বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচন ছিল একপেশে: যুক্তরাষ্ট্র | বিশ্ব | DW | 14.03.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচন ছিল একপেশে: যুক্তরাষ্ট্র

বাংলাদেশে একপেশে সংসদীয় নির্বাচনের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ সরকার তৃতীয়বারের মতো ক্ষমতায় এসেছে বলে মনে করে যুক্তরাষ্ট্র৷ দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ‘বাংলাদেশ মানবাধিকার পরিস্থিতি প্রতিবেদন ২০১৮’-তে এমন মন্তব্য করা হয়েছে৷ 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ বলে বিবেচিত হয়নি৷ ভরা ব্যালট বাক্স, বিরোধী দলের পোলিং এজেন্ট এবং ভোটারদের ভয়ভীতি প্রদর্শনসহ নির্বাচনে বিভিন্ন অনিয়ম হয়েছে৷ নির্বাচন পূর্ববর্তী পরিস্থিতি তুলে ধরে প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘‘নির্বাচনের আগে হয়রানি, হুমকি, গণ গ্রেপ্তারও সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে৷ যার কারণে অনেক বিরোধী প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের জন্য বৈঠক, জনসভা, কিংবা স্বাধীনভাবে প্রচার চালানো কঠিন ছিল৷’’

নির্বাচন পর্যবেক্ষণের জন্য আন্তর্জাতিক নির্বাচন পর্যবেক্ষণকারীদের প্রয়োজনীয় সময়ের মধ্যে অনুমতি ও ভিসা প্রদান করা হয়নি বলেও অভিযোগ করা হয়েছে প্রতিবেদনে৷ ‘‘২২টি ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপ এনজিওর মধ্যে মাত্র সাতটিকে নির্বাচন পর্যবেক্ষণের অনুমোদন দেয়া হয়,’’ দাবি করছে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর৷ এনজিও ডেমোক্র্যাসি ইন্টারন্যাশনালের পরিসংখ্যান দিয়ে তারা বলছে, নির্বাচনের মাসে বিএনপি ও তার রাজনৈতিক জোটের বিরুদ্ধে মোট ১৩২৪ টি সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে৷ যেখানে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে এমন ঘটনা ঘটেছে ২১১ টি৷ ‘‘নির্বাচনকালীন সময়ে প্রায় ৪,৩৫,০০০ বিএনপি সদস্যদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ৷ যাদের অনেককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ এসব মামলার অনেকগুলোর রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত হিসেবে অভিহিত করেছে মানবাধিকার সংস্থাগুলো৷’’ বলা হয়েছে, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বিরুদ্ধে ৮৬টি মামলা দায়ের করেছে সরকার৷

গেল সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে জামায়াতের কর্মকাণ্ডে রাশ টানার প্রস্তাব উঠলেও পররাষ্ট্র বিভাগের প্রতিবেদনে বাংলাদেশে জামায়াতের নেতা কর্মীদের মত প্রকাশের সাংবিধানিক স্বাধীনতা প্রয়োগ করতে দেয়া হচ্ছে না বলেও অভিযোগ করা হয়েছে৷ ‘‘রাজনৈতিক দল হিসেবে জামায়াতকে নিবন্ধনের সুযোগ না দেয়া, জামায়াতের নামে অফিস খুলতে না দেয়া সেই সঙ্গে নেতা ও সদস্যদের মত প্রকাশ ও সংগঠিত হওয়ার অধিকার ক্রমাগত হরণ করা হচ্ছে৷’’

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, যেসব গণমাধ্যম সরকার ও আওয়ামী লীগের সমালোচনা করে তাদেরকে হয়রানি করছে সরকার৷ বিজ্ঞাপন থেকে তাদের আয়ের পথ বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে৷ গণমাধ্যমগুলো সরকারের প্রতিক্রিয়া এড়াতে ‘সেল্ফ সেন্সরশিপ’ আরোপ করছে বলেও উল্লেখ করা হয়৷

সরকারি বাহিনীর হত্যা, গুম, নির্যাতন, গণগ্রেপ্তার, মতপ্রকাশের স্বাধীনতা, দুর্নীতি, সমকামীদের প্রতি সহিংসতা, শ্রমিক ইউনিয়নে বাধা দেয়া ও শ্রমিক অধিকার সহ বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতির বিভিন্ন দিক নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র বিভাগ৷ বলা হয়েছে, ‘‘নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে নির্যাতনের বিস্তর অভিযোগ রয়েছে৷ কিন্তু সরকার মাত্র অল্প কয়েকটি নির্যাতন ও হত্যার ঘটনার তদন্ত ও বিচারের উদ্যোগ নিয়েছে৷’’

এফএস/ডিজি (ইউএস ডিপার্টমেন্ট অফ স্টেট)

১ জানুয়ারির ছবিঘরটি দেখুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন