বাংলাদেশ-ভারতের পাঁচ ক্রিকেটারের শাস্তি | বিশ্ব | DW | 11.02.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

খেলাধুলা

বাংলাদেশ-ভারতের পাঁচ ক্রিকেটারের শাস্তি

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী বাংলাদেশ দলের তিন ক্রিকেটারকে বড় শাস্তি দিয়েছে আইসিসি৷ শাস্তি পেয়েছেন ভারতের দুই খেলোয়াড়ও৷ ফাইনাল শেষে ধাক্কাধাক্কির ঘটনায় এই শাস্তি পেলেন তাঁরা৷

শাস্তি হিসেবে বাংলাদেশের মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান হৃদয় ১০ সাসপেনশন পয়েন্ট পেয়েছেন, যা ছয়টি ডিমেরিট পয়েন্টের সমান৷ অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার শামীম পেয়েছেন আট সাসপেনশন পয়েন্ট৷ এটিও ছয় ডিমেরিট পয়েন্টের সমান৷ আর বাঁহাতি স্পিনার রকিবুল পেয়েছেন চার সাসপেনশন পয়েন্ট, যা পাঁচটি ডিমেরিট পয়েন্টের সমান৷

এক সাসপেনশন পয়েন্টের অর্থ হচ্ছে, শাস্তি পাওয়া খেলোয়াড়টি একটি ওয়ানডে বা টি-টোয়েন্ট বা অনূর্ধ্ব-১৯ দলের একটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে পারবেন না৷ আন্তর্জাতিক দলের বিপক্ষে ‘এ' দলের ম্যাচও এর আওতায় পড়বে৷

ভারতীয় পেসার আকাশ পেয়েছেন আট সাসপেনশন পয়েন্ট, যা ছয়টি ডিমেরিট পয়েন্টের সমান৷ আর লেগ স্পিনার বিষ্ণয় পেয়েছেন পাঁচ সাসপেনশন পয়েন্ট, যা পাঁচ ডিমেরিট পয়েন্টের সমান৷ এছাড়াও বাংলাদেশের অলরাউন্ডার অভিষেক দাস আউট হওয়ার পর তাঁর খুশি উদযাপনও আইসিসির ‘কোড অফ কন্ডাক্ট' অনুযায়ী হয়নি৷ ফলে তার শাস্তি পেয়েছেন বিষ্ণয়৷ এজন্য তিনি পেয়েছেন আরও দুটি ডিমেরিট পয়েন্ট৷ অর্থাৎ সব মিলিয়ে তার ডিমেরিট পয়েন্ট হলো সাত৷

পাঁচজনই দোষ স্বীকার করে শাস্তি মেনে নিয়েছেন৷ আগামী দুই বছর তাদের নামের পাশে ডিমেরিট পয়েন্টগুলো থাকবে৷ আসন্ন আন্তর্জাতিক ম্যাচগুলো থেকেই শাস্তি কার্যকর হবে৷

দক্ষিণ আফ্রিকার পচেফস্ট্রুমে রবিবারের ফাইনালে ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে ভারতকে তিন উইকেটে হারিয়ে প্রথমবারের মতো অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ শিরোপা জিতে নেয় জুনিয়র টাইগাররা৷ ম্যাচ শেষে ধাক্কাধাক্কিতে জড়িয়ে পড়েছিলেন দুই দলের কয়েকজন ক্রিকেটার৷

জেডএইচ/কেএম (এএফপি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন