বাইডেন-পুটিন ঐতিহাসিক বৈঠক | বিশ্ব | DW | 16.06.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সুইজারল্যান্ড

বাইডেন-পুটিন ঐতিহাসিক বৈঠক

রাশিয়া এবং অ্যামেরিকার বৈঠকে চীনের প্রসঙ্গ উঠতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

বুধবার ঐতিহাসিক বৈঠকে বসছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুটিন। জেনেভায় দুই রাষ্ট্রপ্রধানের বৈঠক হওয়ার কথা। আলোচনায় চীনের প্রসঙ্গও উঠে আসতে পারে বলে আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের ধারণা।

গত কয়েকবছরে রাশিয়ার সঙ্গে অ্যামেরিকার সম্পর্ক তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। একাধিক বিষয়ে রাশিয়ার চরম বিরোধিতা করেছে অ্যামেরিকা। অ্যামেরিকার নির্বাচনে রাশিয়ার গোয়েন্দাদের নাক গলানো নিয়েও তীব্র বিতর্ক হয়েছে। সম্প্রতি ন্যাটোর বৈঠকে রাশিয়ার চরম বিরোধিতা করেছে অ্যামেরিকা। এত কিছুর পরেও দুই দেশের রাষ্ট্রপ্রধান দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে বসতে রাজি হয়েছেন।

বস্তুত, জো বাইডেন পুটিনের সঙ্গে আলোচনায় বসার আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। তবে দুই রাষ্ট্রপ্রধানই কোনো নিরপেক্ষ অঞ্চলে বৈঠক করতে চেয়েছিলেন। সে কারণেই সুইজারল্যান্ডে বৈঠকের স্থান ঠিক হয়।

বৈঠকে একাধিক বিষয় নিয়ে আলোচনা হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে তার মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হতে পারে চীন। চীনের বিরুদ্ধে কী ভাবে জোট গঠন করা যায়, তা নিয়ে বিভিন্ন পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করছেন বাইডেন। সম্প্রতি জি সেভএন এবং ন্যাটো বৈঠকেও বিষয়টি সামনে উঠে এসেছে। ইইউ-অ্যামেরিকা বৈঠকেও বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হতে পারে। রাশিয়ার সঙ্গেও এ বিষয়ে কথা বলতে আগ্রহী অ্যামেরিকা। তবে বিশেষদজ্ঞদের ধারণা, সরাসরি চীনের নাম উল্লেখ করে বৈঠকে আলোচনা হবে না। তবে বিষয়টি ঘুরিয়ে আলোচনায় আনা হবে।

এছাড়াও ইউক্রেনের সমস্যা, নিরস্ত্রীকরণ চুক্তি, সিরিয়া, ইরানের পরমাণু পরিকল্পনা ইত্যাদি বিষয়গুলিও আলোচনায় উঠে আসতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

বিদেশ সফরে আসার দিনকয়েক আগে চীনের সঙ্গে ফের সংঘাতের রাস্তা নিয়েছে বাইডেন প্রশাসন। তাইওয়ানে লগ্নির কথা ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়াও একাধিক বিষয়ে চীনের সমালোচনা করা হয়েছে। রাশিয়ার সঙ্গে অ্যামেরিকা বন্ধুত্ব করতে চায় না। পুটিন বাইডেনের বন্ধু হয়তো কখনোই হয়ে উঠতে পারবেন না। কিন্তু চীন-অ্যামেরিকা সংঘাতে পুটিন চীনের পক্ষ নেবেন না, এটুকুই স্পষ্ট করতে চায় অ্যামেরিকা। বৈঠকে সে বিষয়েই বাইডেন সব চেয়ে গুরুত্ব দেবেন বলে বিশেষজ্ঞদের ধারণা।

এসজি/জিএইচ (রয়টার্স, এপি)