বরফের উপর অসাধারণ কসরত দেখাচ্ছেন অস্ট্রিয়ার এক নারী | বিশ্ব | DW | 05.04.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

বরফের উপর অসাধারণ কসরত দেখাচ্ছেন অস্ট্রিয়ার এক নারী

শীতকালীন ক্রীড়া মানে শুধু বরফের উপর স্কেটিং নয়৷ স্নোবোর্ডিং তার মধ্যে অন্যতম৷ অস্ট্রিয়ার এক নারী এ ক্ষেত্রে অসাধারণ সাফল্য দেখিয়ে সবার নজর কাড়ছেন৷ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমেও তাঁর খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ছে৷

আনা গাসার ২০১৮ সালের নভেম্বর মাসে ‘ক্যাব ট্রিপল আন্ডারফ্লিপ' কসরত দেখিয়ে স্নোবোর্ডিং-এর ক্ষেত্রে ইতিহাস রচনা করেছেন৷ তিনি এ প্রসঙ্গে মনে করিয়ে দেন, ‘‘এর আগে কোনো নারী এই সাফল্য পাননি৷ একবার লাফ মারলে আর ফেরার উপায় নেই৷ ঈশ্বরের কৃপায় শূন্যে ভাসা অবস্থায়ও আমার যথেষ্ট নিয়ন্ত্রণ ছিল৷ লাফানোর সঙ্গে সঙ্গেই জানতাম, আমি ভালো থাকবো৷''  

আনা গাসার বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে সফল নারী স্নোবোর্ডার৷ অনেক উদ্যোগ ও আবেগের সঙ্গে তিনি অলিম্পিক ও বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে সেরাদের মধ্যে নিজের স্থান করে নিয়েছেন৷ আনা বলেন, ‘‘কোনো কিছু ভালো না লাগলে আপনি সেই কাজে ভালো হতে পারেন না৷ নির্দিষ্ট এক মনোভাবের প্রয়োজন৷ কারণ প্রশিক্ষণ ছাড়াই এমন একটি কায়দা পরখ করে দেখতে হবে, যা কতটা নিরাপদ তাও জানা নেই৷ কেউ ধরার নেই, নীচে কোনো ম্যাট নেই৷ তাই নিজেকেই লাফ মারতে হয়৷ তার জন্য মানসিক শক্তি ও সাহসের প্রয়োজন৷''

অন্য যে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বীর তুলনায় গাসার আরও বেশি প্রতিযোগিতায় অংশ নেন৷ যেমন অস্ট্রিয়ার ক্রাইশব্যার্গ-এ স্নোবোর্ডিং বিশ্বকাপ প্রতিযোগিতা৷ আনা গাসার বলেন, ‘‘মনে হচ্ছে, উত্তেজনায় রোম খাড়া হয়ে যাবে৷ মাথার মধ্যেই পুরো বিষয়টি ভেবে নেই, মনে মনে প্রতিটি পদক্ষেপ দেখে নেই৷ ক্রমান্বয়ে প্রত্যেকটি বিষয়ে মনোনিবেশ করা অত্যন্ত জরুরি৷''

অস্ট্রিয়ার জাতীয় স্নোবোর্ডিং টিমের কোচ আনা-র সাফল্য নিয়ে গর্বিত৷ পর পর দুবার আনা অস্ট্রিয়ায় বছরের সেরা ক্রীড়াবিদ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছেন৷ এমনকি প্রতিদ্বন্দ্বীরাও তাঁর তারিফ করেন৷ তাদেরই একজন সিলইয়ে নোরেনডাল৷ তিনি বলেন, ‘‘আনা-র মতো ভালো ফল করতে তাঁকে ঈর্ষা করা সহজ৷ কিন্তু আমি অনেককাল আনা-র সঙ্গে রয়েছি, জানি সে কত কঠিন পরিশ্রম করে৷ সম্প্রতি সে যে ফল করছে, তার পুরোটাই তার প্রাপ্য৷''

ইসাবেল ডেরুংস-ও স্নোবোর্ড ক্রীড়াবিদ হিসেবে আনা গাসারকে ভালোই চেনেন৷ তিনি বলেন, ‘‘সে সত্যি কিছু চাইলে, অবশ্যই তা পেয়ে যায়৷ সেই সাফল্য অর্জন করতে সে অনেক পরিশ্রম করে৷ নিজের প্রতি তার বিশাল প্রত্যাশা রয়েছে৷ শুধু বেশিরভাগ নারীর তুলনায় ভালো ফল করেই সে সন্তুষ্ট হয় না৷ পুরুষদের তুলনায়ও ভালো ফল করতে চায়৷''

আনা গাসার-এর জীবনসঙ্গী ক্লেমেন্স মিলাউয়ার-ও একজন স্নোবোর্ডার৷ অস্ট্রিয়ার জাতীয় পুরুষ টিমের সদস্য হিসেবে তিনিও বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় আনা-র সঙ্গেই থাকেন৷ আনা-র মতো এতটা সফল না হলেও ক্যামেরা নিয়ে তিনি কাছাকাছি থাকেন৷ ক্লেমেন্স বলেন, ‘‘আমাদের মধ্যে আদৌ কোনো প্রতিযোগিতা নেই৷ অবশ্যই আমি যখন বলি, যে সে নির্দিষ্ট একটি কৌশল আয়ত্ত করতে পারবে না, তখন সে দ্বিগুণ উৎসাহ নিয়ে আমাকে তা করে দেখিয়ে দিতে চায়৷ কিছু করতে পারলে সে বড়ই খুশি হয়, সাফল্য অর্জন করতে ভালোবাসে৷''

অস্ট্রিয়ার দক্ষিণে এক গ্রামে আনা গাসার বড় হয়েছেন৷ কম বয়সেই জিমনাস্টিক্সের প্রতি তাঁর আগ্রহ দেখা গিয়েছিল৷ ১৮ বছর বয়সে স্নোবোর্ডিং-এর প্রতি আকর্ষণ আবিষ্কার করে তিনি বাক্সপ্যাটরা গুছিয়ে এক বছরের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান৷ সে দেশে স্নোবোর্ডিং অত্যন্ত জনপ্রিয় ক্রীড়া৷ তারপর থেকেই তাঁর পেশাজীবনে সাফল্য আসে৷ প্রত্যেক জয়ের খবর তিনি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে পোস্ট করেন৷ তবে শুধু মজার জন্য নয়৷

অ্যাথলিটরা কত ক্লিক পাচ্ছেন, স্পনসররা সে দিকে নজর রাখেন৷ আনা গাসার বলেন, ‘‘একদিকে বিষয়টি অসাধারণ, কারণ আপনি নিজেকে যেভাবে তুলে ধরতে চান, সেই সুযোগ রয়েছে৷ কারণ সংবাদ মাধ্যম তাদের পছন্দ অনুযায়ী আপনার সম্পর্কে সেভাবে লেখে বা আপনাকে সেভাবে দেখায়৷ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে আমি নিজের পছন্দমতো নিজেকে তুলে ধরতে পারি৷ কেউ তা নিয়ে কিছু বলতে পারে না৷''

চোখ ধাঁধানো জাম্পের কারণেই তিনি সবচেয়ে বেশি ক্লিক পান৷ আনা গাসার ভবিষ্যতে আরও সাফল্যের স্বপ্ন দেখছেন৷

গেয়ারহার্ড সনলাইটনার/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন