বহুতলের ছাদের উপর অভিনব কনসার্ট | বিশ্ব | DW | 13.11.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

বহুতলের ছাদের উপর অভিনব কনসার্ট

কনসার্ট বা জলসায় হাতে গোনা কিছু মানুষ সংগীতের স্বাদ পান৷ করোনা সংকটের কারণে সেই সুযোগও প্রায় হাতছাড়া হয়ে গেছে৷ বহুতল ভবনের ছাদে অভিনব কনসার্ট সংগীত অনুরাগীদের জন্য সুখবর হয়ে উঠতে পারে৷

ড্রেসডেন শহরের বহুতল ভবন ভরা এলাকায় আল্পস পর্বতের পরিচিত ধ্বনি শোনা যাচ্ছে৷ ৫০ মিটার উচ্চতা থেকে আল্পহর্নের সুর ভেসে আসছে৷ শহরের বিখ্যাত সিম্ফনি অর্কেস্ট্রার মহাপরিচালক মার্কুস রিন্ট হাঁটতে বেরিয়ে ১৭ তলা ভবনগুলি দেখে এক বছর আগেই খোলা আকাশের নীচে কনসার্টের কথা ভেবেছিলেন৷ রিন্ট বলেন, ‘‘এমন পরিবেশের সঙ্গে পর্বতের উঁচুনীচু গঠনের অদ্ভুত মিল রয়েছে৷ ভবনগুলির মাঝে যেন খাড়া খাদ নেমে গেছে৷ তখন ভাবলাম, বিভিন্ন ছাদের উপর সংগীতিশিল্পীদের ছড়িয়ে রাখলে তাঁরা সবাই মিলে বাজনা বাজাতে পারেন৷''

তাঁকে অবাক করে ভবনের বাসিন্দাদের সমিতি এই প্রকল্পে সম্মতি দিয়ে দিলো৷ একাধিক বহুতল ভবনের উপর ড্রেসডেন সিম্ফনির শিল্পীরা সংগীত পরিবেশন করছেন৷ একটি পার্কিং ভবনের উপর অন্য শিল্পীরা তথাকথিত ‘ডা গু' ড্রামস বাজাচ্ছেন৷

এমন কনসার্টের জন্য অনেক প্রস্তুতি ও পরিকল্পনার প্রয়োজন৷ শহরের বাণিজ্যমেলা প্রাঙ্গনে ড্রেস রিহার্সাল করা হয়েছে৷ আল্পহর্ন বাদ্যযন্ত্র সে ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করছে৷ পেশাদার শিল্পী হিসেবে ইয়ুলিয়ানে বাউকে শিশু বয়স থেকেই এই হর্ন বাজাচ্ছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘এই শিঙা বাজাতে গেলে দেখবেন, এর কাঠামো খুবই সরল৷ এটি প্রায় আদিম এক বাদ্যযন্ত্র৷ এটি দিয়ে বড়জোর ১৬ থেকে ১৭ রকম সুর সৃষ্টি করা যায়৷ আপনি চাইলে একবার বাজিয়ে দেখাতে পারি৷''

ভিডিও দেখুন 04:16

ছাদের ওপর কনসার্ট



সুরকার হিসেবে মার্কুস লেমান-হর্ন বহুতল ভবনের কনসার্টের জন্য আলাদা সংগীত রচনা করেছেন৷ বিশেষ করে শিল্পীদের মধ্যে ব্যবধানের কারণে গোটা বিষয়টি ভালো করে চিন্তা করতে হয়েছে৷ মার্কুস বলেন, ‘‘দর্শকরা মাঝে বসে রয়েছেন৷ যে শিল্পীরা সবচেয়ে দূরে রয়েছেন, তাঁরাই বাজনা শুরু করবেন৷ সব শিল্পীর কানের কাছে বিলম্বিত লয়ে মেট্রোনোম যন্ত্র বাজালে তবেই সেটা সম্ভব৷ অর্থাৎ তারা নীচে ড্রামবাদকদের তুলনায় এক সেকেন্ড আগে শুরু করবেন৷''

প্রিমিয়ারের দিন দুপুর থেকেই ছোট ছোট কনসার্ট শুরু হয়ে গেছে৷ সিম্ফনির শিল্পীরা গোটা এলাকা সুরে ভরিয়ে দিচ্ছেন৷ এলাকায় এমন মনোরম পরিবেশ একজনের ভালো লাগছে৷ কনসার্ট ছোট হলেও কেউ তা সফল মনে করছেন৷ ড্রেসডেন সিম্ফনি অর্কেস্ট্রার মহাপরিচালক মার্কুস রিন্ট মনে করেন, ‘‘এই প্রকল্প অবশ্যই নতুন এক ধারার সূচনা হতে পারে, যা বিশ্বের অনেক বহুতল ভবন ভরা এলাকায় আয়োজন করা যেতে পারে৷ এর মাধ্যমে অনেক মানুষের কাছে পৌঁছানো যায়৷ মানুষ যেখানে থাকে, সেখানেই সংগীত পৌঁছে দেওয়া যায়৷''

সন্ধ্যাবেলা কনসার্ট শুরু হচ্ছে৷ সংগীতশিল্পীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সব পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে৷ তারপর প্রিমিয়ার কনসার্টের সূচনা হলো৷ দর্শকরাও মুগ্ধ৷ এই উদ্যোগ হয়তো সত্যি নতুন ধারার সূচনা করছে৷ ড্রেসডেন সিম্ফনি অর্কেস্ট্রার দেখানো পথে হয়তো গোটা বিশ্বে বহুতল ভবনের ছাদে এমন কনসার্ট আয়োজন করা হবে৷



লারিসা মাস/এসবি

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন