বার্লিন হত্যাকাণ্ডের জেরে রুশ কূটনীতিক বহিষ্কার | বিশ্ব | DW | 04.12.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

বার্লিন হত্যাকাণ্ডের জেরে রুশ কূটনীতিক বহিষ্কার

জার্মানিতে জেলিমখান খানগশভিলি হত্যাকাণ্ড নিয়ে তদন্তে রাশিয়া ‘যথেষ্ট সহযোগিতা' না করায় বার্লিন তাদের দুই কূটনীতিককে বহিস্কার করেছে৷

বার্লিনে খুন হওয়া জর্জিয়ার নাগরিককে রাশিয়া বা চেচনিয়ার নির্দেশে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে এমন তথ্য পাওয়ার পর দুই রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করেছে জার্মানি৷

রাশিয়া এই হত্যাকাণ্ডের তদন্তে ‘যথেষ্ট সহযোগিতা করেনি’ জানিয়ে বুধবার জার্মান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এ ঘোষণা দেওয়া হয়৷ তবে বহিষ্কৃত দুজন দূতাবাসের কোন পর্যায়ের কর্মকর্তা তা জানানো হয়নি৷

জার্মানির ফেডারেল তদন্ত কর্মকর্তারা ওই হত্যাকাণ্ড নিয়ে তদন্তের ঘোষণা দিয়েছেন৷

বার্লিনের অ্যাটর্নি জেনারেলও এক বিবৃতিতে এ ঘটনায় রাশিয়ারসংশ্লিষ্টতার ইঙ্গিত পাওয়া গেছে বলে জানান৷

খুন হওয়া ওই জর্জিয়ান ২০১৬ সালে জার্মানিতে আশ্রয় প্রার্থনা করেছিলেন৷ আবেদনে তিনি বলেছিলেন, জর্জিয়ায় তাকে কয়েকবার হত্যার চেষ্টা করা হয়েছিল৷

যদিও তার আবেদন বাতিল হয়ে যায় এবং তাকে বিতাড়ণের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল৷

চেচেন বংশোদ্ভূত জেলিমখান খানগশভিলিকে আগস্টের শেষ দিকে বার্লিনে দিনেদুপুরে মাথায় ও বুকে গুলি করা হয়৷

সন্দহভাজন হামলাকারী ৪৯ বছরের একজন রুশ নাগরিক৷

শুরু থেকেই এই হত্যাকাণ্ডে রাশিয়ার সংশ্লিষ্টতা থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছিল, যদিও মস্কো বরাবরই তা অস্বীকার করেছে৷

১৯৯৯ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত চলা দ্বিতীয় চেচেন যুদ্ধের সময় খানগশভিলি রাশিয়ার বিরুদ্ধে বিদ্রোহীদের হয়ে যুদ্ধ করেছিলেন৷

যুদ্ধ শেষ হওয়ার পরও তিনি ইউক্রেন ও জর্জিয়ায় রাশিয়ার স্বার্থবিরোধী কাজ করছিলেন বলে শোনা যায়৷ তার নাম রাশিয়ার ‘জঙ্গি তালিকায়' ছিল৷

খানগশিভিলর সাবেক স্ত্রী মানানা সাতিয়েভা ডয়চে ভেলেকে বলেছিলেন, ‘‘আমরা আগেই বলেছিলাম তাকে খুন করার চেষ্টা হবেই৷''

এ হত্যাকাণ্ড বার্লিন ও মস্কোর মধ্যে সম্পর্কে উত্তেজনা বাড়িয়ে দিয়েছে৷

এসএনএস/এসিবি (ডিপিএ, এপি, রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন