বিক্ষোভ ভাঙতে গুলি চালাচ্ছে ইরান, দাবি অ্যামেরিকার | বিশ্ব | DW | 14.01.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইরান

বিক্ষোভ ভাঙতে গুলি চালাচ্ছে ইরান, দাবি অ্যামেরিকার

ইরান নিজের দেশের বিক্ষোভকারীদের উপর নির্বিচারে গুলি চালাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে৷ এদিকে প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, বিমানে মিসাইল হামলা 'ক্ষমাহীন অপরাধ'৷ এজন্য দায়ীদের শাস্তি পেতে হবে৷

ইরানের ভাবমূর্তি নিয়ে এ বার সরব হল আন্তর্জাতিক মহল৷ ইউক্রেনের বিমানে ক্ষেপনাস্ত্র হামলা থেকে শুরু করে দেশের ভিতরে বিক্ষোভকারীদের উপর হামলা-- নিন্দায় সরব অ্যামেরিকা, জার্মানি সহ বিভিন্ন রাষ্ট্র৷

ইরানের প্রশাসন অবশ্য এখনও বলে চলেছে, ভুল বশতই ইউক্রেনের বিমানে মিসাইল আঘাত করেছিল তারা। ইচ্ছাকৃত ভাবে সে কাজ করা হয়নি৷ কিন্তু আন্তর্জাতিক মহলের বক্তব্য, ওই বিমানে মিসাইল হামলার যে ছবি পাওয়া গিয়েছে, তাতে স্পষ্ট, ইরান ইচ্ছাকৃত ভাবেই কাজটি করেছিল৷ 

শুধু তাই নয়, বিমানে মিসাইল লাগার কথা ইরান স্বীকার করে নেওয়ার পর থেকেই দেশের ভিতরে শুরু হয়েছে বিক্ষোভ৷ আন্দোলনকারীরা বলছেন, শত্রু বাইরে নয়, দেশের ভিতরেই। বস্তুত, ইরানে সরকার-বিরোধী বিক্ষোভ এই প্রথম নয়৷ এর আগেও একাধিকবার এমন ঘটনা ঘটেছে৷ যখনই ঘটেছে কড়া হাতে তা দমন করেছে খামেনির সরকার৷ বিক্ষোভকারীদের উপর গুলি চালানো হয়েছে৷ হত্যা করা হয়েছে৷ এ বারও তার ব্যতিক্রম হচ্ছে না৷ একাধিক ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে পুলিশ নির্বিচারে বিক্ষোভকারীদের উপর গুলি চালাচ্ছে৷ চালানো হচ্ছে কাঁদানে গ্যাস। সম্প্রতি নিউ ইয়র্কের একটি সংস্থা বিক্ষোভের একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যাচ্ছে, এক মহিলাকে টানতে টানতে নিয়ে যাচ্ছে পুলিশ৷ আর তাকে ঘিরে থাকা বিক্ষোভকারীরা বলছেন, তার পায়ে গুলি লেগেছে৷

ভিডিও প্রকাশ পাচ্ছে অসংখ্য৷ কিন্তু ইরানের প্রশাসন এখনও বলছে, বিক্ষোভকারীদের উপর গুলি চালানো হয়নি। তাদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করা হচ্ছে না৷

এমন পরিস্থিতিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প ফের বিক্ষোভকারীদের সমর্থন জানিয়েছেন৷ টুইটে তিনি লিখেছেন, নিজের দেশের বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে ইরান খারাপ ব্যবহার করলে তার ফল ভাল হবে না৷ এর আগে ট্রাম্প বলেছিলেন, ইরানের সঙ্গে অ্যামেরিকা সমঝোতায় আসতে পারে, যদি বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সে দেশের সরকার ভাল ব্যবহার করে৷ জার্মানিও বিক্ষোভকারীদের সমর্থন জানিয়েছে৷

ইরানের অন্যতম প্রভাবশালী জেনারেল কাসিম সোলেইমানিকে অ্যামেরিকা হত্যা করার পর থেকেই মধ্যপ্রাচ্যে যুদ্ধ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে৷ আন্তর্জাতিক কূটনীতি বিশেষজ্ঞরা বলছিলেন, গত কয়েক দিনে যুদ্ধ পরিস্থিতির সম্ভাবনা খানিকটা হলেও কমেছিল৷ কিন্তু ইরান যে ভাবে আন্দোলন দমন করতে শুরু করেছে, তাতে ফের যুদ্ধের পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে বলেই অনেকের অভিমত৷

মিসাইল হামলা ‘ক্ষমাহীন অপরাধ’

অন্য দিকে আন্তর্জাতিক চাপের মুখে এ দিন ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি একটি টেলিভিশন বিবৃতিতে জানিয়েছেন, বিমানে মিসাইল হামলা ‘ক্ষমাহীন অপরাধ’৷ যারা এ কাজ ঘটিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে৷ সকলকেই শাস্তি পেতে হবে৷ যদিও আন্তর্জাতিক মহলের একাংশের বক্তব্য, চাপের মুখে ইরান এই বিবৃতি দিলেও বাস্তবে তা কতটা কার্যকর হবে, তা নিয়ে সন্দেহ আছে৷ 

এসজি/জিএইচ (রয়টার্স, এএফপি, এফপি) 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন