বাভেরিয়ায় ক্রস ঝোলানোর নির্দেশ ঘিরে বিতর্ক | বিশ্ব | DW | 01.06.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

বাভেরিয়ায় ক্রস ঝোলানোর নির্দেশ ঘিরে বিতর্ক

জার্মানির দক্ষিণের রাজ্য বাভেরিয়ায় সরকারি ভবনে প্রকাশ্যে ক্রসচিহ্ন ঝোলানোর নির্দেশ জারি হয়েছে৷ তবে যে কারণে এই নির্দেশ জারি হয়েছে, তা বাভেরিয়ার মানুষ ও স্থানীয় প্রশাসনের কাছে মাথাব্যথা হয়ে দাঁড়িয়েছে৷

প্রশাসনিক দপ্তর হোক বা থানা কিংবা আদালত, বাভেরিয়ার বাসিন্দারা এবার কোনো সরকারি ভবনে গেলেই ক্রশচিহ্ন দেখতে পাবেন৷ শুক্রবার থেকে এই নয়া নিয়ম কার্যকর হচ্ছে৷ এবং এই নির্দেশকে কঠোরভাবে কার্যকর করার কথা বলা হয়েছে৷ বাভেরিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের মুখপাত্র মার্টিন শলটিসিক বলেন, শুক্রবার থেকে এই নয়া নিয়ম কার্যকর হবে৷ এই নির্দেশকে হালকাভাবে নিলে চলবে না৷

তবে মুখপাত্র এটা স্পষ্ট করে জানাননি যে ক্রস না ঝোলালে কোনো জরিমানা হবে কিনা৷ তবে তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন, নয়া নিয়ম কার্যকর করতে বাভেরিয়ার প্রশাসন চেষ্টার ত্রুটি রাখবে না৷

প্রয়োজন স্পষ্টভাবে দৃশ্যমান ক্রস

বাভেরিকার নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, বাভেরিয়ার ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক প্রভাবের কথা স্মরণ করে প্রতিটি ভবনের প্রবেশদ্বারে স্পষ্টভাবে দৃশ্যমান ক্রস ঝোলাতে হবে৷ বাভেরিয়ার প্রাদেশিক প্রধান মার্কুস স্যোডার গত এপ্রিলে নতুন এই নিয়মের ঘোষণা করেছিলেন৷ এই ঘোষণার সময় যখন তিনি নিজে চিত্রসাংবাদিকদের সামনে স্টেট চ্যান্সেলারিতে একটি ক্রস ঝুলিয়ে ছিলেন, তখনই বোঝা গিয়েছিল এই নির্দেশের তাৎপর্য কতটা৷

এই পদক্ষেপ জার্মানিতে তুমুল বিতর্কের জন্ম দিয়েছে৷ শুধু পড়ুয়ারাই এর বিরোধিতা করেননি, ধর্মীয় নেতারাও এর বিরোধিতা করেছেন৷ প্রোটেস্ট্যান্ট চার্চ এবং ক্যাথলিক বিশপস কনফারেন্স এই পদক্ষেপের সমালোচনা করে বলেছে, এর ফলে ধর্মীয় প্রতীকের অপব্যবহার হবে৷

যদিও বাভেরিয়ার প্রোটেস্ট্যান্ট প্রধান স্যোডার শুক্রবার তাঁর ঘোষণা কার্যকর হওয়ার দিন জার্মানিতে নেই৷ তিনি গিয়েছেন ভ্যাটিকানে, পোপ ফ্রন্সিসের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে৷

দ্বিধাদ্বন্দ্ব ও সমালোচনা

ঘোষণার পর থেকেই বাভেরিয়ার বিভিন্ন স্থানের প্রশাসন ভাবছিল, কবে পয়লা জুন আসবে ও এই নির্দেশ কার্যকর করার প্রথম দিনটি নিরুপদ্রবে মিটে যাবে৷ সরকারি আধিকারিকরা এ নিয়ে ধন্দে ছিলেন৷ ক্রসের মাপ, আকার সহ কোনো কিছুই নির্দিষ্ট করে বলা নেই সরকারি নির্দেশিকায়৷ মুখপাত্র মার্টিন এই ধোঁয়াশা দূর করে বলেন যে, এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনই সিদ্ধান্ত নেবে৷

প্রশাসনের মুখপাত্রের এই মন্তব্যের অর্থ, খুব ছোট আকারের ক্রসও ঝোলানো যেতে পারে প্রবেশপথে৷ নির্দেশিকায় যেখানে ক্রস ঝোলানোর কথা বলা হয়েছে, সার্ভিস বিল্ডিং-এর ব্যাখা নিয়েও ধন্দ রয়েছে৷ এর মধ্যে বাভেরিয়া সরকারের অধীন সব প্রশাসনিক ভবনই পড়ে৷ এছাড়া রয়েছে থানা ও ট্যাক্স অফিস৷ এর মধ্যে পড়ে মিউজিয়াম, থিয়েটার, স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয়ও৷ প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে কি এ সব জায়গাতেই দৃশ্যমান ক্রস বাধ্যতামূলক?

এখানেই আপত্তি উঠেছে৷ মিউজিয়াম বা অন্যান্য সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ক্রস নিয়ে আপত্তি তুলছে৷ তারা তাদের প্রবেশদ্বার বা হলে ক্রস ঝোলাতে রাজি নয়৷ তাদের বক্তব্য, এর ফলে তাদের কাজের প্রকৃত উদ্দেশ্য ব্যাহত হবে৷

নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া

প্রথম প্রতিবাদ এসেছে নুরেমব্যার্গের মিউজিয়াম ফর কনটেম্পরারি আর্ট থেকে৷ এই প্রতিষ্ঠানের ডিরেক্টর এভা ক্রাউস বলেছেন, তিনি নির্দেশিকা মানবেন না৷ প্রতিষ্ঠানের এক মুখপাত্রের মতে, ক্রসের নিয়ম তাঁদের ক্ষেত্রে কার্যকর নয়৷

বাভেরিয়ার বিজ্ঞান ও কলা মন্ত্রকের মুখপাত্র বিষয়টি স্পষ্ট করে বলেছেন, নয়া নিয়ম মিউজিয়াম থিয়েটার, বিশ্ববিদ্যালয় ও অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে এখন কেবলই প্রস্তাব বা পরামর্শ, প্রয়োজন নয়৷ এ কথা সরাসরি এ সব প্রতিষ্ঠানকে জানানো হয়েছে কিনা, তা বোঝা যাচ্ছে না৷

প্রচার কৌশল নাকি ঐতিহ্যের প্রতি সম্মান?

সরকারি পদক্ষেপ সংবিধান অনুযায়ী কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে৷ ধর্মনিরপেক্ষতা ও চার্চের থেকে রাজ্যকে আলাদা রাখার যে নীতি সংবিধানে রয়েছে, ক্রসের নির্দেশিকা তাকে লঙ্ঘন করছে বলে অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন৷

কিন্তু স্যোডার ও বাভেরিয়ার সরকার এই বক্তব্য খারিজ করে বলেছে, ক্রস বাভেরিয়ার পরিচয়৷ যদিও বাভেরিয়ার পরিচয় বলতে কী বোঝায়, তা নিয়ে বিভিন্ন জনের বিভিন্ন মত৷ প্রসঙ্গত, এই বিতর্ক তখন তৈরি হলো যখন জার্মান সমাজে ইসলামের ভূমিকা নিয়ে আলোচনা চলছে৷ স্যোডার ও তাঁর দল রাজ্য নির্বাচনের আগে এই ঘোষণার মাধ্যমে জনপ্রিয় হয়ে উঠতে চাইছে৷

আগামী ১৪ অক্টোবর প্রাদেশিক নির্বাচন৷ জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের বাভেরিয়ার শাখা বা সহযোগী দল স্যোডারের ক্রিশ্চিয়ান সোশ্যাল ইউনিয়ন (সিএসইউ) অতি দক্ষিণপন্থি অলটারনেটিভ ফর জার্মানির (এএফডি) বিরুদ্ধে ভোটে জয় পেতে চাইছে৷

রেবেকা স্টাউডেনমায়ার/পিএস    

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়