বাংলার বিকৃত উচ্চারণের জন্য গণমাধ্যমের একাংশ দায়ী | বিশ্ব | DW | 09.01.2012
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

বাংলার বিকৃত উচ্চারণের জন্য গণমাধ্যমের একাংশ দায়ী

বাংলা একাডেমীর মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান বলেছেন যারা গণমাধ্যমে বিকৃত উচ্চারণে বাংলা বলছেন তারা বাংলা ভাষার শত্রু৷ এই প্রবণতা বন্ধের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা বাংলা ভাষাকে ধ্বংস হতে দিতে পারিনা৷

DW Dhaka correspondent is taking interview of Samsuzzaman Khan, Director General of Bangla Academy, Dhaka, Bangladesh.

বাংলা একাডেমীর মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান’এর সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন হারুন উর রশীদ স্বপন

বাংলার সঙ্গে ইংরেজি মিশিয়ে আবার বাংলা ধ্বনি পরিবর্তন করে বাংলা উচ্চারণের প্রবণতা দিন দিন বাড়ছে৷ আর এজন্য বাংলা একাডেমীর মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান দায়ী করছেন অধিকাংশ এফএম রেডিও এবং কিছু টেলিভিশন চ্যানেলকে৷ ডয়চে ভেলেকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন সস্তা জনপ্রিয়তা পেতে ইচ্ছাকৃতভাবে তারা একাজ করছেন তারা৷ ফলে বিকৃত উচ্চারণের পাশাপাশি বাংলা বলার সহজাত ঢংয়েও পরির্তন হচ্ছে৷ যা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায়না৷ তিনি বলেন এটাকে জাতীয় অপরাধ হিসেবে দেখতে হবে৷

Samsuzzaman Khan, Director General of Bangla Academy, Dhaka, Bangladesh

শামসুজ্জামান খান

তিনি বলেন, এই বিকৃতি বন্ধ না করলে এর পরিণতি হবে ভয়াবহ৷ ফিলিপাইনে এই প্রবণতা রোধ করতে না পারায় তাদের এখন নিজস্ব ভাষা বলতে কিছু নেই৷ বাংলার মত একটি সমৃদ্ধ ভাষার এরকম পরিণতি হোক তা আমরা কেউই চাইনা৷ তিনি বলেন যারা এই বিকৃতি ঘটাচ্ছেন তারা বাংলা ভাষার শত্রু৷

শামসুজ্জামান খান বলেন বাংলা ভাষাকে সমৃদ্ধ করতে বাংলা একাডেমী পাঁচ খন্ডে বাংলা ব্যাকরণ প্রকাশ করছে৷ বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস এবং বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস প্রকাশেরও কাজ চলছে৷ তার মতে, বাংলা একাডেমীকে শুধু বাঙালির মননশীলতার প্রতীক নয়, বাংলা ভাষা, সাহিত্য এবং সংস্কৃতির দিকনির্দেশক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলতে হবে৷

প্রতিবেদন: হারুন উর রশীদ স্বপন, ডয়চে ভেলে, ঢাকা

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন