বিতর্কের কেন্দ্রে থেকেও দাগ রেখে গেলেন প্রধান বিচারপতি | বিশ্ব | DW | 04.10.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

বিতর্কের কেন্দ্রে থেকেও দাগ রেখে গেলেন প্রধান বিচারপতি

কর্মজীবনের শেষ কয়েকদিনে বিচারপতি মিশ্রের বেশ কয়েকটি রায় দেশে-‌বিদেশে শোরগোল ফেলেছে৷ সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছে৷ সর্বোপরি ভারতে সামাজিক বুননে জোরদার আঘাত হেনেছে তাঁর রায়৷ রয়েছে বিতর্কও৷

বিচারপতি দীপক মিশ্র

বিচারপতি দীপক মিশ্র

মাত্র দু-‌সপ্তাহে বিদায়ী প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র ভারতকে সাবালক করে তুলেছেন৷ বলা যেতে পারে, নানা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে বিগত কয়েক দশকের বিতর্কের অবসান হয়েছে তাঁর নেতৃত্বাধীন বেঞ্চের রায়ে৷

সমকামীদের দাবি পূরণ হয়েছে৷ ভারতে সমকামকে বৈধতা দিয়েছেন তিনি৷ তাঁর রায়ে মুসলিম সম্প্রদায়ে দাম্পত্য সম্পর্কে ‘‌তিন তালাক’ বেআইনি ঘোষিত হয়েছে৷ শবরীমালা মন্দিরে ঋতুমতী নারী-সহ সব বয়সের নারীর প্রবেশকে অবাধ করেছেন তিনিই৷ জনস্বার্থ মামলায় তিনি রায় দিয়েছেন, ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট, মোবাইল সংযোগ নিতে আর বাধ্যতামূলক নয় ‘‌আধার’৷ দাম্পত্যে ব্যাভিচারের অভিযোগে লিঙ্গ বৈষম্য ঘুচিয়েছে তাঁরই নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ৷ নারীর অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা পেয়েছে৷ ব্যক্তি পরিসর সুরক্ষিত থেকেছে৷ মান্ধাতা আমলের চিন্তাধারা ও আইন বদলেছে৷ সামাজিক বুনন আরো শক্তিশালী হয়েছে৷

তবে, এতগুলি রায়ের প্রশংসা যেমন হচ্ছে, তেমনি তাঁর কয়েকটি রায়ের সমালোচনাও শোনা যাচ্ছে৷ যেমন, মহারাষ্ট্রের ভীমা কোরেগাঁও হিংসা মামলায় ধৃত ৫ কবি এবং সমাজকর্মীর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগের নিরপেক্ষ ও উচ্চ পর্যায়ের তদন্তের আর্জি খারিজ করে দিয়েছে প্রধান বিচারপতির বেঞ্চ৷ এক মামলায় ভারতীয় জনতা পার্টির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ'র বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল৷ সেই মামলার বিচারপতি ব্রিজগোপাল হরকিসান লোয়ার রহস্যজনক মৃত্যুর বিচার বিভাগীয় তদন্তের আর্জি খারিজ করেছেন৷ মসজিদে নামাজ বাধ্যতামূলক নয়, এই রায় দিয়েছেন ইত্যাদি৷

দীর্ঘদিন ধরে পুরুষের অধিকার নিয়ে সামাজিক লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন কলকাতার মেয়ে নন্দিনী ভট্টাচার্য৷ ইদানিং একাধিক রায়ের পর বিচারব্যবস্থার ওপর আরো বেশি আস্থা রাখছেন তিনি৷ তাঁর আশা, দেশ যেদিকে এগোচ্ছে, অদূর ভবিষ্যতে হয়ত মহিলা কমিশন, মানবাধিকার কমিশনের মতোই ‘‌পুরুষ কমিশন’ গঠিত হবে৷

অডিও শুনুন 04:00

দীপক মিশ্রের মধ্যে আমি ‘‌দাদাগিরি’ মনোভাব দেখেছি: নন্দিনী ভট্টাচার্য

‌ডয়ছে ভেলেকে নন্দিনী জানিয়েছেন, ‘‌‘‌দীপক মিশ্রের মধ্যে আমি ‘‌দাদাগিরি’ মনোভাব দেখেছি৷ এটা ওঁর নিজস্বতা৷ যার জন্য কখনো মনে হয়েছে উনি শাসক দলকে সাহায্য করে ফেলেছেন৷ আবার পরক্ষণেই মনে হয়েছে, উনি বিচারব্যবস্থার স্বতন্ত্রতা বজায় রেখেছেন৷ অবশ্যই এমন কিছু রায় দিয়েছেন, যেগুলো দেশকে খানিকটা সামনের দিকে এগিয়ে দিয়েছে৷ কিন্তু, আধারে ব্যক্তি স্বাধীনতা রক্ষিত হয়েছে, তেমন ভীমা কোরেগাঁও-‌কাণ্ডে তা রক্ষিত হয়নি৷ তা সত্ত্বেও অনেকগুলো বিষয়ে দেশবাসী ওঁর কাছে কৃতজ্ঞ থাকবে৷ উনি বিতর্কিত হয়েই থাকবেন৷’’

দীপক মিশ্রকে ঘিরে কম বিতর্ক হয়নি৷ শাসক বিজেপিকে সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বার বার৷ তাঁকে 'ইমপিচ’ করার জন্য বিরোধীরা প্রস্তাব এনেছিল সংসদে৷ ৮ মাস আগে বর্ষীয়ান চার ‘‌বিদ্রোহী'‌ বিচারপতির নজিরবিহীন সাংবাদিক বৈঠকে তোপ দাগা হয়েছিল তাঁর বিরুদ্ধে৷ কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে বিচার ব্যবস্থার যোগসাজশের মতো মারাত্মক অভিযোগ তোলা হয়েছিল৷ এমনকি, প্রধান বিচারপতির এক্তিয়ারে থাকা সর্বোচ্চ আদালতের মামলা বন্টনে অনিয়মের অভিযোগও তোলা হয়েছিল৷ এতকিছুর পরেও বিচারপতি জে চেলামেশ্বর, বিচারপতি রঞ্জন গগৈ, বিচারপতি মদন বি লোকুর এবং বিচারপতি কুরিয়েন জোসেফের সঙ্গে বার বার বৈঠক করে সমস্যা মেটানোর চেষ্টা করেছেন তিনি৷

উল্লেখ্য, বিচারপতি দীপক মিশ্র ১৯৬৬ সালের ১৭ জানুয়ারি ওড়িশা হাইকোর্টের অতিরিক্ত বিচারপতির দায়িত্ব নিয়েছিলেন৷ ২০১৭ সালের ২৮ আগস্ট সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ গ্রহণ করেছিলেন৷ ইংরেজি সাহিত্যে পাণ্ডিত্যের অধিকারী দীপক মিশ্র কবিতা লিখতে ও পড়তে ভালোবাসেন৷‌

অডিও শুনুন 03:46

পরকীয়া-‌রায়ে কোনো রাজনৈতিক সম্পর্ক খোঁজা উচিত নয়: অভিজিৎ সেনগুপ্ত

বহু মামলায় প্রধান বিচারপতির এজলাসে সওয়াল করার অভিজ্ঞা রয়েছে বাঙালি আইনজীবী অভিজিৎ সেনগুপ্তর৷ দীপক মিশ্রকে আর পাঁচজনের চেয়ে অনেকটা কাছ থেকে দেখেছেন তিনি৷

ডয়চে ভেলেকে অভিজিৎ জানালেন, ‘‌‘‌পৃথিবীর অন্য দেশে এই ধরনের পরিবর্তন হয়েছে৷ সেইসব দেশ তা সাদরে গ্রহণ করেছে৷ সেদিক থেকে ভারতকেও উনি (‌দীপক মিশ্র)‌ অনেকটা এগিয়ে দিয়েছেন৷ পরকীয়া-‌রায়ে কোনো রাজনৈতিক সম্পর্ক খোঁজা উচিত নয়৷ আধার সংযুক্তির বিষয়টি প্রধান বিচারপতি সরকারের নজর দিয়ে দেখেননি৷ ওঁর রায় জনগণকে রেহাই দিয়েছে৷ বিরোধীদের বক্তব্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছে৷ এছাড়া আরো একটি দিক হলো, আইনজীবীদের সঙ্গে ওঁর সম্পর্ক৷ আইনজীবী ও জুনিয়রদের সঙ্গে নম্র, ভদ্র ব্যবহার ওঁর বিশেষত্ব৷ ওঁর দৃষ্টিভঙ্গি অন্যদের থেকে অনেকটা এগিয়ে৷’’

‌অবসর নেওয়ার দিন দৃশ্যত যেন ভাবুক হয়ে উঠেছিলেন তিনি৷ আদালত কক্ষে এক আইনজীবী গেয়ে ওঠেন, ‘‌তুম জিও হাজারো সাল’৷ তখন প্রধান বিচারপতি অত্যন্ত শান্ত স্বরে তাঁকে থামিয়ে বলেছেন, ‘‘‌এখন আমি নিজের হৃদয় থেকে বলছি৷ মস্তিস্ক থেকে বলব সন্ধ্যায়৷’’ সেদিন সন্ধ্যায় আনুষ্ঠানিক বিদায় জানানো হয় তাঁকে৷ বিচারপতি  রঞ্জন গগৈ নতুন প্রধান বিচারপতি হচ্ছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন