বায়োনটেক প্রতিষ্ঠাতাদের প্রশংসায় ম্যার্কেল | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 20.12.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

বায়োনটেক প্রতিষ্ঠাতাদের প্রশংসায় ম্যার্কেল

কয়েক মাস আগে বায়োনটেকের নাম জার্মানির অনেকেই শোনেননি৷  কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন আবিস্কার করায় এখন সারা বিশ্বেই ছড়িয়ে পড়েছে তাদের সুনাম৷ আঙ্গেলা ম্যার্কেলও এখন বায়োনটেক-কে নিয়ে গর্বিত৷

গত নভেম্বরে করোনা রোধে ৯৫ ভাগ সাফল্যের দাবি নিয়ে আত্মপ্রকাশ করে বায়োনটেক-ফাইজার ভ্যাকসিন৷ রাতারাতিই বিখ্যাত হয়ে যায় জার্মানির মাইনৎস শহরকেন্দ্রিক এ বায়োনটেক প্রতিষ্ঠান৷

প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা উগুর শাহিন ও ও্যসলেম ট্যুরেচিও তখনই চলে আসেন প্রচারের আলোয়৷ বৃহস্পতিবার শাহিন এবং ট্যুরেচির সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের সময় বায়োনটেকের তুমুল প্রশংসা করেন জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ বায়োনটেকের গবেষকদের প্রশংসায় তিনি বলেন, ‘‘আমাদের দেশে এমন সব গবেষক আছে বলে আমরা ভীষণ গর্বিত৷’’

২০০৮ সালে মাইনৎস শহরে বায়োনটেক প্রতিষ্ঠা করেছিলেন শাহিন এবং ট্যুরেচি দম্পতি৷ তারপর থেকে তিল তিল করে এগিয়ে নিয়েছেন স্বপ্নের এই প্রতিষ্ঠানকে৷ ফাইজারের সঙ্গে যৌথভাবে আবিস্কার করা ভ্যাকসিন বিশ্বের অনেক দেশের মানুষকেই করোনা থেকে বাঁচতে সহায়তা করবে৷

ইতিমধ্যে ব্রিটেন এবং যুক্তরাষ্ট্র বায়োনটেক ভ্যাকসিন দিতে শুরু করেছে৷ ইউরোপীয় ইউনিয়নও খুব তাড়াতাড়িই এই ভ্যাকসিনের প্রতি আস্থা রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে৷ অনেক বাধা-বিপত্তি পার করে বায়োনটেকের এই পর্যায়ে আসার প্রশংসা করে জার্মান চ্যান্সেলর বলেন, ‘‘আপনারা হাল ছেড়ে দেননি৷ আপনারা আপনাদের গবেষণার ওপর আস্থা রেখেছিলেন৷ এখন সারা বিশ্বে যতজন মানুষ করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে মারা যাচ্ছে তা দেখেই বোঝা যায় এই টিকা কতজন মানুষকে বাঁচাতে পারবে৷ আপনারা আসলে অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন৷’’ 

বায়োনটেকের প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তা ট্যুরেচি অবশ্য এর সম্পূর্ণ কৃতিত্ব দিয়েছেন বায়োনটেক এবং ফাইজারের গবেষকদের৷ তার ভাষায় ‘‘আমাদের লক্ষ্য ছিল যা অসম্ভব মনে হচ্ছে সেটাকে সম্ভব করা৷ আমরা সফল হয়েছি, কারণ, আমাদের টিমটা চমৎকার৷ এটা আন্তর্জাতিক বিজ্ঞানীদের দল, যেখানে ৬০টি দেশের কর্মী অনেক বছর ধরে আমাদের সঙ্গে কাজ করছে৷’’ চ্যান্সেলর ম্যার্কেলের সঙ্গে কথা বলার সময় সার্বিক সহায়তার জন্য জার্মান সরকারকে ধন্যবাদ জানান শাহিন এবং ট্যুরেচি৷ এ সময় ট্যুরেচি আরো বলেন, করোনার বিপক্ষে ম্যারাধন দৌড় এখনো শেষ হয়নি৷

এসিবি/কেএম (ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়