বালি দ্বীপে নদী প্লাস্টিকমুক্ত করতে অভিনব উদ্যোগ | অন্বেষণ | DW | 25.08.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

বালি দ্বীপে নদী প্লাস্টিকমুক্ত করতে অভিনব উদ্যোগ

ইন্দোনেশিয়ার বালি দ্বীপ বিশ্বের পর্যটক মানচিত্রে স্থান করে নিয়েছে৷ কিন্তু সেখানে প্লাস্টিক বর্জ্য বড় সমস্যা হয়ে উঠছে৷ এক ফরাসি পরিবেশ অ্যাক্টিভিস্ট এক উদ্যোগের মাধ্যমে নদী সাফাইয়ের সার্বিক সমাধানসূত্র কার্যকর করছেন৷

প্রতি সপ্তাহে সুংগাই ওয়াচ কমিউনিটি নিয়মিতভাবে বালি দ্বীপের নদীগুলি থেকে প্লাস্টিক বর্জ্য দূর করে৷ নোংরা নদীর অবস্থান জানতে সুংগাই ওয়াচ মাঠ পর্যায়ে জরিপ করেছিল৷ সেইসঙ্গে স্থানীয় বাসিন্দারা টেলিফোন অথবা গুগল ম্যাপের মাধ্যমে সেই তথ্য জানায়৷ সুংগাই ওয়াচ ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার রায়ান্ডি বলেন, ‘‘আমরা ‘রিভার ম্যাপিং' নামের এক পরিভাষা ব্যবহার করি৷ পথে নামার আগে আমরা গুগল ম্যাপ প্রযুক্তি ব্যবহার করি৷ ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে ‘রিভার ম্যাপিং' করলে ফল অনেক কার্যকর হয়৷ ডিজিটাল পদ্ধতিতে অবস্থান নির্ণয় করে এবং নদীর অবস্থা আমাদের প্রয়োজনমতো আছে কিনা, তা যাচাই করে সার্ভে টিম পাঠালে কাজটা আমাদের জন্য সহজ হয়৷''

সুংগাই ওয়াচ বর্জ্য দূর করার এক টুল ব্যবহার করে নদী সাফাই করে৷ ফলে সেই বর্জ্য সমুদ্রে গিয়ে পড়ে না৷ ২০২০ সালের শেষ পর্যন্ত সুংগাই ওয়াচ বালি দ্বীপের বেশ কয়েকটি নদীতে ২৫টি গার্বেজ ডাইভার্টার বসিয়েছে৷ ২০২০ সালের আগস্ট ও সেপ্টেম্বর মাসে সংগৃহিত তথ্য অনুযায়ী বালির নদীগুলিতে সবচেয়ে বেশি দূষণের কারণ ছিল ড্যানোন কোম্পানির প্লাস্টিক মোড়ক৷ ইউনিলিভার ও উইংস কোম্পানির মোড়ক যথাক্রমে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান দখল করেছে৷

ভিডিও দেখুন 04:31

অভিনব উপায়ে নদী থেকে প্লাস্টিক সরানো

সুংগাই ওয়াচ উদ্যোগের নেপথ্যে রয়েছেন গ্যারি বঁশগিব৷ ফরাসি এই পরিবেশ অ্যাক্টিভিস্ট ১১ বছর ধরে বালিতে বাস করছেন৷ ইন্দোনেশিয়ার নদীগুলির বেহাল অবস্থা নিয়ে দুশ্চিন্তার কারণে তিনি ২০১৯ সালে সুংগাই ওয়াচ উদ্যোগ শুরু করেন৷ গ্যারি বলেন, ‘'১১ বছর আগে বালির সৈকতগুলি সাফাইয়ের মাধ্যমে আমরা পরিবর্তনের প্রচেষ্টা শুরু করি৷ আমরা দেখলাম যে সমুদ্রের ৯০ শতাংশ প্লাস্টিক বর্জ্যের উৎস নদী৷ সঙ্গে সঙ্গে আমরা ভাবলাম, আমরা কীভাবে সুরক্ষার মাধ্যমে সুন্দর এই দ্বীপকে প্রতিদান দিতে পারি৷ সেখানেই আমরা বাস করি, খেলাধুলা করি৷ আমাদের এই দ্বীপ বাঁচাতেই হবে৷ দূর্ভাগ্যবশত বালির নদীগুলি আবর্জনা ফেলার জায়গা হয়ে উঠেছে৷ অথচ সেই অবস্থা প্রতিরোধ করতে কোনো উদ্যোগ নেই৷ তখন বুঝলাম সমুদ্রে প্লাস্টিক দূষণ বন্ধ করতে হলে নদীতে প্লাস্টিক দূর করতে হবে৷''

বিভিন্ন ধরনের দূষণের উৎস সম্পর্কে ইন্দোনেশিয়ায় যথেষ্ট তথ্য না থাকায় সুংগাই ওয়াচকেই সেই কাজ করতে হয়েছিল৷ অথচ শিল্পক্ষেত্র ও সমাজের সমন্বয়ে সমাধানসূত্র খুঁজতে হলে প্লাস্টিক বর্জ্য সম্পর্কে তথ্য থাকা অত্যন্ত জরুরি৷

গ্যারি বঁশগিব মনে করেন, ‘‘আমরা জানি, কোন ব্র্যান্ডের পণ্য সবচেয়ে বেশি প্লাস্টিক বর্জ্যের জন্য দায়ী৷ কোন ধরনের প্লাস্টিক আমাদের পরিবেশে সবচেয়ে বেশি দূষণের কারণ, তাও জানা আছে৷ ফলে প্রকৃত সমাধান খোঁজা সম্ভব৷ আমরা ইতোমধ্যেই বড় বড় কোম্পানিগুলির সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছি, যারা সাফাইয়ের কাজের ব্যয়ভার বহন করতে প্রস্তুত৷ আমার মতে, মোড়ক হিসেবে এখনো প্লাস্টিক ব্যবহার করছে, এমন সব কোম্পানির সঙ্গে সংলাপ শুরু করতে পারলে আরও পরিবর্তন আনতে পারবো৷ তখন আরও টেকসই প্যাকেজিং সম্পর্কে সংলাপ শুরু করতে পারবো৷''

তথ্য সংগ্রহ ছাড়া সুংগাই ওয়াচ বর্জ্য রিসাইক্লিংও করে৷ এমন পুনর্বব্যহৃত পণ্যের তালিকায় প্লাস্টিক বর্জ্য দিয়ে তৈরি ইটও রয়েছে৷ গ্যারি জানালেন, ‘‘আমরা এমন কিছু দীর্ঘমেয়াদী সমাধানসূত্র নিয়ে ভাবনাচিন্তা চালিয়ে যাচ্ছি৷ বোতল, ছিপি, স্ট্র, মোড়ক, ইনস্ট্যান্ট নুডলসের মোড়ক ইটে পরিণত করতে পারলে কেমন হয়? এটা একটা দীর্ঘমেয়াদী সমাধানসূত্র৷ তাই আমরা এখনো গবেষণা চালিয়ে সেরা সম্ভাব্য সমাধানসূত্র পরীক্ষা করে দেখছি৷''

সুংগাই ওয়াচ পরিবেশ সাফাই অভিযানে স্থানীয় মানুষদের সম্পৃক্ত করার উদ্যোগও চালিয়ে যাচ্ছে৷ সেইসঙ্গে এমন এক প্ল্যাটফর্ম বা মঞ্চ গড়ে তোলার পরিকল্পনা রয়েছে, যার মাধ্যমে স্থানীয় মানুষ নিজস্ব বর্জ্য সংগ্রহের পরিষেবা গড়ে তুলতে পারে৷

কাদেক সূর্য সঞ্জয়/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়