1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
Bangladesch Unruhen Partei BNP Proteste gegen Polizeigewalt
ফাইল ফটোছবি: Reuters

মার্কিন বিবৃতি

৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

বাংলাদেশের রাজনীতিবিদদের মধ্যে বিদেশের শক্তিগুলোর মুখাপেক্ষি হয়ে থাকার প্রবণতা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মাঝেমাঝেই আলোচনা হয়৷ চলতি সহিংসতার মাঝে মার্কিন বিবৃতি সেই আলোচনায় নতুন মাত্রা দিয়েছে৷

https://p.dw.com/p/1EXO1

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, টুইটার এবং বাংলা ব্লগ ঘাঁটলে একটি বিষয় পরিষ্কারভাবে ফুটে ওঠে৷ অনেকে বিশ্বাস করেন, বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের সঙ্গে ভারতের একটা নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে৷ ফলে ২০১৪ সালের বিতর্কিত নির্বাচনের পরও টিকে আছে হাসিনা সরকার৷ ভারতের বিভিন্ন পর্যায়ের রাজনীতিবিদের বক্তব্যেও ইঙ্গিত সেরকমই৷

অন্যদিকে, বিএনপি জোটের মুলশক্তি হচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র৷ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয়দের অনেকের বিশ্বাস, বাংলাদেশে আরেকটি নির্বাচনের জন্য ভারতকে রাজি করানোর চেষ্টা করছে মার্কিনিরা৷ আর সেই চেষ্টা সফল হলে বাংলাদেশে আরেকটি নির্বাচন আসন্ন৷ যদিও তাঁর কোনো লক্ষ্য এখনো নেই৷ আর বাস্তবতার সঙ্গে এই বিশ্বাসের কতটা মিল আছে, তাও বলা কঠিন৷

সদ্য প্রকাশিত মার্কিন বিবৃতির বিভিন্ন ব্যাখ্যাও দেখা যাচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে৷ ক্যানাডা প্রবাসী সাংবাদিক সওগাত আলী সাগর ফেসবুকে লিখেছেন, ‘‘...মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, বাংলাদেশে চলমান অস্থিরতা ও সহিংসতায় গভীরভাবে উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্র৷ বাস পোড়ানো, অগ্নিসংযোগকারী ডিভাইস ছুঁড়ে মারা ও ট্রেন লাইনচ্যুত করার ঘটনার মতো বিবেকবর্জিত হামলার নিন্দা জানাই আমরা৷''

সাগর লিখেছেন, ‘‘ভারতের বিজেপি সরকার শেখ হাসিনার পাশে আছে বলে জানিয়ে দিয়েছে৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও তাদের সুর পাল্টে বিবৃতি দিয়েছে৷ আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে সরকার যে সুবিধাজনক অবস্থানেই আছে, ইন্দো-মার্কিন দুটো শক্তিই তা জানিয়ে দিয়েছে৷''

বলা বাহুল্য, মার্কিন বিবৃতিতে সহিংসতার নিন্দা জানানোর পাশাপাশি এটাও উল্লেখ রয়েছে যে, ‘‘আমরা বাংলাদেশ সরকারের প্রতিও আহ্বান জানাচ্ছি যেন তারা রাজনৈতিক দলগুলোকে শান্তিপূর্ণভাবে তাদের কর্মসূচি চালানোর সুযোগ করে দেয়৷''

আর বাংলাদেশের সুনির্দিষ্ট কোনো দল বা জোট নয়, সব দলের উদ্দেশ্যে মার্কিন বিবৃতিতে লেখা হয়েছে, ‘‘সব দলের প্রতিও আমরা আহ্বান জানাই যে, তারা যেন তাদের নেতা-কর্মীকে যে কোনো ধরনের সহিংসতা চালানো থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেয়৷'' একটি টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে অবশ্য লেখা হয়েছে:

বাংলাদেশের রাজনীতিবিদদের বিদেশমুখী মনোভাবের সমালোচনা করে ফেসবুকে সাংবাদিক গোলাম মোর্তোজা লিখেছেন, ‘‘জনগণকে বাদ দেয়া রাজনীতি, বিএনপি-জামায়াতের সহিংসতায়, নিরীহ মানুষ পুড়ে মরবে, দেশের ক্ষতি হবে৷ সহিংসতা শুধু বিএনপি-জামায়াত নয়, অন্য শক্তিও করছে-করবে, দায় পুরোটাই বিএনপিকে নিতে হবে৷ সরকার চাপে পড়লেও ক্ষমতায় ঠিকই থেকে যাবে৷''

সংকলন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

স্কিপ নেক্সট সেকশন এই বিষয়ে আরো তথ্য

এই বিষয়ে আরো তথ্য

স্কিপ নেক্সট সেকশন সম্পর্কিত বিষয়
স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

সাইপ্রাসের পুরনারা শিবিরে আশ্রয়প্রার্থীরা

অনিয়মিতদের ফেরাতে বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশের উপর ইইউ’র চাপ

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান