বাঙালি নারীর ফ্যাশন এবং... | আলাপ | DW | 06.09.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সংবাদভাষ্য

বাঙালি নারীর ফ্যাশন এবং...

ঊনবিংশ শতাব্দির মধ্যভাগ পর্যন্ত বাঙালির সেলাইবিহীন পোশাক পরিধানের তথ্য জানা যায়৷ ড. নীহাররঞ্জন রায় তার ‘বাঙালীর ইতিহাস’ বইয়ে বিস্তারিত লিখে গেছেন৷ তবে এর পরের শতাব্দিতে পোশাকের ইতিহাস অত্যন্ত গতিশীল৷

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

ইতিহাসের সেদিকে যাব না৷বাঙালি নারীর পোশাক বা ফ্যাশন সচেতনতা বিষয়ে দু'একটি কথা বলা যাক৷

বাঙালি নারী জাগরণের অগ্রদূত বেগম রোকেয়া পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছেন ১৯৩২ সালে৷ পরনে শাড়ি, এমন বেগম রোকেয়াই বেঁচে আছেন বাঙালির দৃশ্যপটে৷ বাঙালির আন্দোলন-সংগ্রামের আরেক সাহসী নারী বেগম সুফিয়া কামাল৷ শাড়ি পরিহিত সুফিয়া কামালই রয়ে গেছেন বাঙালির দৃশ্যপটে৷ যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে আওয়াজে দেশ কাঁপানো জননী জাহানারা ইমামকেও বাঙালি মনে রেখেছেন শাড়ি পরিহিত অবয়বেই৷ শাড়ি বাঙালির প্রিয় পোশাক, রুচিশীল-মার্জিত-আকর্ষণীয় পোষাক৷ বিচিত্র রঙ-ঢঙ্গের শাড়ি,বহু ঢঙ্গে-রীতিতে পরিধানের বর্ণনা ইতিহাসে পাওয়া যায়৷

 

আবার ব্রিটিশ শাসনকালেও বাঙালি নারীর সালোয়ার-কামিজ পরতেন৷

বাঙালি নারীর প্রিয় পোশাক বিষয়ে অনেক কিছু লেখার উপাদান আছে৷ বাঙালি নারীর নিজস্ব পোশাক কী? এই প্রশ্নের সহজ-সরল উত্তর জানা নেই৷ কেউ জানেন কিনা,তাও জানিনা৷ যতটা জানি, বহু বর্ণ গোত্রের থেকে বিবর্তনের মাধ্যমে আসা পোষাকই বাঙালি নারীর পোশাক হয়ে উঠেছে৷
গত ৩০ বা ৩৫ বছরে পোষাকে বাঙালি নারীর ফ্যাশন সচেতনতা বহুগুণ বেড়েছে৷ শাড়ি-সালোয়ার কামিজের পাশাপাশি পশ্চিমা পোশাকে অভ্যস্ত হয়ে উঠতে শুরু করেছে বাঙালি নারী৷ পশ্চিমের মেয়েদের মত অত ছোট পোষাকে অভ্যস্ত না হলেও, জিন্স-টিশার্টের মত পোষাককে বাঙালি নারীরা প্রিয় করে নিয়েছে৷ ফ্যাশনে থ্রি পিস হয়ে যাচ্ছে টু পিস৷ আরও বহু রকমের দেশ বিদেশের পোশাকের সঙ্গে নিজেকে অভ্যস্ত করে নিয়েছে বাঙালি নারী৷ শাড়ির গ্রহণযোগ্যতা-আকর্ষণ কমেনি একটুও৷ একই সঙ্গে বাঙালি নারীর একটি বড় অংশের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে হিজাব৷ পূর্বের রীতিতে বাঙালি নারীদের মধ্যে সাধারণত বয়স্কদের বোরকা পড়ার চল ছিল৷ তা এখন যে নেই তা নয়৷ তবে কম বয়সী মেয়ে-নারীদের হিজাব পড়ার প্রবণতা বেড়েছে৷ ফলে পোশাক নির্বাচন বা ফ্যাশন সচেতনতায় বাঙালি মেয়ে-নারীদের এক বাক্যে চিত্রিত করা যাবে না৷ জিন্স-টিশার্ট বা আরও ছোট পোশাক যেমন শহরের অনেক মেয়েদের প্রিয় পোশাক৷ হিজাবপ্রিয়দের সংখ্যাও কম নয়৷ জেলা বা গ্রাম পর্যায়ে হিজাবের সংখ্যা অত্যন্ত দ্রুতগতিতে বাড়ছে৷ বহুজাতিক কোন্পানিগুলো তাদের প্রসাধন সামগ্রীর বিজ্ঞাপন করছেন হিজাবের সঙ্গে মিলিয়ে ৷

সামগ্রিকভাবে বলা যায়,সময়ের সঙ্গে মিল রেখে বাঙালি নারীদের ফ্যাশন সচেতনতাও এগিয়ে চলছে৷ বর্তমানের ছোট হয়ে আসা পৃথিবীতে কবে কোথায় কী ঘটছে,তা জানা সহজ৷ সেই ধারাবাহিকতায় দিল্লি বা প্যারিসের আজকের ফ্যাশনের সংবাদ পৌঁছে যায় ঢাকার মেয়ে-নারীদের কাছেও৷ পোষাক বা ফ্যাশন একটি দেশ বা অঞ্চলের আবহাওয়া-পরিবেশ-প্রকৃতির সঙ্গে সম্পর্কিত৷ ফলে সব পোষাক সব অঞ্চলের মানুষের কাছে সমান জনপ্রিয়তা পায় না৷এবং জীবনের মত পোশাকও বিবর্তনশীল৷ ফ্যাশন বা পোশাকের সেই বিবর্তনশীলতার সঙ্গেই আছে বাঙালি নারী-মেয়েরা৷
মানুষ পোষাক পরে কেন? শরীরের কিছু অংশ ঢেকে রাখার জন্যে মানুষ পোশাক পরেন৷নিজেকে সুন্দর-আকর্ষণীয় রূপে উপস্থাপনের জন্যে মানুষ পোশাক পরে৷ সাধারণত মানুষ রূপচর্চাও করে সে কারণেই৷ শুধু নিজের ভালো লাগার থেকে পোষাক নির্বাচন করেন না, রূপচর্চা করেন না৷অন্যের চোখে তাকে সুন্দর বা আকর্ষণীয় দেখা যাবে,সেই বিবেচনাটা মূখ্য থাকে৷ 

Bangladesh Journalist Golam Mortoza

গোলাম মোর্তোজা, সাপ্তাহিক পত্রিকার সম্পাদক ও টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব

তবে পৃথিবীতে শিল্প-সাহিত্যের বর্ণনায় নারীর বহুবিধ উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়৷নারীর সৌন্দর্যের বর্ণনা পৃথিবীর সবচেয়ে বিখ্যাত শিল্পীর তুলিতে, লেখকের কলমে,কবির কবিতায় স্থান করে নিয়েছে৷ কোন পোশাক কে পরবেন,সেটা তার রুচির বিষয়৷ কাকে কোন পোশাকে ভালো বা আকর্ষণীয় বা আবেদনময়ী লাগে, সেটাও যিনি দেখছেন তার বিষয়৷ দেহের বর্ণনা দেওয়া যেমন কবির কাছে অপরাধ নয়৷ নারী বা পুরুষ তার পছন্দ অনুযায়ী যেমন পোশাক পরতে পারেন, কোন পোষাকে কাকে কেমন লাগে, শরীরের কোন অংশ বের করে বা ঢেকে রাখলে কেমন লাগে, তার বর্ণনা একজন শিল্পী-সাহিত্যিক-কবি দিবেন বা দিতে পারবেন,সেটাই স্বাভাবিক৷

রূপ, সৌন্দর্য বা ফ্যাশন নিয়ে ভিন্নমত থাকতেই পারে,যুক্তি দিয়ে লেখা যেতে পারে৷ তবে চরিত্রহনন বা বিষেদগার আধুনিক চিন্তা-চেতনা ও ফ্যাশনের সঙ্গে বেমানান৷ বাঙালি নারীর ফ্যাশন সচেতনতা সময়ের সঙ্গে মিল রেখে সামনের দিয়ে এগিয়ে যাওয়ার ধারাবাহিকতা অক্ষুন্ন থাকুক৷

প্রিয় পাঠক, আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন