বাংলাদেশে সুন্দরী প্রতিযোগিতা বনাম ট্যালেন্ট হান্ট | আলাপ | DW | 23.10.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

বাংলাদেশে সুন্দরী প্রতিযোগিতা বনাম ট্যালেন্ট হান্ট

বাংলাদেশে এবার সুন্দরী প্রতিযোগিতা নিয়ে নানা বিতর্ক হয়েছে৷ ‘বিয়ের কথা গোপন করায়’ খেতাব হারিয়েছেন এভ্রিল৷ আর নতুন করে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ হয়েছেন জেসিয়া ইসলাম, পেয়েছেন চীনে মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণের সুযোগ৷

কেউ হয়তো মনে করতে পারেন, এবারই বাংলাদেশে মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা আয়োজন করা হয়েছে৷ কিন্তু তা ঠিক নয়৷  এবার নানা বিতর্কের কারণে এই প্রতিযোগিতা সবচেয়ে বেশি আলোচনায় এসেছে৷ আর প্রথম বিতর্ক শুরু হয় বিচারকদের পক্ষপাতিত্ব নিয়ে৷ কয়েকজন বিচারক আবার দাবি করেন, তাঁরা যাকে সেরা সুন্দরী হিসেবে মনোনয়ন দিয়েছেন, তাঁর নাম ঘোষণা করা হয়নি৷ কিন্তু সর্বশেষ বিতর্ক ছিল জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলের মুকুট জেতার পর তাঁর ‘বিয়ের ঘটনা ফাঁস' হওয়া নিয়ে৷ আর সেই বিতর্কে তাঁর সেরা সুন্দরীর মুকুটটিই শেষ পর্যন্ত বাদ হয়ে যায়৷ আয়োজক কর্তৃপক্ষ নতুন করে জেসিয়া ইসলামকে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ'-এর স্বীকৃতি দেন৷

এমনকি ৩০ সেপ্টেম্বর প্রথম দিন মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ-এর নাম ঘোষণায়ও ভুল করা হয়েছিল৷ প্রতিযোগিতার শীর্ষ ১০ প্রতিযোগীর মধ্যে জান্নাতুল সুমাইয়া হিমিকে বিজয়ী ঘোষণা করার কিছুক্ষণের মধ্যেই আয়োজকরা জানান, তিনি হয়েছেন দ্বিতীয় রানারআপ৷ পরে জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়৷ পরে এভ্রিলও টিকতে পারেননি৷ 

অডিও শুনুন 02:18
এখন লাইভ
02:18 মিনিট

‘‘আমরা প্রতিযোগীর মেধা এবং যোগ্যতাকে বিবেচনায় নিই’’

১৯৯৪ সালে বাংলাদেশে প্রথম মিস বাংলাদেশ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়৷ ওই প্রতিযোগিতায় যিনি মিস বাংলাদেশ হন, তিনি  মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়ার সুযোগ পান৷ কিন্তু ২০০৭ সালের পর এই প্রতিযোগিতা আর হয়নি৷ আর দীর্ঘ বিরতির পর এবার হলো মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ প্রতিাযোগিতা৷

১৯৯৪ সালে মিস বাংলাদেশ হয়েছিলেন অনিকা তাহের৷ তারপর  ২০০৭ সাল পর্যন্ত মিস বাংলাদেশ হিসেবে যাঁদের নাম জানা যায়, তাঁদের মধ্যে রয়েছেন: ইয়াসমিন বিলকিস সাথী,রেহনুমা দিলরুবা চিত্রা, শাইলা সিমি,তানিয়া রহমান তিন্নি, সোনিয়া গাজী, তাবাস্সুম ফেরদৌস শাওন, জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়া৷ প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, ২০০৭ সাল পর্যন্ত মিস বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা টানা হয়নি৷ মাঝখানে কয়েক বছর বন্ধ ছিল৷ আর ২০০৭-এর পর এবার আবার অনুষ্ঠিত হলো মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ৷ তবে এবারের প্রতিযোগিতার মতো আগেরগুলোর সঙ্গে মিস ওয়ার্ল্ড প্রযিাগিতার ফ্র্যাঞ্চাইজি ছিল না বলে একটি সূত্র দাবি করেছে৷

যতদূর জানা যায়,  ৯০-এর দশকে বাংলাদেশে সুন্দরী প্রতিযোগিতা বা  প্রথম আয়োজন করেন অধুনা বিলুপ্ত ‘সাপ্তাহিক বিচিত্রা'র প্রয়াত সম্পাদক শাহাদত চৌধুরী৷ ওই একই গ্রুপের আরেকটি বিনোদন পত্রিকা ‘আনন্দ বিচিত্রা'র ব্যানারে তখন আয়োজন করা হয়েছিল ‘আনন্দ বিচিত্রা ফটো সুন্দরী'৷ এরপর ১৯৯৫ সালে ওই প্রতিযোগিতার নাম হয় ‘লাক্স-আনন্দ বিচিত্রা ফটো সুন্দরী'৷ ওই প্রতিযোগিতায় শুধু মাত্র ছবির ওপর ভিত্তি করে ফটোসুন্দরী নির্বাচন করা হতো৷ র‌্যাম্পে হাঁটা বা প্রশ্নের জবাব দেয়ার কোনো বিষয় ছিল না৷ চিত্র নায়িকা মৌসুমী ওই প্রতিযোগিতা থেকেই গ্ল্যামার জগতে উঠে আসেন৷

অডিও শুনুন 05:54
এখন লাইভ
05:54 মিনিট

‘‘আমার ক্যারিয়ার গড়তে তাঁরা সহায়তা করেছেন’’

শাহাদত চৌধুরী মারা যান ২০০৫  সালে৷ তাঁর সঙ্গে কাজ করেছেন সাংবাদিক এবং ফেমিনিস্ট রাইটার জব্বার হোসেন৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘শাহাদত চৌধুরী ফটো সুন্দরী প্রতিযোগিতা শুরু করেছিলেন ১৯৮৭ সালে৷ এটা চলে ২০০৫ সাল পর্যন্ত৷ আর ওই বছরই তিনি প্রয়াত হন৷ এটার বৈশিষ্ট্য ছিল যে, ছবি আহ্বান করা হতো আর এই ছবির ওপর ভিত্তি করেই বিচার করা হতো৷ তবে নির্বাচনের পর যখন শো হতো, তখন প্রতিযোগীরা সামনে আসতেন৷''

তারপর আলোচনায় আসে লাক্স-চ্যানেল আই সুপার স্টার- প্রতিযোগিতা৷ আর এই প্রতিযোগিতার সেরারা ‘লাক্স সুন্দরী' নামে পরিচিতি পেতে থাকেন৷ ২০০৫ সালে এই প্রতিযোগিতা শুরু হয়৷ আর প্রথম লাক্স সুন্দরী হন শানারৈ দেবী শানু৷ তারপর যাঁরা লাক্স সুন্দরী হয়েছেন, তাঁদের মধ্যে আছেন: জাকিয়া বারী মম, বিদ্যা সিনহা সাহা মীম, ইসরাত জাহান চৈতি, মেহজাবিন চৌধুরী, মাহবুবা ইসলাম রাখি, সামিয়া সাঈদ, নাদিয়া আফরিন৷ এই প্রতিযোগিতাটি আর্থিক পুরস্কার, বিজ্ঞাপনচিত্রে অভিনয়ের সুযোগসহ নানা কারণে আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়৷

লাক্স সুন্দরী বলা হলেও এই প্রতিযোগিতায় সুপারস্টার পান ‘বাংলাদেশ ফেস অফ লাক্স' খেতাব৷ সঙ্গে একটি ব্র্যান্ড নিউ গড়ি, ১০ লাখ টাকা এবং অভিনয়ের সুযোগ৷ প্রথম রানার-আপ পান ৫ লাখ টাকা এবং দ্বিতীয় রানার-আপ পান ৩ লাখ টাকা৷ চ্যানেল আই এবং ইউনিলিভার বাংলাদেশ লিমিটেডের পক্ষ থেকে এই পুরস্কার দেয়া হয়৷

ভিট-চ্যানেল আই টপ মডেল, এটিএন-এর ‘সুপার হিরো সুপার হিরোইন' আর মিস ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ-এর মধ্যে সুপার হিরো সুপার হিরোইন প্রথম বছরের পরই বন্ধ হয়ে যায়৷ একুশে টিভি'র ‘মিস ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ' প্রাথমিক কাজ শুরু করলেও পরে আর আলোর মুখ দেখেনি৷

এছাড়া এ বছর থেকে বিউটি কনটেস্ট ‘কুইন অব সাউথ এশিয়া'র সঙ্গে যুক্ত হয় বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এটিএন বাংলা৷ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রবাসীরা মিস বাংলাদেশ প্রতিযোগিতার আয়েজন করেন অনিয়মিতভাবে৷ সেসব প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ থেকে গিয়ে অংশ নেন অনেকে৷ এছাড়া বাংলাদেশি নারীর বিদেশি খেতাব অর্জনেরও রেকর্ড আছে৷

২০১৪ সালে ‘মিস আয়ারল্যান্ড হয়েছেন বাংলাদেশের মেয়ে মাকসুদা প্রিয়তি৷ ৭০০ প্রতিযোগীকে হারিয়ে ‘মিস আয়ারল্যান্ড' নির্বাচিত হন৷ একই সঙ্গে তিনি পেয়েছেন ‘সুপার মডেল' ও ‘মিস ফটোজেনিক' খেতাব৷

বাংলাদেশে এ পর্যন্ত লাক্স-চ্যানেল আই সুপার স্টার- প্রতিযোগিতাই সবচেয়ে আলোচিত৷ এই প্রতিযোগিতার আয়োজক প্রতিষ্ঠান চ্যানেল আই-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর এটাকে অবশ্য ‘বিউটি কন্টেস্ট' বা সুন্দরী প্রতিযোগিতা বলতে নারাজ৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এটা ট্যাল্টেন্ট হান্ট৷ আমরা প্রতিযোগীর মেধা এবং যোগ্যতাকে বিবেচনায় নিই৷ সুন্দরী প্রতিযোগিতা আলাদা বিষয়৷ ওই ধরনের প্রতিযোগিতার সঙ্গে আমাদের প্রতিযোগিতার কোনো মিল নাই৷'' 

অডিও শুনুন 04:14
এখন লাইভ
04:14 মিনিট

‘‘নির্বাচনের পর যখন শো হতো, তখন প্রতিযোগীরা সামনে আসতেন’’

তিনি বলেন, ‘‘আপনারা যদি লক্ষ্য করেন, তাহলে দেখবেন, লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টারই টেলিভিশন নাটক, সিনেমা, মঞ্চ এবং মডেলিংয়ে দাপটের সঙ্গে কাজ করছেন৷ তাঁরা তাঁদের প্রতিভার সাক্ষর রাখছেন৷ অনেকেই বলে থাকেন, লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতা না থাকলে হয়তো এইসব প্রতিভা বেরিয়ে আসতো না৷''

তিনি আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘‘এই প্রতিযোগিতায় যাঁরা আসেন, তাঁদের নানা ধরনের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়৷ তারপর যাঁরা সেরা হন, তাঁদের দিকেও সব সময় খেয়াল রাখে আমাদের একটি টিম৷ তাঁরা পেশাগতভাবে কী করছেন, তাদের কোনো সহযোগিতা প্রয়োজন হয় কিনা, তা  আমরা দেখি৷ ইমপ্রেস যেসব প্রোডাকশন করে, সেখানে আমরা সব সময় এই সেরাদের নিয়ে কাজ করার চেষ্টা করি৷''

লাক্স- চ্যানেল আই সুপার স্টার-কে সুন্দরী প্রতিযোগিতা না বলে ট্যালেন্ট হান্ট কেন বলছেন- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘এটা তো ট্যালেন্ট হান্টই৷ আমরা তো অভিনয় প্রতিভা খুঁজে বের করি৷ প্রতিভার খোঁজ করি৷ সুন্দরী প্রতিযোগিতা আলাদা জিনিস৷ তার সঙ্গে এর কোনো মিলই নাই৷''

শানারৈ দেবী শানু ২০০৫ সালে লাক্স- চ্যানেল আই সুপার স্টার-এর প্রথম বিজয়ী৷ তিনি অভিনয় জগতে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন৷ একজন নৃত্যশিল্পী৷ কবি হিসেবেও আত্মপ্রকাশ করেছেন সম্প্রতি৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এই প্রতিযোগিতায় প্রথম হওয়ার পর আমি ফোকাসড হয়েছি৷ আমার যে প্রতিভা ছিল, তা কাজে লাগাতে এই অর্জন আমাকে অনেক সহায়তা করেছে৷ আমি আমার বিকাশের জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম পেয়েছি৷ প্রথম এক বছর আমি লাক্স ও চ্যানেল আই-এর সঙ্গে তাদের নাটক ও বিজ্ঞাপনের জন্য চুক্তিবদ্ধ ছিলাম৷ আমার ক্যারিয়ার গড়তে তাঁরা সহায়তা করেছেন৷''

তিনি বলেন, ‘‘আমি নিজেও এটাকে সুন্দরী প্রতিযোগিতা মনে করে অংশ নেইনি৷ আমার কাছে ট্যালেন্ট হান্টই মনে হয়েছে৷ তবে আমাদের একটা ট্যাগ ছিল প্রতিযোগিতার- সুন্দরী তোমার গুণের খোঁজে৷ তাই এটা হয়তো সুন্দরীদের গুণ খোঁজার প্রতিযোগিতা৷'' 

অডিও শুনুন 01:46
এখন লাইভ
01:46 মিনিট

‘‘আমি এটাকে শেখার একটা মাধ্যম হিসেবেই দেখি’’

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘এখন যে সুন্দরী প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে, সেটা আরো অর্গানাইজড হওয়া প্রয়োজন৷ কারণ, মিস বাংলাদেশ বিদেশে গিয়ে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন৷ এবার যে বিতর্ক হয়েছে, যদি সঠিকভাবে বিচার এবং যাচাই করা হতো, তাহলে হয়তো এই বিতর্ক হতো না৷''

এই প্রতিযোগিতায় শুধু সেরা নয়, প্রথম ১০ জনের মধ্যে যাঁরা থাকেন তাঁদের প্রায় সবাই প্রতিষ্ঠার পথ খুঁজে পান বা প্রতিভা বিকাশের সুযোগ পান৷ জাকিয়া বারি মম, বিদ্যা সিনহা মিমসহ আরো অনেকেই এখন বাংলাদেশের অভিনয় ও মডেলিং-এ বড় জায়গা করে নিয়েছেন৷

এবারের ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ' নিয়ে যে বিতর্ক হয়েছে তা নিয়ে কথা বলতে আয়োজক প্রতিষ্ঠান অন্তর শোবিজ-এর প্রধান স্বপন চৌধুরীর সঙ্গে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি৷এই প্রতিবেদন তৈরির সময় মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ জেসিয়া ইসলাম চীনে অবস্থান করছিলেন মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে৷ আর খেতাব হারানো জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলও কথা বলতে রাজি হননি৷

তবে ওই প্রতিযোগিতার বিচারক শম্পা রেজার সঙ্গে কথা হয়৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এবারের আয়োজনে মিসম্যানেজমেন্ট ছিল৷ যা-ই হোক হয়ে গেছে, আমি আর বেশি কিছু বলতে চাই না৷ তবে এ ধরনের আয়োজন যাঁরা করবেন, তাঁদের প্রাতিষ্ঠানিক দক্ষতা আরো বেশি থাকতে হয়৷''

তিনি বলেন, ‘‘এ ধরনের প্রতিযোগিতা আমাদের নারীদের আরো আনেক কিছু শেখার সুযোগ করে দেয়৷ তাঁরা দেশের বাইরে যাবেন, অনেক কিছু দেখবেন এবং শিখবেন৷ আমি এটাকে শেখার একটা মাধ্যম হিসেবেই দেখি৷''

বিচার ও বিচারকদের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘যাঁরা পুরো  সময় বিচারের দায়িত্বে থাকবেন, তাঁদের অনেক অভিজ্ঞতা থাকতে হবে, বুঝতে হবে৷ আর বিচারের ক্ষেত্রে ইন্টারন্যাল লুক, মেধা, বুদ্ধি এগুলোকেই বিবচনায় নিতে হয়৷''

আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও