বার্লিনে স্লোভাকিয়ার খাবার পরিবেশন করছেন দুই নারী | অন্বেষণ | DW | 06.07.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

বার্লিনে স্লোভাকিয়ার খাবার পরিবেশন করছেন দুই নারী

বিদেশের মাটিতে দেশের খাবার, সংস্কৃতি নির্ভেজাল রূপে তুলে ধরার সুযোগ সবাই পায় না৷ স্লোভাকিয়ার দুই নারী বার্লিনে একটি রেস্তোরাঁ খুলে এমনই আয়োজন করেছেন৷ ছোটবেলা থেকেই দু'জনের রান্নার শখ৷

ভান্ডা মোলনার ও সিলভিয়া পিন্টেরোভা বার্লিনে নিজেদের দেশ স্লোভাকিয়ার খাবারের এক রেস্তোরাঁ খুলেছেন৷ ভান্ডা বলেন, ‘‘স্লোভাকিয়ার কথা ভাবলে প্রথমেই পুরানো বন্ধুদের সঙ্গে দেখা করার ইচ্ছা করে৷ খোলা আকাশের নীচে গাছের তলায় বসে ভালো ওয়াইন খেতে মন চায়৷ আর দানিয়ুব নদীর দিকে তাকিয়ে থাকার তুলনাই হয় না৷’’

বার্লিন শহরেও এমন পরিবেশ সৃষ্টি করতে চেয়েছিলেন তিনি৷ একটি বাড়ির সেলারে প্রথাগত রেস্তোরাঁর বদলে বড় টেবিলকে ঘিরে এক মিলনস্থল গড়ে তোলা হয়েছে৷

সপ্তাহে ৫ দিন সন্ধ্যায় ভান্ডা ও সিলভিয়া গ্রাহকদের স্বাগত জানান৷ তাঁরা ভালো খাবার ও ওয়াইন পরিবেশন করে অজানা অচেনা মানুষদেরও পরস্পরের কাছাকাছি আনতে চান৷ প্রতি সপ্তাহে নতুন তিন পদের খাদ্যতালিকা পরিবেশন করেন তাঁরা৷ ভান্ডা মোলনার বলেন, ‘‘এখানে সময় বা কালই মূল বিষয়৷ এটাই আসলে আমাদের পণ্য৷ আজকাল সবাই মোবাইল ফোন, কম্পিউটারের পর্দায় সবকিছু দ্রুত সেরে ফেলার চেষ্টা করেন৷ অন্যদিকে আমরা কিছুটা শান্তি আনার, সবকিছুর গতি কমানোর চেষ্টা করছি৷ শুধু ভোগ করার বদলে নিজেদের সম্পর্কে উপলব্ধি জাগিয়ে তুলতে চাইছি৷’’

রেস্তোরাঁর দুই মালিক ‘স্লো ফুড’ রান্না করেন৷ অর্থাৎ চেনাশোনা মানুষের কাছ থেকেই তাঁরা রান্নার উপকরণ কেনেন৷ সেগুলি কোথা থেকে আসছে, সেটা জানা তাঁদের জন্য জরুরি৷ অনেক উপকরণ স্লোভাকিয়া অথবা বার্লিনের আশেপাশের এলাকা থেকে সংগ্রহ করা হয়৷ সঙ্গে যে ওয়াইন পরিবেশন করা হয়, সেগুলি কোনো জটিল প্রযুক্তি ছাড়াই অরগ্যানিক পদ্ধতিতে তৈরি করা হয়েছে৷ সিলভিয়া বলেন, ‘‘স্লোভাকিয়ার খাদ্য প্রকৃতির খুব কাছাকাছি৷ উত্তর ও দক্ষিণের মধ্যে বেশ তফাত রয়েছে৷ উত্তরে বেশি আলুর পদ, সঙ্গে চিজ ও মাংস খাওয়া হয়৷ আর দক্ষিণে শাকসবজি ও মাংস বেশি করে খাওয়া হয়৷’’

১৯৭৬ সালে স্লোভাকিয়ার রাজধানী ব্রাতিস্লাভায় সিলভিয়ার জন্ম হয়েছিল৷ ভান্ডা মোলনারও প্রায় সমবয়সি, ২০০০ সাল থেকে তিনি বার্লিনে বসবাস করেন৷ স্লোভাকিয়ায় দু'জনের আলাপ হয়েছিল৷ দু'জনেই বুঝেছিলেন, যে তাঁদের শৈশবে প্রায় একই অভিজ্ঞতা হয়েছে৷ দু'জনেই কম বয়স থেকেই রান্না করতে ভালবাসেন৷ ভান্ডা মোলনার বলেন, ‘‘দাদির কাছে থেকে মানুষ হয়েছিলাম৷ খেলনার বদলে হাতে ময়দার তাল থাকতো৷ সে সব নিয়েই খেলা করতাম৷ রান্নাঘরই ছিল আমার খেলার ঘর৷ যতদূর জানি, সিলভিয়ারও একই রকম অভিজ্ঞতা হয়েছে৷’’

স্লোভাকিয়ার এই দুই নারী বার্লিনের প্রায় কেন্দ্রস্থলে ক্রয়েৎসব্যার্গ পাড়ায় থাকেন ও কাজ করেন৷ সেখানে বিভিন্ন সংস্কৃতির মিলনকেন্দ্র গড়ে উঠেছে৷ ২০১৪ সালে সেখানেই তাঁরা এক রেস্তোরাঁ খোলেন৷ স্লোভাকিয়ার আড্ডার সংস্কৃতির সঙ্গে মানুষের পরিচয় করিয়ে দেওয়াই ছিল তাঁদের উদ্দেশ্য৷ সিলভিয়া পিন্টেরোভা বলেন, ‘‘আজ তোমাদের জন্য ভেড়ার দুধের চিজ দিয়ে পিঠা তৈরি করেছি৷ স্লোভাকিয়ার চিরায়ত খাদ্যের মধ্যে পড়ে৷ ভালো করে খান৷’’

স্টেফানি ড্রেশার/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন