বাংলাদেশে জেএমবি জঙ্গিদের ‘আইএস’ কানেকশন | বিশ্ব | DW | 19.09.2014
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বাংলাদেশে জেএমবি জঙ্গিদের ‘আইএস’ কানেকশন

বাংলাদেশে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামাআতুল মুজাহিদিন বা জেএমবি-র ভারপ্রাপ্ত আমিরসহ ৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ তাদের সঙ্গে মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট বা আইএস-এর যোগাযোগ আছে বলে জানিয়েছেন গোয়েন্দারা৷

জেএমবি-র আটক সদস্যরা হলেন, ভারপ্রাপ্ত আমির আব্দুল্লাহ আল-তাসনিম ওরফে নাহিদ, মো. নাঈম আলী, মো. সিকান্দার আলী ওরফে নকি, মাহমুদ ইবনে বাশার, মো. মাসুম বিল্লাহ, ফুয়াদ হাসান এবং আলী আহমদ৷ তাদের বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকার অদূরে তুরাগের আশুলিয়া ল্যান্ডিং স্টেশন পার্কিং এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ তাদের গোয়েন্দা সদরদপ্তরে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে৷

গোয়েন্দা বিভাগের যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘জেএমবি-র সর্বশেষ আমির মাওলানা সাইদুর রহমান আটক হওয়ার পর আব্দুল্লাহ আল-তাসনিম ভারপ্রাপ্ত আমির হিসেবে জঙ্গিদের সংগঠিত করার কাজ করছিল৷

Bombenanschläge in Bangladesh

বাংলাদেশে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ছে ক্রমশই...

তারা ভিভিআইপি, ভিআইপিসহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ও স্থাপনায় হামলার পরিকল্পনা করেছিল৷''

তিনি জানান, ‘‘হামলার মাধ্যমে তারা মধ্যপ্রাচ্যের জঙ্গি সংগঠন আইএস-কে তাদের শক্তি সম্পর্কে জানান দিতে চেয়েছিল৷ এরই মধ্যে আইএস বা আইসিস-এর সঙ্গে তারা যোগাযোগের কথা স্বীকার করেছে৷''

এছাড়া তাদের কাছ থেকে বিস্ফোরক তৈরির জন্য ব্যবহৃত ১০ কেজি জেলমিশ্রিত রাসায়নিক, চারটি পিতলের মূর্তি, জেএমবি-র প্রচারপত্র ও বই উদ্ধার করা হয় বলেও জানান মনিরুল ৷

তিনি জানান, ‘‘উদ্ধারকৃত জেল বিস্ফোরক তৈরিতে ব্যবহৃত হয়৷ আর পিতলের মূর্তির গুড়া বিস্ফোরক তৈরিতে ব্যবহার করে৷ উদ্ধারকৃত বইয়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত জেএমবি সংগঠন পরিচালনার জন্য নিয়ম-নীতি সম্পর্কে বিশদ বর্ণনা রয়েছে৷ এছাড়া জব্দকৃত লিফলেট বিভিন্ন সময়ে দাওয়াতি কাজে ব্যবহার করে তারা৷''

২০০৫ সালের ১৭ই আগস্ট দেশের ৬৩টি জেলায় একযোগে বোমা হামলা চালিয়ে আলোচনায় আসে জঙ্গি সংগঠন জেএমবি৷ ১৭ই আগস্টের পর তারা সারাদেশে একের পর এক আত্মঘাতী হামলা চালিয়ে বিচারক, আইনজীবী, পুলিশ, সরকারি ও বেসরকারি কর্মকর্তাসহ ৩৩ জন জনকে হত্যা করে৷

২০০৫ সালের ১৪ই নভেম্বর বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের ঝালকাঠিতে দুই বিচারক হত্যা মামলায় তখনকার জেএমবি প্রধান শায়খ আবদুর রহমান, সিদ্দিকুল ইসলাম ওরফে বাংলা ভাইসহ শীর্ষ ছয়জন জঙ্গির ফাঁসি হয়৷

১৭ই আগস্টের বোমা হামলার ঘটনায় বাংলাদেশে মোট ১৫৯টি মামলা হয়৷ এর মধ্যে ৯১টি মামলার বিচার শেষে তিনজনের মৃত্যুদণ্ড, ১১২ জনের যাবজ্জীবন এবং ১০১ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে৷ পলাতক আছে ফাঁসির তিন আসামিসহ ৭৪ জন সাজাপ্রাপ্ত জঙ্গি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন