বাতিল অমরনাথ যাত্রা, প্রশ্ন ঈদ নিয়ে | বিশ্ব | DW | 22.07.2020

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

বাতিল অমরনাথ যাত্রা, প্রশ্ন ঈদ নিয়ে

হিন্দুদের তীর্থযাত্রা অমরনাথ দর্শন আপাতত বাতিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো। কোরবানি ঈদ নিয়ে প্রশ্ন উঠছে কোনও কোনও মহলে।

শেষ পর্যন্ত এ বছরের জন্য স্থগিত হয়ে গেল অমরনাথ যাত্রা। কাশ্মীরের দুর্গম পাহাড়ে প্রায় ১৩ হাজার ফুট উচ্চতায় অমরনাথ হিন্দুদের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ তীর্থক্ষেত্র। প্রতি বছর লাখ লাখ যাত্রী সেই তীর্থক্ষেত্র পায়ে হেঁটে দর্শন করতে যান। অমরনাথ গুহা কর্তৃপক্ষ এবং সরকার জানিয়েছে, করোনার কারণে এ বছর তীর্থযাত্রা বন্ধ রাখা হচ্ছে।

শ্রীঅমরনাথজি শ্রাইন বোর্ড প্রতি বছর যাত্রার আয়োজন করে। তবে প্রতি বছরই এই যাত্রা নিয়ে উত্তেজনা থাকে। বেশ কয়েক বার তীর্থযাত্রীদের উপর জঙ্গি হামলাও হয়েছে। গত বছর জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলুপ্তির পরে উত্তেজনা তৈরি হওয়ায় যাত্রা মাঝপথে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। এ বছর অবশ্য মূলত করোনার কারণেই যাত্রা বন্ধ করা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

গত এক মাসে ভারত জুড়েই করোনার প্রকোপ লাফিয়ে বেড়েছে। বাদ নেই কাশ্মীরও। প্রতিদিনই সেখানে করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে নতুন করে ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা হয়েছে কাশ্মীরে। যা নিয়ে স্থানীয় মানুষদের একাংশ ক্ষোভ প্রকাশও করছেন। সরকার এবং শ্রীঅমরনাথজি শ্রাইন বোর্ড অবশ্য ফেব্রুয়ারি মাস থেকেই যাত্রার প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছিল। সেনাবাহিনীর একটি দলকে সে কারণে কাশ্মীরে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্ত হয়, এই পরিস্থিতিতে যাত্রা বন্ধ রাখাই উচিত হবে। লাখ লাখ যাত্রী সারা দেশ থেকে এই সময়ে কাশ্মীরে আসেন। এ বছরেও তেমন ভিড় হলে কাশ্মীরে করোনা আরও ছড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিল। পাশাপাশি যাত্রী সুরক্ষার কথাও মাথায় রাখা হয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের একাংশ অবশ্য বলছে, করোনা একমাত্র কারণ নয়। যদি তাই হতো, তা হলে কিছুদিন আগে পুরীতে রথযাত্রার অনুমতি দেওয়া হতো না। নিরাপত্তার বিষয়টিও এ ক্ষেত্রে ভাবা হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। সম্প্রতি লাদাখে ভারত এবং চীনের মধ্যে সংঘাত হয়েছে। সেই উত্তেজনার পারদ বাহ্যিক ভাবে অনেকটা কমলেও, পুরোপুরি উবে যায়নি। বুধবারই ভারতীয় সেনা সূত্র জানিয়েছে, আপাতত লাদাখ থেকে সেনা কমানো হবে না। বাহিনীকে স্ট্যান্ডবাই মোডে রাখা হবে। শুধু চীন নয়, লাদাখ লাগোয়া পাকিস্তান সীমান্তেও উত্তেজনা রয়েছে। নিরাপত্তাবাহিনীর সঙ্গে চরমপন্থীদের গুলির লড়াই হচ্ছে প্রায় প্রতিদিনই। এই পরিস্থিতিতে অমরনাথযাত্রা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যেতে পারে বলে অনেকের অভিমত।

এ দিকে অমরনাথ যাত্রা বাতিল হওয়ায় নতুন একটি প্রশ্ন সামনে চলে এসেছে। জুলাইয়ের শেষে অথবা অগাস্টের গোড়ায় কোরবানি ঈদ পালন করা যাবে তো? এর আগে রোজার শেষে ঈদ পালনের ক্ষেত্রে কড়া মনোভাব নিয়েছিল সরকার। সে সময় লকডাউনের কারণে মন্দির মসজিদও বন্ধ ছিল। সকলকে বাড়িতে বসে ঈদের নামাজ পড়তে বলা হয়েছিল। কোরবানি ঈদে পশুর হাট বসে। পশু কোরবানি দেয়ার ব্যাপার থাকে। এক সঙ্গে বসে নামাজ পড়ার প্রথাও আছে। দেশের মুসলিম সংগঠনগুলি ঈদের প্রস্তুতি নিতে শুরু করে দিয়েছে। কিন্তু সরকার এখনও কিছু জানায়নি। অমরনাথ যাত্রা বাতিল করায় ঈদ নিয়েও তাই জল্পনা শুরু হয়েছে।

এসজি/জিএইচ (পিটিআই, এএনআই)