‘বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় আতঙ্ক হলো ৫৭ ধারা′ | পাঠক ভাবনা | DW | 04.09.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

পাঠক ভাবনা

‘বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় আতঙ্ক হলো ৫৭ ধারা'

মিয়ানমারে দুই সাংবাদিকের কারাদণ্ডের খবর প্রসঙ্গে বাংলাদেশের বাকস্বাধীনতা পরিস্থিতি সম্পর্কে এক পাঠকের মন্তব্য, ‘‘বাংলাদেশের প্রতিবাদ দেখে হাসি পেলো, তারা তো মিয়ানমারের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়৷ চোরের মুখে নীতি কথা৷''

‘মিয়ানমারে দুই সাংবাদিকের কারাদণ্ড, বাংলাদেশের তীব্র নিন্দা'শিরোনামে ডয়চে ভেলেতে প্রকাশিত খবরটি ফেসবুক পাতায় শেয়ার করে বাংলাদেশে বাকস্বাদীনতা পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়েছিল৷ পাঠক আরব আলী লিখেছেন, ‘‘বাংলাদেশে  বাকস্বাধীনতা রাষ্ট্রীয় সমস্যার চেয়ে সামাজিক সমস্যা বেশি৷ এখানে সমাজ বহু ভাগে বিভক্ত৷ একে অন্যের মতামতকে সহ‍্য করে না, এমনকি মত প্রকাশের জন্য এখানে খুনও করা হচ্ছে৷ আর এখানে দায়িত্বহীনভাবে যা খুশি তাই বলাকে বাকস্বাধীনতা বলা হয়৷'' 

তবে পাঠক মোহাম্মদ নাসিরুল তাঁর মতামত লিখেছেন এভাবে,

‘‘বাংলাদেশের প্রতিটি জেলায়, থানায়, গ্রামে যাঁরা দিনমজুরের কাজ করতো বা রিকশা চালাতো কিংবা ইট, বালুর গাড়িতে কাজ করতো, আজ তারা কোটি কোটি টাকার মালিক শুধু ইয়াবা আর ফেনসিডিল বিক্রি করে৷ তাদের যন্ত্রণায় এলাকায় ঠিকমতো চলাফেরা করা যায় না৷''  এ পরিস্থিতি দেখার জন্য ডয়চে ভেলেকে নারায়ণগঞ্জ যাওয়ার অনুরোধ করেছেন তিনি৷

তবে বাক স্বাধীনতা পরিস্থিতি বাংলাদেশেও মিয়ানমারের মতো বলে মনে করেন পাঠক শরিফুল আলম৷

আর  যোবায়েন সন্ধির মন্তব্য, ‘‘বাংলাদেশের প্রতিবাদ দেখে হাসি পেলো৷ তারা তো মিয়ানমারের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়৷ চোরের মুখে নীতি কথা!''

পাঠক জসিমউদ্দিন লিখেছেন, ‘‘বাংলাদেশের বাক-স্বাধীনতা সম্পর্কে লিখতে গেলে জেল খানায় বন্দি হতে হবে৷ এই মিয়ানমার সরকার সেনা সমর্থিত আর বাংলাদেশে সরকার অবৈধ৷ দুই দেশ সমান সমান৷ নিন্দা জানানোর ভাষা খুঁজে পাই না৷ বিরোধী জোটের লাখ লাখ নেতাকর্মী আজ ঘরছাড়া৷''

অন্যদিকে মোহাম্মদ হারুন তো রীতিমতো ক্ষুব্ধ হয়ে লিখেছেন, ‘‘বাংলাদেশ সরকার নিন্দা জানায় কোন মুখে? সাংবাদিক সত্য কথা বললে আর লিখলে বাংলাদেশ সরকার তাদের শায়েস্তা করে৷ অন্যায়কে ন্যায় বলে চালানোর চেষ্টা করে৷ সত্য কথা বললে তাদেরকে মিথ্যা মামলায় রিমান্ডে /জেলে যেতে হয়৷ মিয়ানমার সরকার সাংবাদিকদের প্রতি যতটা খারাপ ব্যবহার করছে, তার চেয়ে অনেক গুণ বেশি করছে বাংলাদেশ সরকার৷ তাই বলতে চাই, কোন মুখে বাংলাদেশ এই বিষয়ে নিন্দা জানায়?''

আর একেএম যোবায়ের জানাচ্ছেন, ‘‘বর্তমানে বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ ও গণমাধ্যমের জন্য সবচেয়ে বড় আতঙ্ক হলো ৫৭ ধারা৷''

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: আশীষ চক্রবর্ত্তী

নির্বাচিত প্রতিবেদন