বন্দুক কেনার প্রবণতা বাড়ছে জার্মানিতে | বিশ্ব | DW | 02.02.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

বন্দুক কেনার প্রবণতা বাড়ছে জার্মানিতে

গত দু'বছরে জার্মান নাগরিকদের মধ্যে বন্দুক কেনার প্রবণতা কয়েকগুণ বেড়েছে৷ সম্প্রতি একটি সমীক্ষা থেকে এই তথ্য মিলেছে৷ সমীক্ষা অনুযায়ী, এক চতুর্থাংশ জার্মান মনে করছেন, দেশে নিরাপত্তা আগের চেয়ে কমে গেছে৷

যুক্তরাষ্ট্রে গৃহযুদ্ধের সময় সে দেশে নাগরিকদের মধ্যে অস্ত্র কেনার প্রবণতা বহু গুণ বেড়ে গিয়েছিল৷ রাস্তাঘাটে গুলির লড়াই তখন খুবই স্বাভাবিক ঘটনা ছিল৷ যার রেশ গিয়ে পড়েছিল বর্ণবিদ্বেষ সংক্রান্ত সমস্যাতেও৷ কালো মানুষ এবং সাদা মানুষদের মধ্যে অহরহ লড়াই লেগে থাকত৷

জার্মানিও কি সেই পথে এগোচ্ছে? প্রশ্নটা তুলছেন জার্মানির কোনো কোনো সমাজতাত্ত্বিক এবং ক্রিমিনোলজিস্ট৷ সম্প্রতি ম্যাক্স প্লাঙ্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষক একটি সমীক্ষা চালিয়েছিলেন৷ তার ফলাফল বলছে, গত দু'বছরে জার্মানদের মধ্যে বন্দুক কেনা এবং তা সঙ্গে রাখার প্রবণতা বেড়েছে৷ কারণ, তাঁরা মনে করছেন, নাগরিক নিরাপত্তা আগের চেয়ে অনেকটাই কমেছে৷ যে কারণে বন্দুকের দোকানগুলিতে বিক্রি অনেক বেড়ে গেছে৷ যদিও জার্মানিতে নাগরিকদের ব্যবহারের জন্য যে বন্দুক পাওয়া যায় তা দিয়ে মানুষ মারা যায় না৷ লাইসেন্স করিয়ে এক ধরনের গ্যাস বন্দুক কিনতে পারেন জার্মানরা, যা ব্যবহার করলে প্রতিপক্ষ সাময়িকভাবে দৃষ্টিহীন হয়ে পড়েন৷ বন্দুক থেকে এক ধরনের গ্যাস বেরোয়৷ অনেকটা ভারত এবং বাংলাদেশে ব্যবহৃত টিয়ার গ্যাসের মতো৷

বন্দুক ছাড়াও গ্যাস স্প্রে এবং নানারকম আত্মরক্ষার সরঞ্জামের বিক্রিও অনেক বেড়েছে৷ তথ্য বলছে, ২০১৫ সালে মোট বিক্রিত বন্দুকের সংখ্যা ছিল ৩ লক্ষ ১ হাজারের মতো৷ ২০১৭ সালে তা গিয়ে দাঁড়ায় ৫ লক্ষ ৫৭ হাজারে৷ আগামী দিনে এই সংখ্যা আরো বৃদ্ধি পাবে বলেই বিশেষজ্ঞদের ধারণা৷ পাশাপাশি তাইকোয়ান্দো, কারাতের মতো ক্লাসে অনেক বেশি সংখ্যক জার্মান নাগরিকেরা যাচ্ছেন৷ বিশেষজ্ঞরা সমীক্ষা চালিয়ে দেখেছেন, প্রায় ২৩ শতাংশ জার্মান মনে করছেন, নিরাপত্তার অবস্থা খুব খারাপ৷ তবে একটা বড় অংশের মানুষ মনে করছেন, এখনো এ দেশে নিরাপত্তার তেমন কোনো সমস্যা নেই৷

কিন্তু কেন জার্মানরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন? এই প্রশ্নের উত্তরে বড় অংশের মানুষ বলেছেন, শরণার্থী এবং বিদেশিদের তাঁরা ভয় পাচ্ছেন৷ শরণার্থী অধ্যুষিত কোনো কোনো এলাকায় বিকেলের পর তাঁরা যান না৷ একটা সামান্য অংশের মানুষ মনে করছেন, নিও নাৎসি এবং উগ্র দক্ষিণপন্থিদের বারবাড়ন্তও নিরাপত্তাহীনতার একটি বড় কারণ৷

বস্তুত, গত দু'বছরে জার্মানিতে শরণার্থীর সংখ্যা চোখে পড়ার মতো বেড়েছে৷ বন্দুক বিক্রির পরিমাণও বেড়েছে চক্রবৃদ্ধিহারে৷ ফলে বিশেষজ্ঞরা ধরেই নিচ্ছেন, শরণার্থীদেরকেই জার্মান নাগরিকদের একটি বড় অংশ হুমকি হিসেবে দেখছেন৷ তবে এর ফলে পরিস্থিতি আরো জটিল হবে বলেই তাঁদের ধারণা৷

অনেকেই মার্কিন গৃহযুদ্ধের সময়ের কথা মনে করিয়ে দিচ্ছেন৷ সে সময় অ্যামেরিকায় অস্ত্র কেনা খুবই সহজ ছিল৷ সহজে লাইসেন্সও পাওয়া যেতো৷ এর ফলে বহু মানুষের মৃত্যু হয়েছিল স্ট্রিট ফাইটে৷ পরবর্তীকালে অস্ত্র কেনা এবং লাইসেন্স পাওয়ার আইন সংশোধন করা হয়৷ জার্মানদের অস্ত্র কেনার প্রবণতায় অনেকেই সিঁদুরে মেঘ দেখছেন৷ বলা হচ্ছে, এ বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ না করলে ভবিষ্যতে সমস্যায় পড়তে পারে জার্মানির আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি৷

কার্স্টেন নিপ/এসজি (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন