বাড়িওয়ালা-ভাড়াটিয়া দ্বন্দ্ব: সমাধান কী? | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 04.07.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

বাড়িওয়ালা-ভাড়াটিয়া দ্বন্দ্ব: সমাধান কী?

ভাড়া না দেয়ায় ঢাকার ভাড়াটিয়া শিক্ষার্থীদের মালামাল থেকে শুরু করে এমনকি সার্টিফিকেট ফেলে দিয়েছেন দুই বাড়িওয়ালা৷ এই অমানবিকতা নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা চলছে৷ ভাড়া নিয়ে বাড়ি মালিক ও ভাড়াটিয়াদের যে দ্বন্দ্ব চলছে তার সমাধান কী?

Bangladesch Dhaka Mittelschicht leidet unter Corona-Pandemie (DW/Sazzad Hossain)

ফাইল ছবি

ঠিক এমন ঘটনাই ঘটেছে রাজধানীর দু'টি বাড়িতে৷ একটি বাড়িতে ১৩৮ জন শিক্ষার্থী থাকতেন৷ আর অন্যটিতে নয়জন৷ এর মধ্যে চারজন এইচএসসি পরীক্ষার্থীর মূল রেজিস্ট্রেশন কার্ডও ফেলে দেয়া হয়েছে, যে পরীক্ষাটি করোনার কারণে পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ অনেকের সারা জীবনের অর্জন করা সার্টিফিকেটও আছে এই তালিকায়৷

বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এটা ভয়াবহ রকমের অপরাধ৷ করোনার এই সময়ে কোনো বাড়ি মালিক এই ধরনের অমানবিক আচরণ করতে পারেন না৷ ভাড়ার জন্য সার্টিফিকেট ডাস্টবিনে ফেলতে হবে? এই মালিকদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে৷ এই অমানবিক ঘটনার বিচারও হওয়া প্রয়োজন৷ একটা ছেলের সারা জীবনের অর্জন এভাবে ডাস্টবিনে যেতে পারে না৷''

পূর্ব রাজাবাজারের ৪৩/ক পাটোয়ারি ভিলার পুরোটাই ছাত্রাবাস৷ মূল মালিকের কাছ থেকে ভবনটি ভাড়া নিয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য ছাত্রাবাস তৈরী করেছিলেন খোরশেদ আলম৷ সেখানে ১৩৮ জন শিক্ষার্থী থাকেন৷ গত ২৬ মার্চ দেশে সাধারণ ছুটি ঘোষণা হলে শিক্ষার্থীরা মার্চ মাসের ভাড়া দিয়ে বাড়ি চলে যান৷ এরপর ফিরে আসেননি৷ ছুটির মধ্যে ভাড়ার জন্য শিক্ষার্থীদের ফোনে চাপ দিচ্ছিলেন খোরশেদ৷ পরে ভাড়া না পেয়ে তাদের বইপত্র, শিক্ষা সনদ, কম্পিউটার এমনকি বিছানাপত্রও রুম ভেঙে বাইরে ফেলে দেন তিনি৷ ট্রাঙ্ক ভেঙে কাগজপত্র বের করেন৷ এর মধ্যে কিছু ডাস্টবিনে আর কিছু বিক্রিও করে দেন৷ খবর পেয়ে গত বুধবার কয়েকজন শিক্ষার্থী ঢাকায় চলে আসেন৷ এই অবস্থা দেখে তারা পুলিশের শরণাপন্ন হন৷ কলাবাগান থানায় সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সানজিদ ইফতেখার সোহান বাদি হয়ে একটি মামলা করেন৷ এই মামলায় খোরশেদ আলমকে গ্রেফতার করেছে কলাবাগান পুলিশ৷

অডিও শুনুন 01:38

এখন সে ভুল বুঝতে পারছে: বিপ্লব হোসেন

সানজিদ ইফতেখার সোহান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এই ভবনটিতে আমাদের সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫০জন শিক্ষার্থী থাকেন৷ এর বাইরে অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী থাকতেন৷ তাদের সবার সার্টিফিকেটসহ গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র, কম্পিউটার অনেক কিছুই ছিলো৷ এখন আমরা কিছুই পাচ্ছি না৷ আমরা খোরশেদকে বারবার বলেছি, করোনার এই সময়ে ভাড়া কিছুটা কমিয়ে দেন আমরা দিয়ে দিচ্ছি৷ কিন্তু তিনি কিছুই কমাবেন না৷ এই আলোচনা চলতে চলতেই আমাদের সবকিছু তিনি ফেলে দিলেন৷ এখন আমরা আমাদের এসব সার্টিফিকেট কোথায় পাবো? সামনের দিনগুলোতো আমাদের অন্ধকার হয়ে গেলো৷''

সোহানের দায়ের করা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কলাবাগান থানার এসআই মোহাম্মদ বিপ্লব হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘খোরশেদকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে৷ খোরশেদ এখন বলছে, টাকার জন্য সে এই কাজ করেছে৷ এখন সে ভুল বুঝতে পারছে৷ কিন্তু তার ভুল বোঝাতে তো আর শিক্ষার্থীদের সার্টিফিকেট, বইপত্র ফিরে আসবে না৷ এই মামলায় আরেক আসামী খোরশেদের ভাই সৈকতকে আমরা খুঁজছি৷’’

এই ধরনের ঘটনা ঘটেছে কলাবাগানের ৪/এ রুবি ভবনেও৷ বহুতল এই ভবনটির নিচতলার একটি ফ্ল্যাট ২৫ হাজার টাকায় ভাড়া নিয়ে নয়জন শিক্ষার্থী থাকতেন৷ এক মাসের অগ্রিমও তাদের জমা আছে৷ করোনার এই তিন মাসে গ্যাস, বিদ্যুৎ আর পানির বিল বাবদ প্রতি মাসে ৫ হাজার করে টাকাও বিকাশের মাধ্যমে মালিককে পাঠিয়েছেন৷ কিন্তু তারপরও বাড়ির মালিক মুজিবুল হক কাঞ্চন শিক্ষার্থীদের সার্টিফিকেট, কাগজপত্রসহ সবকিছু বের করে ট্রাকে করে পান্থপথের ডাস্টবিনে ফেলে দিয়েছেন৷ খবর পেয়ে শিক্ষার্থীরা ঢাকায় এসে বুধবার বিষয়টি জানতে পারেন৷

অডিও শুনুন 03:05

সারা জীবনের সব অর্জন শেষ: সজীব মিয়া

এই ঘটনায়ও ঢাকা কলেজের ইসলামের ইতিহাস বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী সজীব মিয়া বাদি হয়ে মালিকের বিরুদ্ধে কলাবাগান থানায় মামলা করেছেন৷ সজীব মিয়া ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমাদের সারা জীবনের সব অর্জন শেষ৷ আমাদের নয়জনেরই সব সার্টিফিকেট এখানে রাখা ছিলো৷ কম্পিউটার ছিলো৷ দামি বইপত্রও ছিলো৷ এখন কিছুই নেই৷ সবকিছু ডাস্টবিনে ফেলে দিয়েছেন মালিক৷ আমরা ডাস্টবিন তল্লাশী করে কিছু কাগজপত্র উদ্ধার করেছি৷’’ তিনি জানান, সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন আইডিয়াল কলেজের সাজ্জাদ হোসেন, মো. সোহেদ, সিটি কলেজের মো. তামিম ও তেজগাঁও কলেজের মো. অলিউল্লাহ৷ তারা এ বছর এইচএসসি পরীক্ষার্থী৷ এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের মূল রেজিস্ট্রেশন কার্ডসহ মূল্যবান সব জিনিসপত্র হারিয়েছেন এই চার শিক্ষার্থীই৷

সজীবের দায়ের করা মামলাটির তদন্ত করছেন কলাবাগান থানার এসআই আখতার হোসেন৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাড়ি মালিককে গ্রেফতারের জন্য আমরা হণ্যে হয়ে খুঁজছি৷ তাকে পাওয়া যায়নি৷ এটা ভয়াবহ অপরাধ হিসেবে বিবেচনায় নিয়ে আমরা তদন্ত কাজ চালাচ্ছি৷ শিগগিরই তাকে ধরতে পারবো বলে আশাবাদি আমরা৷’’

পুলিশের রমনা বিভাগের উপ-কমিশনার সাজ্জাদুর রহমান বলেন, ‘‘শিক্ষার্থীদের মধ্যে যে চারজন এবার এইচএসসি পরীক্ষার্থী তাদের কলেজের অধ্যক্ষের সঙ্গে আমি কথা বলেছি৷ দ্রুত যেন তাদের রেজিস্ট্রেশন কার্ড পুনরায় দেওয়া যায় সে ব্যবস্থা করার অনুরোধ করেছি৷ আর যদি সেটা সম্ভব না হয় তাহলে বোর্ড চেয়ারম্যানের সঙ্গে আলোচনা করে তাদের পরীক্ষা নেওয়ার ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানিয়েছি৷ তারা কথা দিয়েছেন এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন৷ আর আসামীদের গ্রেফতারের ব্যাপারে পুলিশ তৎপরতা চালাচ্ছে৷ সহসাই তারা ধরা পড়বেন৷ আমি নিজেও মনে করি, এ ব্যাপারে বাড়ি মালিকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিৎ৷’’

ভিডিও দেখুন 02:55

করোনায় এক মহৎ বাড়িওয়ালা

‘আমরাই সবচেয়ে বড় ভিকটিম’

গ্রেফতারকৃত খোরশেদ আলমের স্ত্রী নাসরিন খোরশেদ দাবি করেছেন তার স্বামী ঐ বাড়ির মালিকের চাপেই এমন অমানবিক কাজ করেছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমার স্বামী যেটা করেছে সেটা হয়তো ঠিক হয়নি৷ কিন্তু প্রতি মাসেই ভাড়ার জন্য বাড়ি মালিক আমাদের চাপ দিচ্ছিলেন৷ ভাড়া দিতে না পারলে আমাদের যে অগ্রিম দেওয়া আছে সেটা থেকেই কেটে নেবেন বলে শাসিয়ে দিয়েছেন৷''

তিনি জানান প্রতিমাসে দুই লাখ টাকা আর আনুসঙ্গিক খরচ বাবদ আরো ৫০ হাজার টাকা করে তাদের কাছ থেকে কেটে নিচ্ছিল পূর্ব রাজাবাজারের ৪৩/ক পাটোয়ারি ভিলার মূল মালিক৷ গত তিন মাসে মোট সাড়ে সাতলাখ টাকা কেটেছেন৷ ‘‘এভাবে চলতে থাকলে তো আমাদের অগ্রিম দেওয়া ২৫ লাখ টাকার আর কিছুই থাকবে না৷ এখন সবাই আমাদের দোষারোপ করছেন৷ অথচ আমরাই এখানে সবচেয়ে বড় ভিকটিম,'' বলেন নাসরিন খোরশেদ৷

করোনা পরিস্থিতিতে ভাড়াটিয়াদের পাশাপাশি ঢাকা শহরের অনেক বাড়ির মালিকও সংকটে পড়েছেন বলে মনে করেন বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা সংস্থার (বিআইডিএস) সিনিয়র ফেলো ড. নাজনীন আহমেদ৷ তিনি বলেন, ‘‘কোভিড পরিস্থিতিতে ভাড়াটিয়া-মালিক সবাই সংকটে আছেন৷ হয়তো কেউ সারাজীবনের সঞ্চয় দিয়ে একটি বাড়ি করেছেন৷ ওই বাড়ির ভাড়াই তার জীবন চলার একমাত্র উপার্জন৷ এখন সেই মালিক কী করবেন? তাই বলে তো সার্টিফিকেট ডাস্টবিনে ফেলতে পারেন না৷ তিনি সর্বোচ্চ ভাড়াটিয়ার সঙ্গে বসতে পারেন, আলোচনা করতে পারেন৷ ভাড়া কমাতে পারেন৷ কোন ভাড়াটিয়াকে বের করে দিতে হলেও একটা প্রক্রিয়া আছে৷ সেটা অনুসরণ করতে পারেন৷ ভাড়াটিয়াদেরও বুঝতে হবে, মালিকও সংকটে আছেন৷ তাই উভয় পক্ষ আলোচনা করেই সমাধানে আসতে হবে৷''

এদিকে শনিবার সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এই বিষয়ে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলন করেছেন বলে জানিয়েছে বাংলাদেশে ডয়চে ভেলের কনটেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম৷ বাড়ির মালিকদের সহনশীল হওয়ার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘‘এ কথা সত্য যে, কোনো কোনো বাড়িওয়ালা আছেন ভাড়া থেকে প্রাপ্ত আয়ই তাদের একমাত্র উৎস৷ আবার তার উপর ব্যাংক লোনও থাকতে পারে৷ তাই আমি পরিস্থিতি বিবেচনায় দু'পক্ষকে ধৈর্য ও সহনশীলতার সাথে মানবিক হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি৷’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন