বাইডেনের মোমের মূর্তি তৈরি করছেন ক্র্যাব | বিশ্ব | DW | 22.04.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

বাইডেনের মোমের মূর্তি তৈরি করছেন ক্র্যাব

জো বাইডেন সবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট হলেও তাকে ‘অমর' করে রাখার উদ্যোগ শুরু হয়ে গেছে৷ অর্থাৎ তার অবিকল মোমের পুতুল এবার অনেক ওয়্যাক্স মিউজিয়ামে স্থান পাচ্ছে৷ এক ব্রিটিশ ভাস্কর সেই কাজ নিয়ে ব্যস্ত৷

 

ইংল্যান্ডের দক্ষিণে সারে হিল্স অঞ্চলে ভাস্কর জেট্রো ক্র্যাবের স্টুডিওতে সাজসাজ রব৷ রোজ রোজ এমন বিখ্যাত মানুষের তো দেখা মেলে না! মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সদ্য নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের মোমের মূর্তি তৈরির প্রস্তুতি চলছে৷ সঙ্গে রয়েছেন প্রাক্তন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন চার্চিল৷ সেই মূর্তিরও কাজ চলছে৷ ক্র্যাব বলেন, ‘‘প্রথম পর্যায়ে তার মাথার আকার ভালোভাবে পরীক্ষা এবং কিছু আকৃতি রপ্ত করতে অনুশীলন করতে হয়৷ অর্থাৎ এই পর্যায়ে কোনো খুঁটিনাটী কাজ হয় না৷''

অ্যামেরিকার সাউথ ডাকোটা রাজ্যের জাতীয় প্রেসিডেন্সিয়াল ওয়্যাক্স মিউজিয়ামের অর্ডার অনুযায়ী এই মূর্তি তৈরি করা হচ্ছে৷ জেট্রো ক্র্যাব চার সপ্তাহ ধরে মাটির তৈরি টেমপ্লেট বা খসড়া নিয়ে কাজ করেন৷ মোমের চূড়ান্ত মূর্তি তৈরি করতে তিন থেকে চার মাস সময় লাগে৷

ভাস্কর্য বিষয়ে উচ্চশিক্ষার পর ব্রিটিশ এই শিল্পী মাদাম তুসোর মিউজিয়ামে কাজ শুরু করেন৷ লন্ডনের এই বিখ্যাত সংগ্রহের জন্য তিনি পল ম্যাককার্টনি, ফ্যান বিংবিং অথবা লুডভিশ ফান বেটোফেনের মতো খ্যাতিমান ব্যক্তির প্রায় হুবহু নকল ভাস্কর্য সৃষ্টি করেছিলেন৷ জেট্রো ক্র্যাব বলেন, ‘‘যাদের ভাস্কর্য তৈরি করি, তারা প্রত্যেকেরই একেবারে নিজস্ব ব্যক্তিত্ব রয়েছে৷ তাঁদের চেহারার পেছনের মূল কারণ আমার কাছে বিশেষ আগ্রহের বিষয়৷ অনেকটা ধ্যানের অভিজ্ঞতার মতো, ভাস্কর্যের আকার-আকৃতির মধ্যে ডুবে যেতে হয়৷ ঠিক কার মূর্তি তৈরি করছি, তখন তা মনেই থাকে না৷''

ভিডিও দেখুন 04:23

বাইডেনের মোমের মূর্তি

জেট্রো ক্র্যাব মূলত বিষয়বস্তুর ছবির ভিত্তিতেই কাজ করেন৷ সেই ব্যক্তিকে মডেল হিসেবে পাওয়া বিরল ঘটনা৷ তিনি এমনিতেই আকৃতির প্রতি মনোযোগ দেন৷ তাঁর মতে, ‘‘কোনো ব্যক্তি সম্পর্কে আমার নিজস্ব আগ্রহের উপর তার সম্পর্কে আমার গবেষণার মাত্রা নির্ভর করে৷ তবে আমার মতে, তার সম্পর্কে সবকিছু জানার প্রয়োজন নেই৷''

মাটি দিয়ে টেমপ্লেট তৈরির কাজ শেষ হলে তার টিম পরের পর্যায়ের কাজ শুরু করে৷ প্রথমে সিলিকনের ছাঁচ তৈরি হয়৷ ফাইবার গ্লাসের সাহায্যে সেটি মজবুত করা হয়৷ মাথার জন্য বিশেষভাবে তৈরি মোমের মিশ্রণ সিলিকনের ছাঁচে ঢালা হয়৷ যত্ন করে প্রত্যেকটি চুল হাতে করে বসাতে হয়৷ বেশ কয়েকটি স্তরে তেল রং দিয়ে ত্বক যতটা সম্ভব আসল করে তোলার চেষ্টা হয়৷ বিখ্যাত মার্কিন টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব ওপ্রা উইনফ্রির ক্ষেত্রেও তেমনটা করা হয়েছে৷

আট বছর পর জেট্রো ক্র্যাব মাদাম তুসো মিউজিয়ামের কাজ ছেড়ে ২০১৩ সালে নিজস্ব উদ্যোগ শুরু করেন৷ ব্যঙ্গধর্মী টেলিভিশন অনুষ্ঠান ‘স্পিটিং ইমেজ'-এর জন্য তিনি গত বছর এমানুয়েল মাক্রোঁ, ইলন মাস্ক এবং ব্রিটিশ রাজপরিবারের একাধিক সদস্যের মানানসই মূর্তি তৈরি করেন৷ ক্র্যাব মনে করেন, ‘‘বাস্তবধর্মী মাথা এবং ব্যাঙ্গাত্মক ভাস্কর্য তৈরির প্রক্রিয়ার মধ্যে যথেষ্ট মিল রয়েছে৷ শুধু মাত্রার ক্ষেত্রে পার্থক্য থাকে৷ চোখে পড়ার মতো বৈশিষ্ট্যগুলি কিছুটা অতিরঞ্জিত করে দেখানো হয়৷ ক্যারিকেচার স্কেচের ভিত্তিতে আমরা কাজ করি৷ তবে নিজস্ব স্টাইল যোগ করার সৃজনশীল স্বাধীনতাও ছিল৷ ব্যঙ্গাত্মক ভাস্কর্যের ক্ষেত্রে আমি এই বিষয়টি বেশ উপভোগ করি৷''

জেট্রো ক্র্যাবের কাছে জো বাইডেনের বৈশিষ্ট্য হলো তার উজ্জ্বল অথচ কিছুটা বাঁকানো হাসি৷ ফলে মুখও সামান্য বেঁকে যায়৷ কিন্তু ক্যারিকেচারের জন্য এই বৈশিষ্ট্য কি যথেষ্ট? হয়তো কখনো তিনি বাইডেনের ক্যারিকেচার করবেন৷ তার মাথা নিয়ে কাজ করতে গিয়ে নানা সম্ভাবনা চোখে পড়ছে৷

ডিনা ওসিনস্কি/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক