বাংলাদেশে রক্তের চাহিদা সুন্দরভাবে পুরণ হচ্ছে | বিশ্ব | DW | 04.06.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সংবাদভাষ্য

বাংলাদেশে রক্তের চাহিদা সুন্দরভাবে পুরণ হচ্ছে

বলা হয় বিশ্বের বেশিরভাগ মানুষের রক্তের গ্রুপ বি-পজিটিভ৷ কিন্তু বাংলাদেশের বেশিরভাগ মানুষের রক্তের গ্রুপ জি-পজিটিভ৷ হ্যা, জি-পজিটিভ! আজ হোম পেজে রক্ত লাগবে জানান, উত্তরে ‘জি, আসছি' পাবেনই পাবেন৷

এটা একদিনে সম্ভব হয়ে ওঠেনি৷ মনে আছে ৯০ দশকের দিকে রক্তের চাহিদা মেটানোর জন্য ছিল সন্ধানী, কোয়ান্টাম, বাঁধন, রেড ক্রিসেন্ট ইত্যাদি৷ তারা এখনো আছে৷

২০১৩ সালে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক জরিপে দেখা যায়, আমাদের বছরে রক্ত লাগে প্রায় ৪ লাখ ব্যাগ৷ ২০১৯ সালে তা এসে দাঁড়িয়েছে ১৩ লাখ ব্যাগে৷ এই এক দশকেরও কম সময়ে দেখা যাচ্ছে রক্তের চাহিদা বেড়েছে ৩ গুনের বেশি৷

এই অতিরিক্ত চাহিদা খুব সুন্দরভাবেই অনলাইনে ম্যানেজ করা যাচ্ছে৷ রীতিমতো কেসস্টাডি হওয়ার মতো ব্যাপার৷ একটা সময় ছিল রক্ত দান করার ব্যাপারে এই দেশের তরুণদের মাঝে কিছুটা অনীহা ছিল৷ আসলে এই অনীহাটা ছিল ‘জানার গ্যাপের' কারণে৷ 

সোশাল মিডিয়াতে ধীরে ধীরে গড়ে ওঠা সচেতনতা (যেমন, আমি আজ না এগোলে আমার জন্য সামনে কে এগোবে?) বা নলেজ (যেমন নিয়মিত রক্ত দান করলে শরীর সুস্থ থাকে) বা একনলেজমেন্ট (আমি আজ একজনের প্রাণ বাঁচিয়েছি)... এরকম কাহিনিগুলো ধীরে ধীরে তরুণদের মাথায় গেঁথে যেতে থাকে৷

শুধু তরুণদের মাঝেই নয়, পরিবারগুলোর মাঝেও৷ যে পরিবারের শান্ত ছেলেটা কোনো দিন রাত ১০ টার পর বাড়ির বাইরে থাকেনি, সেই ছেলেটাকেও তাঁর বাবা-মা হাসি মুখে হয়ত রাত ২ টার দিকে বের হতে দিচ্ছেন কারো রক্তের প্রয়োজন মেটাতে৷ গত এক দশকে কোনো সোশাল কজ নিয়ে এরকম প্যারাডাইম শিফট ভাবাই যায় না৷ আসলেই কেসস্টাডি হওয়ার মতো ব্যাপার৷ আশেপাশে হাজার হাজার সাকসেস স্টোরি ছড়িয়ে আছে৷

আমি আমার ক্ষেত্রেই বলি৷ আমার স্ত্রী তখন সন্তানসম্ভবা৷ হুট করে ডেলিভারির ১ দিন আগের রাতে পেইন উঠলো তার৷ হাসপাতালে নেয়ার পর তারা বলল জরুরি রক্ত লাগবে৷

হ্যাঁ, সেই রাতে সোশাল মিডিয়ার কল্যাণে রক্ত পেয়েছিলাম৷ কিন্তু বেশি যা পেয়েছিলাম, তা হলো, একটা ‘ধারণা'৷ যে পিচ্চি ছেলেটা চোখ কচলাতে কচলাতে সেই রাতে রক্ত দিতে এসেছিল, সে চলে যাওয়ার আগে আমাকে বলল, ‘‘আপনি তো ভাইয়া জানতেন কবে ডেলিভারি৷''

‘‘হ্যাঁ''

‘‘আপনি তো ভাইয়া এটাও জানতেন ভাবির রক্তের গ্রুপ কী৷''

‘‘হ্যাঁ৷''

‘‘তো গত ৯ মাস থেকে কেন সেই রক্তের গ্রুপের ২/১ জনকে আগে থেকে ম্যানেজ করে রাখেননি?''

পিচ্চি ছেলেটা আমার ধারণাই বদলে দিল৷ ঠিকই তো৷ প্রত্যেক স্বামী কিন্তু চাইলেই এটা পারে৷ আমার স্ত্রীর ডেলিভারি আগামী জুন মাসে৷ আমি কেন এখন থেকেই নিজের পরিবারের মাঝে একই রক্তের গ্রুপের কয়েকজনকে প্রস্তুত করে রাখছি না৷

Arif R Hossain, Online Aktivist

আরিফ আর হোসাইন, অনলাইন অ্যাকটিভিস্ট

আমার দ্বিতীয় সন্তানের জন্মের সময় আমি সম্পূর্ণ প্রস্তুত ছিলাম৷ আমার মতো এরকম হাজারো বাবারা এখন প্রস্তুত৷ এই প্যারাডাইম শিফট একদিনে হয়নি৷

কী না করা হয়েছে সোশাল মিডিয়াতে রক্ত দানকে উৎসাহিত করার জন৷ আমার মনে আছে, এক রোজায় কথা উঠল, রোজা রেখে রক্ত দান করা যায় না৷ সাথে সাথে রোজার মাসে, স্বেচ্ছায় রক্তদানের গ্রাফ গেল নেমে৷ আমরা কয়েকজন গেলাম বায়তুল মোকাররমের খতিবের কাছে৷ উনি বললেন, ‘‘কে বলেছে রোজা রেখে রক্ত দান করা যায় না? মানুষের প্রাণ বাঁচানোর চেয়ে মহৎ কিছু হতে পারে?'' আমরা তাঁর বক্তব্য রেফারেন্সসহ রেকর্ড করে নিয়ে এসে অনলাইনে ছেড়ে দিলাম৷ আবার উঠতে থাকলো স্বেচ্ছায় রক্তদানের গ্রাফ৷

আরো কত রকমের যে সমস্যা৷ মাঝে একবার অভিযোগ এলো, কিছু মানুষ প্রতারিত হচ্ছে৷ এখানে আবার কিভাবে প্রতারণা হবে? ওই যে বললাম, আমাদের ব্রেইন আছে৷ কিছু মানুষ সেটা লাগায় ভালো কাজে, আর কিছু মানুষ তা লাগায় খারাপ কাজে৷

মনে করুন, আপনি রক্ত চেয়ে পোষ্ট দিলেন৷ আপনার কাছে ফোন এলো, ‘‘আমি রক্ত দোবো, কিন্তু আপনার হাসপাতাল তো উত্তরায়৷ আমি থাকি ধানমন্ডিতে৷ কিভাবে যে আসি!'' যাঁর জরুরি রক্ত লাগবে তাঁর এত আশপাশ ভাবার সময় নেই৷ সে উত্তর দিলো, ‘‘ভাইয়া, আমি এখনই আপনাকে ২০০ টাকা ট্যাক্সি ভাড়া দিয়ে দিচ্ছি, তা-ও প্লিজ আসেন৷'' ‘‘দিতে পারবেন? অনেক মেহেরবানি৷ আমি রেডি হচ্ছি৷ আপনি আসা-যাওয়ার ভাড়াটা এই নম্বরে বিকাশ করুন৷ আমি রওনা দিচ্ছি৷''

এই ‘মেহেরবানি ভাই' টাকা পাওয়ার পর থেকে লাপাত্তা৷

মানুষ দেখা গেল এরকম প্রতারণা করে দিব্বি দিন পার করছে৷ প্রতিদিন যেখানে রক্তের চাহিদা প্রায় হাজার খানেক, সেখানে দিনে ৩ জনকে এভাবে ফোন দিয়ে ভাড়া নিলেই তো মাসে তার চলে আসে ১৫/২০ হাজার টাকা৷ এটা বন্ধ করা হলো টেকনিক্যালি (বিকাশের হেল্প নিয়ে ওদের আইনের আওতায় এনে) এবং সচেতনতা বৃদ্ধি করে (যেমন, রক্ত দান হতে হবে স্বেচ্ছায়, কারো জীবন বাঁচাতে আমরা হেল্প নিই না, স্বেচ্ছায় আসি)৷

এরকম হাজারো গল্প আছে৷ কিছু গল্প আমাদের হাসায়, কিছু ভাবায় আর কিছু গল্প কাঁদায়৷ যেমন, নিজের সদ্য ভূমিষ্ঠ ছেলের জন্য জরুরি রক্ত লাগবে রাত ৪ টায়৷ স্ট্যাটাস দেয়া হলো৷ পৌনে ৪টার দিকে রিকশা করে আসিফ নামের এক ছেলে এসে হাজির হাসপাতালে৷ রক্ত দিয়ে চলে যাওয়ার পর সেই সদ্য ভূমিষ্ঠ ছেলের বাবা-মা খুশি হয়ে তাঁদের পুত্রের নাম রাখলেন আসিফ৷ ফেসবুকের একটা স্ট্যাটাস দাঁড় করিয়ে দিলো একটা সম্পর্ককে৷

এরকম হাজারো সম্পর্ক ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে৷ প্রতিদিন বাড়ছে এই সম্পর্কগুলো৷ যেমন, শুধু জরুরি রক্তের প্রয়োজন ছাড়াও এই দেশে থেলাসেমিয়া রোগীরা বেঁচেই আছে অন্যের রক্তের উপর নির্ভর করে৷ বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় সাত ভাগ থেলাসেমিয়া ক্যারিয়ার এবং এদেশে প্রতিদিন প্রায় সাত হাজার শিশু জন্মগ্রহন করছে এই রোগ নিয়েই৷ ভাবা যায়! যাঁদের কিনা প্রতি মাসে ১/২ ব্যাগ রক্ত লাগছেই লাগছে তাঁরা কিন্তু ঠিকই টিকে আছে৷ এই বিপুল পরিমাণ রক্ত আমাদের অনেকেরই অজান্তে ম্যানেজ হয়ে আসছে৷

আমাদের অনেকের অজান্তে কাজটা হলেও এর পিছনে অক্লান্ত শ্রম দিচ্ছে কিছু ‘দেশ-পাগল' যুবক৷ অনলাইনে নিমিষেই রক্ত ম্যানেজ করে দিচ্ছে এরকম শত শত গ্রুপ, পেজ আর সংগঠন৷ আমার পরিচিত সংগঠনই আছে প্রায় ২০০-র অধিক৷ রক্তদানের অপেক্ষায় বাংলাদেশ,  ব্লাড ব্যাংকিং খুলনা, কল ফর ব্লাড, জীবনের জন্য রক্ত, চট্টগ্রাম অঞ্চলে রয়েছে সিটিজি ব্লাড ব্যাংক, সিলেটে স্বপ্ন ব্লাড ফাইটার্স ক্লাব, মুন্সিগঞ্জ ব্লাড ডোনার ক্লাব—নাম লিখে শেষ করা যাবে না৷

আমি লিখাটা যখন লিখছি, তখন প্রচণ্ড গর্ব নিয়ে লিখছি৷

এভাবে চলতে থাকলে আমি নিশ্চিত, সামনের দিনে রক্তের চাহিদা থেকে রক্তের ডোনারের সংখ্যা বেশি হয়ে যাবে৷ এবং সেই দিন আর বেশি দূরে নেই৷ আমি তো গতকালও হোম পেজে একটা স্ট্যাটাস দেখলাম, ‘‘আজ আমার জন্মদিন৷ কিছু একটা করে স্মরণীয় করে রাখতে চাই দিনটিকে৷ আমার রক্তের গ্রুপ ও-পজিটিভ৷ আজ ঢাকার যে কোনো প্রান্তে কারো রক্ত লাগলে আমাকে ট্যাগ দেবেন, প্লিজ৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন