বাংলাদেশের সঙ্গে সর্বাত্মক যোগাযোগ বাড়াতে উদ্যোগ | বিশ্ব | DW | 17.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত-বাংলাদেশ

বাংলাদেশের সঙ্গে সর্বাত্মক যোগাযোগ বাড়াতে উদ্যোগ

ভারত-বাংলাদেশের মৈত্রী সুদৃঢ় করতে কলকাতা ও খুলনার মধ্যে শুরু হয়েছে দ্বিতীয় যাত্রিবাহী ট্রেন৷ খুলে দেওয়া হয়েছে দ্বিতীয় ভৈরব ও তিতাস নদীর ওপর রেলসেতু৷ অর্থাৎ জলপথ এবং আকাশ পথেও বাড়ানো হচ্ছে দু'দেশের মধ্যে যোগাযোগ৷

ভারত ও বাংলাদেশ পারস্পরিক যোগাযোগ পরিকাঠামোর বিকাশে বিভিন্ন প্রকল্প গড়ে তুলছে৷ তারই অঙ্গ হিসেবে কলকাতা-খুলনা এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রারম্ভ করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়৷ ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে একসঙ্গে সবুজ পতাকা নেড়ে শুভারম্ভ হয় ‘বন্ধন এক্সপ্রেস'-এর৷ পুরো বাতানুকুল এই বন্ধন এক্সপ্রেস ট্রেনটির বাণিজ্যিকভাবে যাত্রারম্ব হয় গত ১৬ই নভেম্বর কলকাতা থেকে সকাল ৭টা-১০ মিনিটে৷ ১৫৭ কিলোমিটার পথ, অর্থাৎ কলকাতা থেকে খুলনা পৌঁছাতে লাগে ঘণ্টা চারেক৷ ফিরতি পথে বেলা দেড়টায় খুলনা থেকে ছেড়ে কলকাতা বন্ধন পৌঁছায় সন্ধ্যা ৬টা নাগাদ৷ এবার থেকে প্রতি বৃহস্পতিবার নিয়মিতভাবে যাবে এই ট্রেন৷

উল্লেখ্য, ২০০৮ সালে দু'দেশের মধ্যে শুরু হয় প্রথম যাত্রীবাহী ট্রেন‘মৈত্রী এক্সপ্রেস'৷ ভারত সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়, দু'দেশের প্রান্তিক স্টেশনগুলিতে থাকছে অভিভাসন ও শুল্ক পরীক্ষার আধুনিক সুবিধা৷ অর্থাৎ  যাত্রাকালীন সময় আরো ঘণ্টা তিনেক কম লাগবে৷ এছাড়া এ উপলক্ষ্যে কলকাতায় এক আন্তর্জাতিক যাত্রী টার্মিনাসও চালু করা হচ্ছে৷

দু'টি ট্রেনের প্রথমটির নাম ‘মৈত্রী' দ্বিতীয়টির নাম ‘বন্ধন'৷ দুয়ে মিলে মৈত্রী-বন্ধন৷ একেবারে সার্থক নাম৷ নিবিড় মৈত্রী বন্ধনে জুড়ে যাবে প্রতিবেশী দু'টি দেশ৷ প্রধানমন্ত্রী মোদীর ভাষায়, ‘‘আমি খুশি যে উভয় দেশের জনগণ এবার খুব সহজেই একে-অপরের আরও কাছাকাছি আসতে পারবে৷''

সেই সঙ্গে বাংলাদেশে দ্বিতীয় ভৈরব এবং তিতাস নদীর ওপর দু'টি নতুন রেলসেতু ট্রেন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে৷ এই দু'টি রেলসেতু তৈরি হয় ভারতের ৬৫২ কোটি টাকার ঋণ সাহায্যে৷ এতে বাংলাদেশের রেল নেটওয়ার্কের প্রভূত উন্নতি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷ ১৯৬৫ সালের আগে দু'দেশের মধ্যে (তত্কালীন পাকিস্তান) যেসব রেল সংযোগ ছিল, তা আবারো চালু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় ২০১৫ সালে মোদী-হাসিনা শীর্ষ বৈঠকে৷ আশার বিষয়, এই ধরনের ছ'টি রেল সংযোগের মধ্যে চারটি ইতিমধ্যেই চালু করা হয়েছে৷ এই চারটি হলো – পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের মধ্যে পেট্রাপোল-বেনাপোল, গেদে-দর্শনা, সিংহবাদ-রোহনপুর এবং রাধিকাপুর-বিরল৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

অন্য দু'টি রেলপথও শীঘ্র চালু করা হবে৷ করিমগঞ্জ-শাহবাজপুর এবং হলদিবাড়ী-চিলহাটির মধ্যে৷ এই দু'টি রেললাইন চালু হলে ভারতের আসাম, তথা ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও বাংলাদেশের মধ্যে রেল যোগাযোগ ব্যবস্থার অনেক উন্নতি হবে৷ তবে এ জন্য অতিরিক্ত আরও চার কিলোমিটার নতুন রেললাইন বসাতে হবে ভারতকে৷

এখানেই শেষ নয়৷ অতিরিক্ত আরও দু'টি নতুন রেলপথ তৈরির কাজ হাতে নেওয়া হয়েছে৷ এর একটি আগরতলা-আখাউরা এবং অন্যটি বেলোনিয়া-ফেনি হয়ে বাংলাদেশের চট্টগ্রাম বন্দর পর্যন্ত৷ এতে ত্রিপুরা, তথা ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সঙ্গে বাংলাদেশের যাত্রী ও পণ্য পরিবহনে সুবিধা হবে৷ ইতিমধ্যেই ভারত ও বাংলাদেশের কন্টেনার কর্পোরেশনগুলির মধ্যে সম্পাদিত চুক্তি অনুসারে পরীক্ষামূলকভাবে চালু হয়েছে ‘কন্টেনার সার্ভিস'৷

এছাড়া গত বছর দু'দেশের মধ্যে অভ্যন্তরীণ জলপথ বাণিজ্য, তথা ট্রানজিট সংক্রান্ত সমঝোতা চুক্তি অনুসারে পণ্য পরিবহন বা ‘ট্রান্সশিপমেন্ট' বাংলাদেশের আশুগঞ্জে পৌঁছায়৷ সমুদ্রপথেও বাংলাদেশগামী বড় বড় পণ্যবাহী জাহাজ ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় বন্দরগুলিকে ‘ট্রানজিট' বন্দর হিসেবে ব্যবহার করতে পারবে৷ ফলে পণ্য পরিবহনের সময় বর্তমানের ৩০-৪০ দিন থেকে কমে হবে ৪ থেকে ১০ দিন৷ এছাড়া, ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে আছে ৪৯টি স্থল শুল্ক এবং দু'টি সুসংহত ‘চেকপোস্ট'৷ এরমধ্যে ৩৬টি চালু আছে৷ শুধু পেট্রাপোল-বেনাপোল সীমান্তপথ দিয়েই চলাচল করে দু'দেশের প্রায় ৫০ শতাংশ বাণিজ্যিক পণ্য৷ এ বছরের ১লা আগস্ট থেকে দিনরাত ২৪ ঘণ্টা তা খোলা আছে৷ আর ভারতের মেঘালয় এবং ত্রিপুরায় বাংলাদেশের সঙ্গে চারটি সীমান্ত হাট আছে৷ শোনা যাচ্ছে, আরো দু'টি বাড়ানো হবে শীঘ্রই৷

দু'দেশের বর্তমান বিমান পরিষেবায় সপ্তাহে ১০০টি উড়ান চালু আছে৷ দিল্লি, কলকাতা, মুম্বই, চেন্নাই এবং ঢাকা ও চট্টগ্রামের মধ্যে৷ উড়ান সংখ্যা আরো বাড়াতে উদ্যোগী হয়েছে দু'টি দেশই৷ অন্যান্য শহরগুলিকেও বাংলাদেশ বিমান পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত করা হবে৷ আর এতে বাংলাদেশে বিমানবন্দরগুলির পরিকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পেও সহযোগিতা করছে ভারত৷

অডিও শুনুন 01:05
এখন লাইভ
01:05 মিনিট

‘সম্প্রতি চীন আমাদের প্রতিবেশী দেশগুলি, বিশেষ করে বাংলাদেশের দিকে নজর বাড়িয়েছে‘

বাংলাদেশের সঙ্গে সর্বাত্মক যোগাযোগ পরিকাঠামোর বিকাশের তাত্পর্য সম্পর্কে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্র বিজ্ঞানের অধ্যাপক বিশ্বনাথ চক্রবর্তী ডয়চে ভেলেকে বললেন, ‘‘সম্প্রতি চীন আমাদের প্রতিবেশী দেশগুলি, বিশেষ করে বাংলাদেশের দিকে নজর বাড়িয়েছে৷ এমনকি মাস দুয়েক আগে বাংলাদেশ নৌ-বাহিনীকে একটি ডুবোজাহাজ পর্যন্ত দিয়েছে চীন৷ বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও ক্রমশ ঢুকে পড়ছে দেশটি৷ এ অবস্থায়, চীনকে ঠেকাতে ভারতও প্রতিবেশী দেশগুলিকে, বিশেষ করে বাংলাদেশকে গুরুত্ব দিচ্ছে আগের তুলনায় অনেক বেশি৷ কাজেই প্রথম ‘ফ্যাক্টর' চীন৷ দ্বিতীয়ত, মৌলবাদী সংগঠনগুলিকে বর্তমান বাংলাদেশ সরকার যেভাবে নিয়ন্ত্রণ করছে তা ভারতের কাছে খুবই আশাপ্রদ৷ তাই মোদী সরকার চাইছে আগামী নির্বাচনেও শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় ফিরে আসুক৷ এর প্রেক্ষিতেই ভারত চাইছে যেসব প্রকল্প রূপায়ণের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল, তা নির্বাচনের আগেই বাস্তবায়িত হোক৷ এরমধ্যে ‘কানেক্টেভিটি' বা যোগাযোগ ব্যবস্থা অন্যতম৷''

বাংলাদেশের অন্য কোনো গন্তব্য থেকে সরাসরি ভারতে রেল যোগাযোগ কি জরুরি? লিখুন মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন