বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সম্পত্তির খতিয়ান নেই | বিশ্ব | DW | 24.11.2012
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সম্পত্তির খতিয়ান নেই

বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের সম্পদ বাজেয়াপ্তের সিদ্ধান্ত হলেও সরকারের কাছে তাদের সম্পদের কোন হিসাব নেই৷ আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ জানিয়েছেন, ব্যক্তি বা অংশীদার হিসেবে তাদের সম্পদের তথ্য জানা যাবে এক মাসের মধ্যে৷

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার ঘটনায় দণ্ডপ্রাপ্ত ৬ জন খুনি এখনো বিভিন্ন দেশে পালিয়ে আছেন৷ এরা হলেন: মোসলেম উদ্দীন, রাশেদ চৌধুরী, নূর চৌধুরী, আবদুর রশিদ, শরিফুল হক ডালিম ও আবদুল মাজেদ৷ আদালত থেকে বারবার বলা সত্ত্বেও আইনের কাছে নিজেদের সোপর্দ করেননি তারা৷ সে কারণে আইন অনুযায়ি তাদের স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার সিদ্ধান্ত হয়েছে৷ কিন্তু আদৌ খুনিদের নামে কোন সম্পদ আছে কিনা, তা জানে না খোদ সরকারই৷

আইনমন্ত্রী ব্যারিষ্টার শফিক আহমেদও স্বীকার করলেন, খুনিদের সম্পত্তির কোন হিসাব সরকারের কাছে নেই৷ তবে আগামী এক মাসের মধ্যে এই হিসাব বের করা সম্ভব হবে বলে জানান মন্ত্রী৷ সম্পদের সঠিক হিসাব পেতে সাব রেজিষ্টার অফিস, বাংলাদেশ ব্যাংক ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে৷

সম্পদ বাজেয়াপ্ত করা হলেই খুনিরা ফিরে আসবেন, এমনটিও নিশ্চিত নয়৷ তবে তাদের দেশে ফিরিয়ে আনতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে আরো বেশী তৎপর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন আইনমন্ত্রী৷ তিনি বলেন, আমাদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বারবারই বলছে, তারা তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন৷ কিন্তু তাদের আরো বেশী তৎপর হতে হবে৷ দূতাবাসগুলোকেও আরো বেশী সক্রিয় হওয়ার পরামর্শ দিলেন আইনমন্ত্রী শফিক আহমেদ৷

আইনমন্ত্রী বলেন, খুনিদের উত্তরসুরিরা এদেশে বহাল তবিয়তেই আছে৷ খুনিদের সম্পর্কেও বিশদ তথ্য রয়েছে গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর কাছে৷ তারপরও তারা যে সব দেশে পলায়ন করেছে, সে' দেশগুলোর সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্কের মাধ্যমেই খুনিদের ফিরিয়ে আনতে হবে৷ যদিও আন্তর্জাতিক পুলিশী সংস্থা ইন্টারপোলের মাধ্যমে খুনিদের বিরুদ্ধে রেড নোটিস জারি করা আছে৷ তাই ইন্টারপোলকেও কাজে লাগানোর পরামর্শ তাঁর৷

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পালিয়ে থাকা খুনিদের অধিকাংশেরই অবস্থান জানে সরকার ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলো৷ তাই ওই সব দেশের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করা গেলে খুনিদের ফিরিয়ে আনা সম্ভব৷ তাদের মতে, খুনিদের ফিরিয়ে আনতে হলে কূটনৈতিক মিশনগুলোকে আরো বেশী তৎপর ও কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়