বাঘের বাচ্চার বিশ্বজয় | খেলাধুলা | DW | 09.02.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

বাঘের বাচ্চার বিশ্বজয়

প্রথমবারের মত আইসিসির বিশ্ব আসরে শিরোপা জিতলো বাংলাদেশ৷ অনুর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপে ফাইনালে ভারতকে তিন উইকেটে হারালো জুনিয়র টাইগাররা৷ 

দিনের শুরুটা পেসারদের আগুনঝরা বলে, শেষটা অধিনায়কের লড়াকু ইনিংসে৷ মাঝে দুই দলের খেলোয়াড়দের চোখ রাঙারাঙি, বাংলাদেশি ওপেনারদের দাপট, ভারতীয় স্পিনারদের ঘূর্ণিতে হারতে বসার শঙ্কা, সেখান থেকে ম্যাচ বের করে আনা কিংবা বৃষ্টির আনাগোনা সবই যেন ছিল জমজমাট ফাইনালের জন্যই ছক কষা৷ 

টসে জিতে ফিল্ডিং নেন বাংলাদেশ অধিনায়ক আকবর আলি৷ শুরু থেকেই ভারতের দুই ওপেনারকে নাস্তানুবাদ করে তোলেন পেসার শরিফুল ও সাকিব৷ বাংলাদেশের বোলিং আক্রমণের সামনে দাড়াতে পেরেছিলেন কেবল যাশাসবি জয়সাওয়াল৷ তার নৈপুণ্যেই ভারত ১৭৮ রানের টার্গেট দিতে সক্ষম হয় বাংলাদেশকে৷ 

বাংলাদেশের দুই ব্যাটসম্যান শুরুটা করেছিলেন দুর্দান্ত৷ পারভেজ হোসেন ও তানজিদ হাসান প্রথম ওভারে ১৩ রান তুলে নেন৷ ৮ ওভার দুই বলে তাদের পার্টনারশিপে ভর করেই বাংলাদেশ পৌছে যায় বিনা উইকেটে অর্ধশত রানে৷ সেই ওভারেই আবারও উড়িয়ে মারতে গিয়ে রবি বিষ্ণুকে উইকেট দিয়ে আসেন তানজিদ হাসান৷ ২৫ বলে তিনি করেছেন ১৭৷ বিষ্ণুর আঘাত তখন কেবল শুরু৷ একে একে তার ঘূর্ণিতে খেই হারালেন সেমিফাইনালের সেঞ্চুরিয়ান মাহমুদুল, পারভেজ হোসেন, শাহাদাত হোসেন৷ ১৭ ওভারে বাংলাদেশের রান দাড়ায় চার উইকেটে ৬৬৷ অধিনায়ক আকবর আলীকে চার ওভার সঙ্গ দিয়ে সুশান্ত মিশ্রের অফ স্টাম্পের বেশ বাইরের বল খেলতে গিয়ে ১৮ বলে ৭ রান করে ফিরলেন শামীম৷ একই ওভারে পরপর দুইবার জীবন পেয়েও দৃষ্টিকটু শটে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন অভিষেক৷ ২৩ ওভারে বাংলাদেশের স্কোর তখন ১০২/৬৷ 

Südafrika Potchefstroom Cricket-Endspiel U19-Weltmeisterschaft Bangladesch vs Indien

দক্ষিণ আফ্রিকার পচেফস্ট্রুমে টাইগারদের সমর্থন যোগাতে এসেছিলেন বাংলাদেশিরা

আকবরের সঙ্গে ক্রিজে যোগ দেন ১৩ তম ওভারে ইনজুরিতে মাঠ ছাড়া ওপেনার পারভেজ হোসেন৷  এই দুইজন বাংলাদেশকে জয়ের পথে এগিয়ে নেন৷ ৭৯ বলে ৭ চারে ৪৭ করে আউট হন পারভেজ৷ অন্য প্রান্ত ঠিকই আগলে রাখেন অধিনায়ক আকবর আলী৷ রাকিবুলকে সাথে নিয়ে তিনি জয় ছিনিয়ে আনেন৷ মাঝে বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ হয়ে যায়৷ তখন বাংলাদেশের দরকার ছিল ৯ ওভারে ১৫ রান৷ ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে সেটি কমে দাড়ায় ৫ ওভারে ৭ রান৷ জয়ের মুহূর্তটি আসে রাকিবুলের ব্যাট থেকে৷ অধিনায়ক অপরাজিত থাকেন ৪৩ রানে৷

দক্ষিণ আফ্রিকার পচেফস্ট্রুমে টাইগারদের সমর্থন যোগাতে এসেছিলেন বাংলাদেশিরা৷ সারাক্ষণ গলা চড়িয়ে যুবাদের উৎসাহ দিয়েছেন তারা৷ জয়ের পরপরই মাঠ প্রদক্ষিণ করে সমর্থকদের সঙ্গে উৎসবের আনন্দটা তাই ভাগ করে নিয়েছেন আকবর আলীরা৷ পুরস্কার বিতরণীতে আনুষ্ঠানিকভাবে ধন্যবাদ জানাতেও ভুলেননি অধিনায়ক৷ বাংলাদেশের দর্শকদের তিনি অভিহিত করেছেন এই ম্যাচে দলের ১২ তম খেলোয়াড় হিসেবে৷ 

পুরস্কার বিতরণীতে

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
ভারত অনূর্ধ্ব-১৯ দল: ৪৭.২ ওভারে ১৭৭ (জয়সাওয়াল ৮৮, সাক্সেনা ২, ভার্মা ৩৮, গার্গ ৭, জুরেল ২২, বীর ০, আনকোলেকার ৩, বিষ্ণুই ২, সুশান্ত ৩, তিয়াগি ০, আকাশ ১*; শরিফুল ১০-১-৩১-২, তানজিম ৮.২-২-২৮-২, অভিষেক ৯-০-৪০-৩, শামীম ৬-০-৩৬-০, রকিবুল ১০-১-২৯-১, হৃদয় ৪-০-১২-০)
 
বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল: (লক্ষ্য ৪৬ ওভারে ১৭০) ৪২.১ ওভারে ১৭০/৭ (পারভেজ ৪৭, তানজিদ ১৭, মাহমুদুল ৮, হৃদয় ০, শাহাদাত ১, আকবর ৪৩*, শামীম ৭, অভিষেক ৫, রকিবুল ৯*; কার্তিক ১০-২-৩৩-০, সুশান্ত ৭-০-২৫-২, আকাশ ৮-১-৩৩-০, বিষ্ণুই ১০-৩-৩০-৪, আনকোলেকার ৪.১-০-২২-০, জয়সওয়াল ৩-০-১৫-১)

এফএস (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম, ক্রিকইনফো)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন