বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া টেস্টের তৃতীয় দিন: তামিমের অর্ধশতক | বিশ্ব | DW | 28.08.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ক্রিকেট

বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া টেস্টের তৃতীয় দিন: তামিমের অর্ধশতক

বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টে তৃতীয় দিনে ২২১ রানে অল আউট হয়ে গেছে টাইগাররা৷ দ্বিতীয় ইনিংসে ২৬৪ রানের লিড বাংলাদেশের৷ অন্যদিকে, দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে দুই উইকেট হারিয়েছে অস্ট্রেলিয়া৷

তৃতীয় দিনের শুরুতে ৬১ রানে তাইজুলের উইকেট হারায় বাংলাদেশ৷ তিনি মাত্র ৪ রান করে আউট হন৷ এরপর ইমরুল কায়েসও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি৷ প্রথম ইনিংসে শূন্য রানে ফেরা ইমরুল কায়েস দ্বিতীয় ইনিংসে করেছেন মাত্র ২ রান৷ এরপর তামিম ইকবালের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন মুশফিকুর রহিম৷  

সোমবার বাংলাদেশ মাঠে নামে যতটা সম্ভব বড় লিড নেয়ার লক্ষ্য নিয়ে৷ যত দ্রুত সম্ভব অস্ট্রেলিয়ার শেষ ৭ উইকেট তুলে নেয়াই ছিল টাইগারদের লক্ষ্য৷ দ্বিতীয় দিনের শুরুতেই সবচেয়ে বড় বাধা উপড়ে ফেলেন মেহেদী হাসান মিরাজ৷ বোল্ড করে ফিরিয়ে দেন আইসিসি টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ ব্যাটসম্যান অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথকে৷ এরপর অস্ট্রেলিয়াকে এগিয়ে নেন ম্যাট রেনশ ও পিটার হ্যান্ডসকম্ব৷ 

বিপজ্জনক হয়ে ওঠা এই জুটি ভাঙার সুযোগ করে দিয়েছিলেন মুস্তাফিজুর রহমান৷ তাঁর বলে শর্ট লেগে ক্যাচ দিয়েছিলেন রেনশ৷ কিন্তু বল ঊরুতে লাগলেও ক্যাচ ধরতে পারেননি ইমরুল কায়েস৷ তখন ৩৮ রানে ব্যাট করছিলেন রেনশ৷

এরপর তাইজুলের বলেও সুযোগ এসেছিল রেনশকে আউট করার৷ সেবারও ব্যর্থ হন ইমরুল কায়েস৷ তবে তাইজুলের বলেই ৩৩ রানে হ্যান্ডসকম্ব এলবিডব্লিউ হওয়ায় ভেঙ্গে যায় পঞ্চম উইকেট জুটি৷ অস্ট্রেলিয়ার স্কোর তখন ১০২/৫৷ 

এরপর বোলিংয়ে ফিরেই রেনশকে আউট করেন সাকিব আল হাসান, ক্যাচ ধরেন সৌম্য সরকার৷ ৪৫ রান করে রেনশ ফেরার সময় অস্ট্রেলিয়ার স্কোর ছিল ১১৭/৬৷ প্রথম সেশন শেষে অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ ছিল ৬ উইকেটে ১২৩ রান৷ মধ্যাহ্ন বিরতির পর প্রথম ওভারেই আঘাত হানেন মিরাজ৷ এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন ম্যাথু ওয়েডকে৷ তারপর ২৩ রান করা ম্যাক্সওয়েলকে ফেরান সাকিব৷ ৮ উইকেটে ১৪৪ রান হারানোর পর আবার শুরু হয় ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই৷ দ্বিতীয় সেশনের পানি বিরতির আগে শেষ বলে প্যাট কামিন্সকে ফেরানোর সুবর্ণ সুযোগ হাতছাড়া করেছে বাংলাদেশ৷

Cricket Bangladesch - Australien

প্রথম সেশন শেষে অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ ছিল ৬ উইকেটে ১২৩ রান

সাকিব আল হাসানের বলে আকাশে উঠে যাওয়া সহজ ক্যাচ হাতছাড়া করেছেন শফিউল ইসলাম৷ চা বিরতি পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ ছিল ৮ উইকেটে ১৯৩ রান৷ তৃতীয় সেশনের দ্বিতীয় ওভারে সাকিব আল হাসানের বলে বোল্ড হয়ে যান প্যাট কামিন্স (১৯৩/৯)৷ এরপর শেষ আঘাতটিও সাকিবের৷ তাঁর বলে হ্যাজলউডের ক্যাচটি ধরেন ইমরুল কায়েস৷ ২১৭ রানে গুটিয়ে যায় অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংস৷

তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুটা করেছিলেন সতর্কভাবে৷ কিন্তু ১৫ রান করে সৌম্যর বিদায়ের ফলে ৪৩ রানে ভাঙে বাংলাদেশের উদ্বোধনী জুটি৷ অহেতুক ঝুঁকি নিয়ে আউট হয়েছেন সৌম্য সরকার৷ দিনের আর একটি ওভার বাকি ছিল তখন৷ অ্যাশটন অ্যাগারের বলে সৌম্য ছক্কা হাঁকাতে না গেলে হয়ত কোনো উইকেট না হারিয়েই দ্বিতীয় দিন শেষ করত বাংলাদেশ৷ প্রথম উইকেট পতনের পর ‘নাইট ওয়াচম্যান’ হিসেবে নেমেছেন তাইজুল ইসলাম৷মঙ্গলবার হাতে ৯ উইকেট আর ৮৮ রানের লিড নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শুরু করবে বাংলাদেশ৷ 

এই টেস্টে ইতিমধ্যে অসাধারণ এক রেকর্ডে নিজের নাম লিখিয়েছেন সাকিব আল হাসান৷ ৯টি টেস্ট খেলুড়ে দেশের বিপক্ষেই ইনিংসে ৫ উইকেট পেয়েছেন তিনি৷ এ ধরনের কৃতিত্ব আর আছে কেবল মুত্তিয়া মুরালিধরন, ডেল স্টেইন ও রঙ্গনা হেরাথের৷ গত জুনে টেস্ট মর্যাদা পাওয়া আয়ারল্যান্ড ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে অবশ্য এখনো টেস্ট খেলারই সুযোগ পাননি বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার৷সেই সুযোগ পেলে নিশ্চয়ই সব টেস্ট খেলুড়ে দেশের বিপক্ষেই এই কৃতিত্ব অর্জনের সুযোগ ছাড়বেন না সাকিব৷

রবিবার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ৮৪ রান করেন সাকিব আল হাসান, ৭১ রান করেন তামিম ইকবাল আর নাসিরের ব্যাট থেকে আসে ২৩ রান৷ তাঁদের স্কোরে ভর করে বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে ২৬০ রান সংগ্রহ করে৷ অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে ৩টি করে উইকেট নিয়েছেন কামিন্স, লায়ন এবং অ্যাগার৷ প্রথম দিন শেষে অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ ছিল ৩ উইকেটে ১৮ রান৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন