বায়ু দূষণ রোধে স্থায়ী সমাধান ভাবুক সরকার | বিশ্ব | DW | 06.11.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

বায়ু দূষণ রোধে স্থায়ী সমাধান ভাবুক সরকার

এবার ভারতের রাজধানী দিল্লি ও আশেপাশের এলাকায় বায়ু দূষণ কার্যত স্বাস্থ্য জরুরি অবস্থার সৃষ্টি করেছে৷ প্রতি বছর পরিস্থিতি উনিশ-বিশ হলেও দূষণ হয় মাত্রাতিরিক্ত৷ দূষণের কালো মেঘে ঢাকা পড়ে গোটা শহর৷

এর কারণ সবাই জানেন৷ কিন্তু, সমাধানের উদ্যোগ নেই৷

সাধারণত ‘এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স’ যদি শূন্য থেকে ৫০ পর্যন্ত থাকে, তবে তা ভালো৷ ৫১-১০০ ঠিকঠাক৷ ১০১-২০০ হলে মোটামুটি পর্যায়ে৷ ২০১-৩০০ খারাপ৷ ৩০১-৪০০ খুব খারাপ৷ ৪০১-৫০০ হলে মারাত্মক৷ তার বেশি হলে ‘অতি মারাত্মক'৷ গত ১ ও ২ নভেম্বর দিল্লি-এনসিআর অঞ্চলের বায়ু দূষণের মাত্রা ছিল গড়ে ১২০০!সহজেই অনুমেয় পরিস্থিতি কোন পর্যায়ে পৌঁছেছে৷ তবে, ৫ ও ৬ নভেম্বর পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে৷ যা ‘অতি মরাত্মক'থেকে ‘মারাত্মক’এ নেমে এসেছে৷

নভেম্বরের শুরুর দিকে দিল্লি পার্শ্ববর্তী হরিয়ানা, পাঞ্জাব এবং পশ্চিম উত্তরপ্রদেশে ফসলের অবশিষ্ট অংশে আগুন জ্বেলে পোড়ায় কৃষকরা৷ হাওয়ায় ভেসে তার কার্বন এসে পৌঁছয় রাজধানী শহরে৷ এরপর যথেচ্ছ আতসবাজি, শব্দবাজি দূষণের আগুনে ঘি-ঢালার কাজ করে ওই সময়ের দীপাবলি উৎসব৷ এরসঙ্গে রয়েছে প্রায় ৬০ লক্ষ গাড়ি নিঃসৃত ধোঁয়া জনিত দূষণ৷ ৪ নভেম্বর থেকে দিল্লি-এনসিআরে গাড়ি চলাচলে ‘অড-ইভন'বিধি চালু করেছে দিল্লি সরকার৷ অর্থাৎ একদিন জোড় নম্বরের গাড়ি রাস্তায় নামবে, অন্যদিন বিজোড় নম্বরের গাড়ি৷ আগামি ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত চলবে এই নিয়ম৷

অডিও শুনুন 03:44

বিপুল টাকা ব্যয়ে মূর্তি বসানো হচ্ছে, অথচ দূষণ রোধে সমাধানের উদ্যোগ নেই: সুগত হাজরা

ডয়চে ভেলেকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিশ্লেষক সুগত হাজরা বলেছেন, ‘‘কৃষি বিজ্ঞানী এম এস স্বামীনাথন বলেছেন, দক্ষিণ ভারতে এটা কোনও সমস্যা নয়৷ কারণ সেখানে সেগুলো পশুখাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়৷ উত্তর ভারতে তা হয় না৷ এজন্য সরকারের সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা করে কৃষককে বিকল্প পথ বাতলে দিতে হবে৷ বিপুল টাকা ব্যয় করে মূর্তি বসানো হচ্ছে, অথচ এই দূষণ রোধে সমাধানের উদ্যোগ নেই৷ কেন্দ্রীয় সরকারের উচিত অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়া৷’’ দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের ফি-বছর তড়িঘড়ি গাড়ি চলাচলে নিয়ন্ত্রণ বিধি চালু করার সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করেছেন তিনি৷

জোড়-বিজোড় নিয়ম চালুর ফলে প্রতিদিন ১৫ লক্ষ ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচল করছে৷ দিল্লি সরকারের দাবি, ‘জোড়-বিজোড়'বিধি চালুর ফলেই দূষণ কমেছে৷ যিও তা মানতে নারাজ বিরোধীরা৷ বন্ধ রাখা হয়েছে সমস্ত ধরণের নির্মাণ কাজ৷  ছুটি দেওয়া হয়েছে সমস্ত বিদ্যালয়৷ এখন আবহাওয়া দপ্তরের দিকে চাতকের দৃষ্টিতে তাকিয়ে রয়েছে দিল্লিবাসী৷ আগামি কয়েকদিনের মধ্যে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনার কথা জানিয়েছে তারা৷ অসহনীয় এই পরিস্থিতি থেকে মুক্তি পেতে বৃষ্টিই একমাত্র ভরসা তাদের৷

দূষণের জেরে গত রবিবার দিল্লিতে ভারতের বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম টি-২০ ম্যাচ চলাকালীন অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন বাংলাদেশ টিমের দুই ক্রিকেটার৷ তাঁরা বমিও করেন৷ ভয়ঙ্কর দূষণ পরিস্থিতিতে কালো ধোঁয়ার চাদরে যখন গোটা দিল্লি মুখ ঢেকেছে, তখন সরকারি মহল, রাজনৈতিক মহল এবং দায়িত্বপ্রাপ্ত সংগঠনগুলি একে অপরকে আক্রমণ, পাল্টা আক্রমণে মেতে উঠেছে৷ মানুষের প্রাণ যখন ওষ্ঠাগত, তখন গুরুদায়িত্বে থাকা মন্ত্রীরা রসিকতা ছুঁড়ে দিতে দ্বিধা করছেন না৷

আশ্চর্যজনক ভাবে কেন্দ্রীয় পরিবেশ মন্ত্রী প্রকাশ জাওড়েকর দিল্লি সরকারের ‘জোড়-বিজোড়’ বিধির বিরোধিতা করেছেন৷ শুধু তাই নয়, রসিকতা করে একটি টুইট করেছেন৷ লিখেছেন, ‘গান শুনে দিন শুরু করুন৷’ নরেন্দ্র মোদী সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন টুইটে লিখেছেন, ‘গাজর খেয়ে দিন শুরু করুন এতে শরীর এবং স্বাস্থ্য ভাল থাকবে৷’

দিল্লির শাসক দল আম আদমি পার্টির নেতা সঞ্জয় বসু ডয়চে ভেলেকে জানালেন, ‘‘দিল্লিতে দূষণের মোট ৪টি কারণের অন্যতমটি হলো হরিয়ানা, পাঞ্জাব ও উত্তরপ্রদেশে ফসলের অবশিষ্ট অংশ পোড়ানো৷ এর স্থায়ী সমাধান হিসেবে কৃষিতে আধুনিক যন্ত্র আমদানি করে ফসলের ওই অংশগুলি নষ্ট করা যায়৷ দিল্লি সরকার উদ্যোগী হলেও ভারত সরকার বা অন্য রাজ্যের সরকারগুলির দায়বদ্ধতা থাকলেও কোনও উদ্যোগ নেয়নি৷’’

অডিও শুনুন 05:03

দূষণের চারটি কারণের অন্যতমটি হলো ফসলের অবশিষ্ট অংশ পোড়ানো: সঞ্জয় বসু

এতসবের মধ্যে সরাসরি কেন্দ্রীয় সরকারকে কাঠগড়ায় তুলেছে দেশের শীর্ষ আদালত৷ বিচারপতি অরুণ মিশ্র মোদী সরকারকে প্রশ্ন করেছেন, কেন প্রতিবছর দিল্লি দূষণে জর্জরিত হয়?বিশুদ্ধ বাতাসে শ্বাস নেওয়া দেশবাসীর মৌলিক অধিকার৷ তাহলে দিল্লির বাসিন্দারা সেই অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন কেন?সেইসঙ্গে ফসলের অবশিষ্ট অংশ পোড়ানোর জন্য পাঞ্জাব সরকারকে তিরস্কার করেছে আদালত৷ সবমিলিয়ে সরকারি উদাসিনতার ফলে আপাতত মারাত্মক দূষণ থেকে রক্ষা পাওয়ার উপায় নেই দিল্লিবাসীর৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন