বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি: ফিলিপাইন্সের ব্যাংক কর্মকর্তার সাজা | বিশ্ব | DW | 10.01.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

রিজার্ভ চুরি

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি: ফিলিপাইন্সের ব্যাংক কর্মকর্তার সাজা

বাংলাদেশ ব্যাংকে সাইবার চুরির অপরাধে ফিলিপাইন্সের সাবেক ব্যাংক ব্যবস্থাপক মাইয়া দেগুইতোকে ৩২ থেকে ৫৬ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে সেদেশের একটি আদালত৷ পাশাপাশি ১০ কোটি ৯০ লাখ মার্কিন ডলার জরিমানা করা হয়েছে৷

বিশ্বের সবচেয়ে বড় সাইবার চুরির এই ঘটনায় এই প্রথম কাউকে সাজা দেয়া হলো৷ তিন বছর আগে বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ৮ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার অর্থ পাচার করা হয়েছিল৷

মাইয়া দেগুইতো ম্যানিলার রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং কর্পোরেশন আরসিবিসি'র ব্যাংক ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত ছিলেন৷ তার বিরুদ্ধে ৮টি অভিযোগ আনা হয়েছিল এবং প্রত্যেকটি প্রমাণিত হওয়ায় প্রতিটিতে তাকে ৪ থেকে ৭ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে৷

২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বাংলাদেশ ব্যাংকের সুইফট পেমেন্ট সিস্টেমে ঢুকে সাইবার অপরাধীরা নিউ ইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকের বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার চুরি করে৷ এরপর সেই অর্থ আরসিবিসি'র ম্যানিলা শাখায় ট্রান্সফার করা হয়৷ সেই সময় ঐ শাখার প্রধান ছিলেন মাইয়া৷ এরপর সেখান থেকে ফিলিপাইন্সের বিভিন্ন ক্যাসিনোতে এই অর্থ লোপাট হয়৷

২৬ পৃষ্ঠার রায়ে আদালত জানিয়েছে, ‘‘মাইয়া আদালতকে বলেছেন এই অর্থ ট্রান্সফারের ব্যাপারে তিনি কিছুই জানতেন না, যেটা একেবারেই মিথ্যা কথা৷’’ তবে আরসিবিসি'র এক মুখপাত্র ব্যাংকের বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ‘‘ব্যাংকের দায়িত্বপূর্ণ পদে থাকায় মাইয়াকে এর দায়ভার নিতে হচ্ছে, তিনি আসলে পরিস্থিতির শিকার৷’’

মাইয়ার একজন আইনজীবী সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, ‘‘রায়ের আগেই তার মক্কেলের জন্য আগাম জামিনের আবেদন করা হয়েছিল৷ এ কারণে তিনি জামিনে মুক্ত আছেন৷’’ মাইয়া সুপ্রিম কোর্টে আপিল করবেন বলেও জানান তিনি৷

সংবাদ চ্যানেল এএনসিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মাইয়া বলেন, ‘‘এই অপরাধের দায় অনেক মানুষের, এটা কেবল একজন ব্যাংক কর্মকর্তার দায় নয়৷ কারণ, এতে তার কিছুই করার থাকে না৷’’

২০১৬ সালের আগস্টে এই ঘটনার কারণে আরসিবিসি-কে রেকর্ড ১ কোটি ৯২ লাখ মার্কিন ডলার জরিমানা করে ফিলিপাইন্সের কেন্দ্রীয় ব্যাংক৷ আরসিবিসি'র সাবেক একজন ট্রেজারার এবং আরো ৫ কর্মীর বিরুদ্ধে সেই সময় অর্থ পাচারের অভিযোগ আনা হয়৷

ফিলিপাইন্সে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আসাদ আলম সিয়াম রয়টার্সকে বলেন, ‘‘আমরা আশা করছি খুব দ্রুত এই সমস্যার সমাধান হবে৷’’

এই বিপুল পরিমাণ অর্থের মধ্যে মাত্র দেড় কোটি মার্কিন ডলার এ পর্যন্ত উদ্ধার হয়েছে৷ বাকি অর্থ উদ্ধারের বিষয়ে আলোচনা করতে

বাংলাদেশ ব্যাংকের শীর্ষ কর্মকর্তা, অর্থ ও আইন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা চলতি সপ্তাহে নিউ ইয়র্ক সফর করবেন৷

এপিবি/এসিবি (এপি, এএফি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন