‘বর্ণবিদ্বেষী’ ট্রাম্প, খেলোয়াড়দের অদ্ভুত প্রতিবাদ | বিশ্ব | DW | 27.09.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

‘বর্ণবিদ্বেষী’ ট্রাম্প, খেলোয়াড়দের অদ্ভুত প্রতিবাদ

জাতীয় সঙ্গীতের সময় হাঁটু গেড়ে বসে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন ফুটবল, বেসবল, বাস্কেটবল খেলোয়াড়রা৷ একসময় তা যুক্তরাষ্ট্রে কৃষাঙ্গদের ওপর পুলিশী নৃশংসতার প্রতিবাদ হলেও, এখন তা রূপ নিয়েছে ট্রাম্পবিরোধী আন্দোলনে৷

কালোদের ওপর পুলিশের নির্যাতন দীর্ঘদিন ধরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক ক্ষত৷ নানা রকম বিদ্বেষমূলক মন্তব্য দিয়ে প্রেসিডেন্ট হওয়ার আগে থেকেই এই ক্ষত উসকে আসছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ প্রেসিডেন্ট হওয়ার পরও পালটায়নি তার অবস্থান৷

অ্যামেরিকান ফুটবলার কলিন কায়পারনিক বছরখানেক আগে শুরু করেন এই আন্দোলন৷ কিন্তু তা চরম রূপ নিয়েছে গত সপ্তাহে৷

ঘটনার শুরু বাস্কেটবল টুর্নামেন্ট -এনবিএ চ্যাম্পিয়ন গোল্ডেন স্টেট ওয়ারিয়র্স-এর হোয়াইট হাউসে যাওয়া-না যাওয়া নিয়ে৷ বিভিন্ন জাতীয় টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন দলের খেলোয়াড়রা ঐতিহ্যগতভাবেই প্রেসিডেন্টের সাথে ডিনারে হোয়াইট হাউসে দাওয়াত পেয়ে থাকেন৷ এই ধারা চালু হয় ১৮৬৫ সালে৷

কিন্তু ওয়ারিয়র্সের খেলোয়াড় স্টিফেন কারি এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, দল হিসেবে ওয়ারিয়র্স দাওয়াত পেলেও তিনি ব্যক্তি হিসেবে হোয়াইট হাউসে যাবেন না৷

এরপর স্বভাবগতভাবেই ফুঁসে ওঠেন ট্রাম্প৷ এক টুইটে হোয়াইট হাউসে আমন্ত্রণ পাওয়াকে ‘সম্মানের’ বিষয় উল্লেখ  করে আমন্ত্রণ বাতিল করার ঘোষণাও দেন তিনি৷ তবে শুধু কারির আমন্ত্রণ বাতিল হলো, নাকি পুরো টিম ওয়ারিয়র্সের, তা অবশ্য পরিষ্কার করেননি মার্কিন প্রেসিডেন্ট৷

খেলোয়াড়রাও অবশ্য তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় জানিয়ে দিয়েছেন, হোয়াইট হাউসে যাওয়া না যাওয়ায় থোড়াই আসে যায় তাঁদের৷

শুধু টুইট করেই থেমে থাকেননি ট্রাম্প৷ এক সমাবেশে বক্তব্যে কায়পারনিক ও কারির প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, ‘‘যেসব এনএফএল খেলোয়াড় জাতীয় পতাকাকে অসম্মান করে দলের মালিকের উচিত তাদের বহিষ্কার করা৷’’ এসব খেলোয়াড়কে ‘কুকুরের বাচ্চা’ বলেও আখ্যা দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট

এরপর থেকেই তীব্র প্রতিবাদ শুরু হয়েছে খেলার মাঠে৷ প্রায় প্রতিটি ফুটলবল ম্যাচের আগেই জাতীয় সংগীতের সময় হাঁটুগেড়ে বসে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন অনেক খেলোয়াড়৷ ট্রাম্পের আহ্বানে সাড়া দিয়ে কাউকে বহিষ্কার তো দূরের কথা, বরং দলের মালিকরা বিষয়টি ছেড়ে দিয়েছেন খেলোয়াড়দের ব্যক্তিগত ইচ্ছা-অনিচ্ছার ওপর৷ কোনো কোনো দলের খেলোয়াড়েরা তো জাতীয় সংগীতের সময় মাঠেই আসছেন না৷

একসময় ট্রাম্পকে বন্ধু পরিচয় দেয়া প্যাট্রিয়ট দলের কোয়ার্টারব্যাক টম ব্র্যাডিও জানিয়েছেন প্রতিবাদ৷ বলছেন ট্রাম্পের এমন বক্তব্য খেলোয়াড়দের ‘বিভক্ত’ করে দিচ্ছে৷ সম্প্রতি এক খেলায় ব্র্যাডিও দাঁড়িয়েছেন প্রতিবাদীদের কাতারে, হাতে হাত রেখে৷

ধীরে ধীরে এনএফএল ছাড়িয়ে এই উত্তাপ ছড়িয়েছে বাস্কেটবল ও বেসবলের মাঠেও৷ ‘খেলার সাথে রাজনীতি মেশানো’ ঠিক হবে কি না, সে প্রশ্ন থেকে অনেক দূরে সরে এসেছে এ প্রতিবাদ৷

এডিকে/এসিবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন