বাংলাদেশে অসহায় শিশুদের জন্য হিউম্যান মিল্ক ব্যাংক | বিশ্ব | DW | 07.10.2021

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

বাংলাদেশে অসহায় শিশুদের জন্য হিউম্যান মিল্ক ব্যাংক

রাজধানীতে হিউম্যান মিল্ক ব্যাংক করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে৷ উদ্যোগটি যেসব শিশু জন্মের সময় মা হারায় বা মায়ের অসুস্থতার কারণে বুকের দুধ পায় না কিংবা মায়ের দুধ নবজাতকের পুষ্টির জন্য পর্যাপ্ত নয় তাদের জন্য৷

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

‘স্ট্রেনদেনিং মাল্টিসেক্টরাল নিউট্রেশন প্রজেক্ট' এর আওতায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের নবজাতক ইউনিট, ঢাকা শিশু হাসপাতাল, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং মাতুয়াইলের শিশু-মাতৃ স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটে (আইসিএমএইচ) এই মিল্ক ব্যাংক করতে চায় এফএইচআই৩৬০৷ হাসপাতালগুলোর সঙ্গে এরই মধ্যে তাদের প্রাথমিক চুক্তি হয়ে গেছে৷ দুই বছর আগে একবার মাতুয়াইলের শিশু-মাতৃ স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট মিল্ক ব্যাংক স্থাপনের উদ্যোগ নিলে ধর্মীয় কারণে তা আটকে যায়৷

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ফ্যামিলি হেলথ ইন্টারন্যাশনাল-এফএইচআই ৩৬০ সেজন্য গত ৩১ আগস্ট স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অনুমতির জন্য আবেদন করেছে৷

ডয়চে ভেলের কনটেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম, বাংলাদেশে এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়ার কথা তুলে ধরে বলেন, ‘‘এতে ধর্মীয় বিষয় জড়িত থাকায় সবার সঙ্গে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে, একা সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে না৷ ইসলামিক ফাউন্ডেশন আছে, ধর্মীয় নেতারা আছেন, সব স্টেকহোল্ডারদের যুক্ত করে এগোতে হবে৷''

মিল্ক ব্যাংক স্থাপনের এই নতুন উদ্যোগের সঙ্গে যুক্ত আছেন বাংলাদেশ পেডিয়াট্রিক অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ সহিদুল্লাহ৷তিনি বিডিনিউজকে বলেন, ‘‘নবজাতক এবং শিশু স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য বিষয়গুলোর মধ্যে একটি হলো মায়ের বুকের দুধ৷ শরীরে পুষ্টি যোগানোর পাশাপাশি বুকের দুধ টিকা হিসেবে কাজ করে, সংক্রমণ প্রতিরোধে কাজ করে৷''

মিল্ক ব্যাংক খোলার প্রয়োজনীয়তার কথা জানাতে গিয়ে ডা. মোহাম্মদ সহিদুল্লাহ বলেন, ‘‘মায়ের বুকের দুধ সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন প্রিম্যাচিওর বাচ্চার পুষ্টির জন্য৷ মা পর্যাপ্ত দুধ দিতে পারছে না, মায়ের অপারেশন বা একটা রোগ ধরা পড়েছে, এমন ওষুধ খাচ্ছে যে বুকের দুধ দিতে পারছে না-এ ধরনের নবজাতককে বর্তমানে হাসপাতাল বা ব্যক্তিগত উদ্যোগে অন্য মায়েদের অনুরোধ করে তার বুকের দুধ খাওয়ানো হয়৷কিন্তু এটা বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি নয়, ধর্মীয়ভাবেও প্রশ্ন থেকে যায়৷ কার বাচ্চাকে কার দুধ খাওয়াচ্ছি, রেকর্ড রাখছি কি না সেটাও প্রশ্ন৷ এসব কারণেই মিল্ক ব্যাংক তৈরি করা দরকার৷''

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ২০১৯ সালের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে জন্মের পর প্রতি এক হাজারে ১৬ জন নবজাতকের মৃত্যু হয়৷ জন্মের পাঁচ বছরের মধ্যে প্রতি হাজারে মারা যায় ২৯টি শিশু৷মায়ের বুকের দুধ নিশ্চিত করতে না পারা শিশু মৃত্যুর প্রধান চারটি কারণের একটি বলে জানান এফএইচআই ৩৬০ এর অ্যাডভাইজার ডা. গাজী মাসুম আহমেদ ৷ মায়ের বুকের দুধ খাওয়ানো নিশ্চিত করতে পারলে যেসব শিশু মারা যাচ্ছে তাদের অর্ধেককে বাঁচানো সম্ভব বলে মনে করেন তিনি৷

‘হিউম্যান মিল্ক ব্যাংক' নিয়ে বিতর্ক

মায়ের বুকের দুধ থেকে বঞ্চিত শিশুদের মায়ের দুধের ব্যবস্থা করতে ২০১৭ সাল থেকে কাজ শুরু করে ঢাকার মাতুয়াইলের শিশু-মাতৃ স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট (আইসিএমএইচ)৷ বিদেশ থেকে প্রয়োজনীয় আধুনিক যন্ত্রপাতিও আনার পরেও ওলামাদের একটি অংশের বিরোধিতা কারণে থেমে যায় উদ্যোগটি৷ এ বিষয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের অবস্থান সম্পর্কে গবেষণা বিভাগের মুফতি মোহাম্মদ আবদুল্লাহ গত মাসে বিডিনিউজকে জানিয়েছিলেন, যে প্রক্রিয়ায় এটা হবে বলা হচ্ছে, এভাবে বৈধতা দেওয়া যাবে না৷

অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ সহিদুল্লাহ এ প্রসঙ্গে বলেন, মায়ের বুকের দুধ খাওয়ানোর রেকর্ড নিয়ে আলেম সমাজের আপত্তি রয়েছে তবে এর বিজ্ঞানভিত্তিক সমাধানও রয়েছে৷

এর সমাধান করতে দুগ্ধদানকারী মা এবং দুধ পান করেছে যে শিশু তার সব তথ্যসহ দুটো আলাদা আইডি নম্বর ড্যাশবোর্ডে থাকবে বলে জানান এফএইচআই ৩৬০ এর অ্যাডভাইজার ডা. গাজী মাসুম আহমেদ৷

এনএস/কেএম (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)

নির্বাচিত প্রতিবেদন