বার্লিনে পুলিশ কংগ্রেস | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 10.02.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

বার্লিনে পুলিশ কংগ্রেস

যে কোন দেশে আইন প্রয়োগের দায়িত্ব থাকে পুলিশের হাতে৷ পুলিশই হচ্ছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা৷ আইনের শাসন, দুষ্টের দমন - ঠিক এখানেই পুলিশের দায়িত্ব অপরিসীম৷

default

দ্যা হেগে ইউরোপোলের দপ্তর

একটি দেশে পুলিশ কাজকর্মে কতটা সক্রিয় সেটা বোঝা সে দেশের অপরাধের মাত্রা বাড়ছে নাকি কমছে সেটা দেখে৷ এদিক থেকে জার্মানি বেশ ভাল অবস্থানে রয়েছে৷ জার্মানিতে অপরাধের মাত্রা অন্যান্য ইউরোপীয় দেশের তুলনায় অনেক কম৷ ইউরোপের বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন শহরে এর তারতম্য লক্ষ্য করা যায়৷ ফেব্রুয়ারি মাসেই জার্মানির রাজধানী বার্লিনে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ১৩তম ইউরোপীয় পুলিশ কংগ্রেস৷

Max-Peter Ratzel Europol

সুপারকপ রাটসেল

সম্প্রতি বার্লিনে অনুষ্ঠিত হল ১৩ তম ইউরোপীয় পুলিশ কংগ্রেস৷ বার্লিনের এই কংগ্রেসে উপস্থিত ছিলেন ইউরোপের ৬০টি দেশ থেকে প্রায় বারো'শ পুলিশ কর্মকর্তা৷ সম্মেলনে উদ্বোধনী ভাষণের মাধ্যমে সবাইকে স্বাগত জানান জার্মানির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী থোমাস দেমেজিয়ের৷ ভাষণে তিনি সারা বিশ্বে নিরাপত্তার ক্ষেত্রে ইউরোপের দায়-দায়িত্বের কথা বলেন৷ প্রতিটি দেশে নিরাপত্তা জোরদার করার জন্য আন্তর্জাতিক সহযোগিতার ওপর তিনি জোর দেন৷ এই সহযোগিতার ভাবনা থেকে গড়ে উঠেছে ইউরোপোল৷

ইউরোপীয়ান পুলিশ এনফোর্সমেন্ট এজেন্সি সংক্ষেপে ইউরোপোল৷ ১৯৯৪ সালে নেদারল্যান্ডসের দ্যা হেগে ইউরোপের ২৭টি দেশ থেকে প্রায় ৬০০ জন পুলিশ নিয়ে শুরু হয় ইউরোপোলের শুভযাত্রা৷

Deutschland Polen Grenze auf Usedom Polizei

নিরাপত্তার দায়িত্বে পুলিস কর্মকর্তারা

ইউরোপোলের পরিচালক হিসেবে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেছেন জার্মান পুলিশ মাক্স পেটার রাটসেল৷ তিনি বলেন, ইউরোপোলের সবচেয়ে বড় সুবিধা হল এতগুলো দেশের পুলিশকে একই সময়ে একসঙ্গে জড়ো করা গেছে৷ সবার প্রশ্নের উত্তর হয়তো একসঙ্গে দেয়া সম্ভব নয়৷ তবে সবাই সুযোগ পাবে নিজ ভাষায় প্রশ্ন করার৷ আমরা চেষ্টা করবো এই স্বল্প সময়ের মধ্যে সবাইকে সন্তুষ্ট করতে৷

আমরা রবোকপের নাম শুনেছি৷ ২০০৫ সাল থেকে মাক্স পেটার রাটসেল হচ্ছেন সুপারকপ৷ মাদ্রিদে বোমা হামলার পর তিনি অসাধারণ কর্মদক্ষতার গুণে দ্যা হেগে নিজের আসন বেশ পোক্ত করে নিয়েছেন৷ সেই সঙ্গে ইউরোপোলও তার কাজের গুণে হয়েছে আগের চেয়ে অনেক বেশি সক্রিয়৷

BdT Deutschland Polizei Demonstration in Berlin

জার্মান পুলিশ বাহিনীতে মেয়েদের সংখ্যা বাড়ছে

ইউরোপোল শুধু একটি দেশে নয় কাজ করছে ইউরোপের প্রতিটি দেশে৷ দায়িত্বের পরিধি সীমান্ত পেরিয়ে চলে যাচ্ছে আরো অনেক দূরে৷ ইউরোপোলের কাজ সম্পর্কে রাটসেল জানালেন, ইউরোপোলের দায়িত্ব, কাজ-কর্মের মূল লক্ষ্য হচ্ছে আন্তর্জাতিকভাবে অন্যান্য দেশের পুলিশ বাহিনীর সাহায্য এবং সহযোগিতা নিয়ে কাজ করা৷ এর মধ্যে দিয়েই সব অপরাধ দমন সম্ভব৷ ইউরোপোল হচ্ছে এমন একটি সংস্থা যার সংগ্রহে সব ধরণের ডাটা রয়েছে৷ ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যদেশগুলো ছাড়াও আরো অন্যান্য দেশ ইউরোপোলকে সাহায্য করছে এই ডাটা সংগ্রহে৷ এসব ডাটা হাতে থাকার কারণেই খুব সহজে এবং অল্প সময়ের মধ্যেই কেউ অপরাধ করলে তাঁকে সনাক্ত করা এবং গ্রেপ্তার করা সম্ভব৷

তবে ইউরোপের বহু মানুষ আপত্তি তুলেছেন যে, কোন কারণ ছাড়াই পুলিশ তাদের ওপর নজরদারি করছে বলে তারা মনে করেন৷ তাদের অভিযোগ, অপরাধী এবং নিরপরাধীদের মধ্যে তেমন পার্থক্য ধরা পড়ছে না৷ সাধারণ মানুষদের এই অভিযোগ কতটা সঙ্গত, এ প্রশ্নের উত্তরে রাটসেল জানান, মোটেই এ ধরণের কোন ঘটনা ঘটছে না বরং এর উল্টো৷ বিশেষভাবে নজরদারি করা হচ্ছে, সেই অপরাধীদের ধরার জন্য যারা একদেশে অপরাধ করে অন্য দেশে পালিয়ে যায় বা পালিয়ে বেড়ায়৷ এখানে সন্ত্রাসমূলক কর্মাকান্ডের কথা বলা হচ্ছে৷ কেউ যদি মনে করে কোন কারণ ছাড়া তার ওপর নজরদারি করা হচ্ছে তাহলে অবশ্যই তাকে প্রমাণ করতে হবে যে সে কোন ধরণের অপরাধের সঙ্গে জড়িত নয়৷ সে অধিকার তার রয়েছে৷ তখন তার সম্পর্কে ডাটা সব দেশে পাঠানো হবে না৷

প্রতিবেদক: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদক: আবদুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন