বডি পেইন্টিংয়ের ভেলকি | অন্বেষণ | DW | 16.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

বডি পেইন্টিংয়ের ভেলকি

নিজের শরীরকে চিত্রপট হিসেবে ব্যবহার করে, চোখের ভ্রম সৃষ্টি করেন সার্বিয়ার শিল্পী মিরিয়ানা মিলোসেভিচ৷ নিজের পেটে গিঁট বাঁধা থেকে শুরু করে নিজেকে স্কন্ধকাটা হিসেবে দেখানো, শুধু মেক-আপ দিয়ে এ সব ভেলকি দেখান ‘কিকা'৷

পুরোপুরি ম্যাজিক – কিন্তু তার পটভূমি হল মিরিয়ানা মিলোসেভিচ-এর নিজের শরীর৷ মিরিয়ানা ওরফে কিকা সার্বিয়ার মানুষ, কিন্তু সারা বিশ্বে লক্ষ লক্ষ মানুষ আজ তাঁর ওয়েবসাইটে ক্লিক করে নিত্যনতুন ভিডিও দেখেন৷ 

কিকা থাকেন বেলগ্রেড থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত স্মেডেরেভো শহরে৷ এখানে তাঁর ছোট্ট স্টুডিওতে তিনি তাঁর নতুন ভিডিওগুলি তৈরি করে থাকেন৷ ছোটবেলা থেকেই আঁকতে ভালোবাসতেন কিকা; নিজে নিজেই আঁকা শিখেছেন৷ তাঁর ভিডিও আর্ট বিশেষ করে ‘চোখের ভুল' বা ‘বিভ্রম'-এর উপর নির্ভর করে৷

মিরিয়ানা বলেন, ‘‘আমার নতুন চ্যালেঞ্জ ভালো লাগে, তাই আমি আঁকার মাধ্যমে ভেলকি দেখাতে ভালোবাসি৷ নিজের পেটে একটা গিঁট বাঁধতে পারাটা খুবই মজার! আমার এভাবে আঁকতে ভালো লাগে, কেননা আমি প্রতিদিনই অন্য কেউ হতে পারি৷''

ভিডিও দেখুন 04:17
এখন লাইভ
04:17 মিনিট

শরীর যখন চিত্রপট

ভিডিও চ্যানেল

৩৫ বছর বয়সি মিরিয়ানা মাত্র এক বছর আগে তাঁর নিজের ভিডিও চ্যানেল শুরু করেন৷ ২০১৬ সালে নিজেকে কাঠের পুতুল হিসেবে সাজিয়ে সার্বিয়ার মেক-আপ শিল্পীদের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ পুরস্কার জেতেন মিরিয়ানা৷ সেটাই ছিল তাঁর আন্তর্জাতিক খ্যাতির সূচনা৷ এক লাখ ত্রিশ হাজারের বেশি মানুষ তাঁর ইউটিউব চ্যানেল ফলো করে থাকেন ও নিয়মিত তাঁর নতুন ভিডিওগুলি দেখেন৷ কিকা-র স্বপ্ন সফল হয়েছে, বলা চলে৷

আজ মিরিয়ানা ‘কিকা' মিলোসেভিচ বলেন, ‘‘আমি খুবই আনন্দিত৷ সারা বিশ্বে এতোগুলো মানুষ আমার চ্যানেল দেখেন৷ আমরা পরস্পরের সঙ্গে কথা বলি আর ওরা যখন লেখেন, ‘ব্রাজিল থেকে চুম্বন' বা ‘ফ্রান্স থেকে চুম্বন', তখন আমার মনে হয়, আমি যেন সেখানে গিয়েছি – অথবা সেখানেই আছি, একটা অদ্ভুত অনুভূতি৷''

দুই সন্তানের জননী কিকা আজ তাঁর ভিডিও চ্যানেল থেকে জীবনধারণ করতে পারেন৷ প্রতি সপ্তাহে তিনি দু'টি নতুন ভিডিও পোস্ট করে থাকেন৷ সারা বিশ্ব থেকে তার প্রতিক্রিয়া আসে, যেমন স্প্যানিশ ভাষায়৷

পেটে গিঁট বাঁধা

নিজের শরীরের উপর ভিডিও-র ভেলকি আঁকার জন্য কিকা-র আট ঘণ্টা অবধি সময় লেগে যায়৷ আঁকার আইডিয়াগুলো আসে কোনো গান কিংবা নিজের কোনো অভিজ্ঞতা থেকে৷ যেমন কিকা জানালেন, ‘‘আমার ওজন নিয়ে একটা সমস্যা ছিল, আমি খেতে পারতাম না৷ আমার খিদে চলে যায়৷ আমার মনে হতো, আমার পেটটায় যেন কেউ গিঁট বেঁধে দিয়েছে৷''

পিছনের কালো দেয়ালটার সঙ্গে মিলে তবেই দেখার প্রমাদ বা ভ্রম সৃষ্টি হয়৷ মেক-আপ শিল্পী কিকা-র একটি সমস্যা হলো, নিজের শরীরে আঁকার সময় দম আটকে থাকতে হয়, নয়ত ছবি আঁকা-বাঁকা হয়ে যায়৷ তবে সব ছবিতেই কিছুটা ম্যাজিক থাকে৷

ভেলকি শিল্পী কিকা শুধু নিজের পেটে গিঁটই বাঁধতে পারেন না, পেঁচানো একটা দড়ি কিংবা অন্য কিছুর আকৃতিও দিতে পারেন৷ এটা তাঁর কাঠের পুতুল বডি পেইন্টিং-এর অঙ্গ, যা আঁকতে কিকা-কে প্রচুর বেগ পেতে হয়৷ যেমন কিকা জানালেন: ‘‘দড়িটা আঁকতে আমাকে এত কষ্ট করতে হয়েছে, কেননা নিজের পেটের চামড়ার উপর আঁকা সহজ নয়৷ ছবি ভালো হতে গেলে নড়াচড়া করা চলবে না৷''

তাঁর বডি পেইন্টিং দিয়ে একটি লক্ষ্য অর্জন করতে চান কিকা – একটি বিরাট লক্ষ্য: ‘‘আমার স্বপ্ন হল, আমি একদিন রেড কার্পেটের উপর অস্কার হাতে দাঁড়িয়ে থাকব৷''

সে পর্যন্ত তাঁকে ফ্যানদের জন্য এই সব ভিডিও আর টিউটোরিয়াল সৃষ্টি করতে হবে৷ যাই হোক, ইতিমধ্যেই মার্কিন অভিনেতা চার্লি শিন কিকার একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন৷ কাজেই কিকার স্বপ্ন সফল হতে পারে বৈকি – যদি তিনি তাঁর মাথা ঠিক রাখেন!

সিবিলে মায়ার-ব্রেটশ্নাইডার/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন