্বর থেকে সেই ফি বেড়ে ১,৮০০ ইউরো হবে বলে তাঁকে জানানো হয়েছে একটি সহজ ই-মেইলে৷

লাইপসিশে সংগীত নিয়ে পড়াশুনা করটা ছিল সামুয়েলের চিরকালের স্বপ্ন৷ ‘‘এবার আমার এখানে পড়াশুনো বন্ধ করতে হবে,'' ই-মেইলটা পড়ার পর ভেবেছিলেন সামুয়েল৷ এইচএমটি'র ৯০০ ছাত্রছাত্রীর মধ্যে সামুয়েলের মতো আরো প্রায় ১২০ জন ‘বিদেশি' পড়ুয়া আছে, যাদের এই নতুন, বর্ধিত ফি দিতে হবে৷ এদের সবাই ইউরোপীয় ইউনিয়ন বহির্ভূত দেশ থেকে এসেছে৷ সেই কারণেই এদের বেশি ফি দিতে হচ্ছে, কেননা এইচএমটি'র নতুন নিয়ম শুধু ইইউ-বহির্ভূতদের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য৷ আবার তাদের মধ্যেও যারা বেলারুশ কিংবা আর্মেনিয়ার মতো অপেক্ষাকৃত দরিদ্র দেশ থেকে এসেছে, তারাই পরামর্শ নিতে ছাত্রসংগঠনের কাছে যাচ্ছে৷

Johanna Schreiber vom Studentinnenrat der HMT (Foto: Ronny Arnold) Thema: Studiengebühren an der Leipziger HMT Aufnahme: April 2013

লাইপসিশ শহরের সংগীত-নাটক মহাবিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী

নাকের বদলে নরুণ

এইচএমটি'র রেক্টর রবার্ট এয়ারলিশ বিদেশি ছাত্রছাত্রীদের সমস্যাটা বোঝেন, কিন্তু সান্ত্বনা দেবার মতো তাঁর শুধু এটুকু আছে যে, কলেজের কিছু কিছু স্কলারশিপ দেবার কথা৷ স্যাক্সনি রাজ্যের যে নতুন কলেজ সংক্রান্ত আইনে ফি বাড়ানোর পন্থা স্বাধীনতা দেওয়া হয়েছে, সেই আইনেই বলে দেওয়া হয়েছে যে, সংশ্লিষ্ট ছাত্রছাত্রীদের কিছু পরিমাণ স্কলারশিপ দেবারও ব্যবস্থা রাখতে হবে৷ তাদের মধ্যে এক-চতুর্থাংশের উচ্চতর ফি যোগাতে অসুবিধা হবে বলে এয়ারলিশ ধরে নিচ্ছেন৷ কাজেই বর্ধিত ফি থেকে প্রাপ্য অর্থের এক-চতুর্থাংশ ঐ ছাত্রছাত্রীদের বৃত্তি হিসেবে দেওয়া হবে৷ মুশকিল এই, কোন শর্তে সেই বৃত্তি দেওয়া হবে, ছাত্রছাত্রীরাই বা কীভাবে প্রমাণ করবে যে, তারা অভাবী, এ'সব প্রশ্নের জবাব এখনো কেউ জানে না৷

এ'বছরের গোড়া থেকে স্যাক্সনি রাজ্যের কলেজ-ইউনিভার্সিটিগুলি নিজেরাই ঠিক করবে, তারা ইইউ-বহির্ভূত দেশগুলি থেকে আগত ছাত্রছাত্রীদের কাছ থেকে ফি নেবে কিনা, এবং নিলে কোন পরিস্থিতিতে৷ আপাতত স্যাক্সনির শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলি বিদেশি ছাত্রছাত্রীদের ফি বাড়ানোর কথা ভাবছে না, কেননা কেউই চায় না যে, সেই আতঙ্কে বিদেশি ছাত্রছাত্রীরা এখানে পড়তে আসা বন্ধ করে দিক৷ লাইপসিশ বিশ্ববিদ্যালয়ও তার ‘‘আন্তর্জাতিকতা'' বজায় রাখতে চায়৷

Samuel Gitman mit Fagott (Foto: Gerhard Becker) Thema: Studiengebühren an der Leipziger HMT Aufnahme: April 2013

লাইপসিশে সংগীত নিয়ে পড়াশুনা করটা ছিল সামুয়েলের চিরকালের স্বপ্ন

নাভিশ্বাস

লাইপসিশ সংগীত-নাটক বিশ্ববিদ্যালয়ের কথা আলাদা৷ এইচএমটি'র অধ্যাপকরা বর্ধিত বেতন চাইছেন, কিন্তু স্যাক্সনি সরকার তার জন্য বর্ধিত অর্থসংস্থান করতে রাজি নন৷ অথচ গত দশ বছর ধরে এইচএমটি'র অধ্যাপকদের বাস্তবিক বেতন প্রায় বাড়েনি বললেই চলে৷ অনেকেই এখন অন্যত্র চাকুরি খুঁজতে শুরু করেছেন, বলে জানালেন রেক্টর রবার্ট এয়ারলিশ৷ সব মিলিয়ে এইচএমটি'র ডুবজল৷ তাই লজ্জার মাথা খেয়ে এইচএমটি ইইউ-বহির্ভূত দেশগুলি থেকে আগত ছাত্রছাত্রীদের ফি বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷

স্যাক্সনির নতুন আইনটির জার্মান নাম হল ‘‘হোখশুলফ্রাইহাইটসগেজেৎস'' বা ‘বিশ্ববিদ্যালয় স্বাধীনতা আইন'৷ ‘স্বাধীনতা' বলতে ফি বাড়ানোর স্বাধীনতা৷ সেই স্বাধীনতার মূল্য যাদের দিতে হচ্ছে এবং হবে, তারা বিষয়টিকে একটু অন্য চক্ষে দেখতে পারেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন