বই কিনলে উপহার, লটারির হাতছানি | বিশ্ব | DW | 06.02.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

কলকাতা

বই কিনলে উপহার, লটারির হাতছানি

কলকাতা বইমেলায় বই কিনলে পুরস্কারের হাতছানি! প্রকাশনা সংস্থা লেডিজ পার্স দিচ্ছে বই কিনলে৷ মেলার পরিচালক ‘পাবলিশার্স গিল্ড’ আয়োজন করেছে লটারির৷

৪৪তম আন্তর্জাতিক কলকাতা বইমেলা চলছে হইহই করে৷ উদ্যোক্তাদের দাবি অনুযায়ী, এটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় বইমেলা৷ অসংখ্য বাংলা ও ইংরেজি বইয়ের স্টলের সঙ্গে রয়েছে লিটল ম্যগাজিনের পসরা৷ হাজার হাজার মানুষ প্রতিদিন মেলায় আসছে৷ তবে, ভিড় মূলত মুষ্টিমেয় নামজাদা প্রকাশকের স্টলে৷ অপেক্ষাকৃত ছোট প্রকাশকদের স্টলে ভিড় কম৷

মেলার মাঠে একটি প্রকাশনা সংস্থা বই বিক্রির জন্য উপহারের বিজ্ঞাপন দিয়েছে৷ নির্দিষ্ট অঙ্কের বই কিনলে বিনামূল্যে মিলছে লেডিজ পার্স, ল্যাপটপ ব্যাগ ও ব্যাকপ্যাক৷ এই বিজ্ঞাপন একটি সঙ্কটকে সামনে এনেছে৷ প্রশ্ন উঠেছে, বই পড়ার অভ্যেস কি এতটাই কমে গেছে যে বিক্রির জন্য উপহারের প্রলোভন দিতে হচ্ছে? অভ্যেস কমছে বলে মানতে রাজি নন এই সময়ের বিশিষ্ট সাহিত্যিক অমর মিত্র৷ তিনি বলেন, ‘‘মানুষ যদি বই না পড়ে তাহলে এত কিনবে কেন? শুধু ঘরে সাজিয়ে রাখার জন্য মানুষ বই কেনে না৷ আমার অনেক লেখা পড়েই পাঠক মতামত দেন৷ ফেসবুকেও অনেক মন্তব্য পাই৷ না পড়লে মতামত দেওয়া সম্ভব নয়৷ আর বই কিনলে উপহার দেওয়া ব্যতিক্রমী ঘটনা৷ যে বই চলে না, তা বিক্রি করার জন্য প্রকাশকরা উপহার দিয়ে থাকতে পারে৷’’

অডিও শুনুন 03:25

বই কিনলে উপহার দেওয়া ব্যতিক্রমী ঘটনা: অমর মিত্র

বইয়ের সাম্রাজ্যে মূলত থাবা বসিয়েছে টেলিভিশনের বিনোদন৷ এর উপর চ্যালেঞ্জ বাড়িয়েছে মোবাইল৷ তবে এর মধ্যেও একটা ইতিবাচক দিক দেখছেন আনন্দ পুরস্কারজয়ী সাহিত্যিক নলিনী বেরা৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, "অনেক কালজয়ী সাহিত্যের ওপর নির্ভর করে টিভি ধারাবাহিক তৈরি হচ্ছে৷ ধারাবাহিক দেখে মানুষ সেই বইটা পড়তে আগ্রহী হচ্ছে৷ যেমন ধরুন, প্রফুল্ল রায়ের কেয়া পাতার নৌকো৷ তাই মাঝখানে বই বিক্রিতে যে ভাটা এসেছিল, এখন সেটা কিছুটা কমেছে৷ আমার যে বই পুরস্কার পেয়েছে, সেটা ভাল বিক্রি হচ্ছে৷ লোকে যদি বই না পড়ে, তাহলে কিনবে কেন?”   

যদিও বই বিক্রির সঙ্গে পাঠের সম্পর্ক আছে বলে মনে করেন না বিশিষ্ট প্রাবন্ধিক, অধ্যাপক সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়৷ তিনি বলেন, ‘‘অধিকাংশ বই কেনা হচ্ছে কালচারাল ট্যাগ হিসেবে৷ বাঙালি নিজেদের সংস্কৃতিমনস্ক বলে মনে করে, তাই বই কেনে৷ তাও সেটা থ্রিলার বা কমিক জাতীয় বই৷ ভাবনা চিন্তার খোরাক আছে, এমন বই নয়৷’’ এই প্রসঙ্গে তিনি টেনে আনেন সাম্প্রতিককালের জনপ্রিয় ইংরেজি সাহিত্যের প্রসঙ্গ৷ চেতন ভগত, অর্জুন পান্ডে প্রমুখ লেখকদের সম্পর্কে তাঁর মত, ‘‘এর কোনোটাই ধ্রুপদী নয়৷ একটা ট্রেন যাত্রায় পড়তে ভাল লাগে, এর বেশি কিছু নয়৷ এই লেখা কলজয়ী হতে পারে না৷’’

অডিও শুনুন 04:55

অধিকাংশ বই কেনা হচ্ছে কালচারাল ট্যাগ হিসেবে: সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়

গত বছরের কলকাতা বইমেলায় ২৪ লাখ মানুষ এসেছিল৷ ২২ কোটি টাকার বই বিক্রি হয়েছে৷ এই হিসেবে গড়ে মাথাপিছু একশো টাকার কম বই বিক্রি হয়েছে৷ বাণিজ্যের হিসেবে এই সংখ্যা মোটেও আশাব্যঞ্জক নয়৷ কলকাতার সর্বাধিক বিক্রিত সাপ্তাহিক পত্রিকার সম্পাদক, সাহিত্যিক জয়ন্ত দে ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘ভাবের ঘরে চুরি করে লাভ নেই৷ বই পড়ার অভ্যেস কমেছে৷ মানুষ এখন মোবাইল, কিন্ডল-এ বই পড়ে নিচ্ছে৷ তবে সাহিত্যচর্চা ও লেখালেখির ঝোঁক বাড়ছে সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে৷ অনেক ব্লগের লেখা এবার বই হিসেবে বেরিয়েছে৷’’    উপহারের বিজ্ঞাপন নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাননি প্রকাশনা সংস্থা দেজ পাবলিশিং-এর কর্ণধার শুভঙ্কর(অপু)দে৷ তাঁর মতে, ‘‘এটা একেবারেই সংশ্লিষ্ট প্রকাশনা সংস্থার ব্যক্তিগত ব্যাপার৷’’

বইমেলার আয়োজক ‘পাবলিশার্স অ্যান্ড বুকসেলার্স গিল্ড’ প্রতিদিন লটারির আয়োজন করেছে৷ এক হাজার টাকার বই কেনার রসিদ দিলেই এই লটারিতে অংশ নেওয়া যাবে৷ ২০ জন বিজয়ীর জন্য রয়েছে ২৫ হাজার টাকা মূল্যের বইকেনার ভাউচার৷ এ নিয়ে সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়ের বক্তব্য, ‘‘উপহার, লটারিতে প্রমাণ হচ্ছে আমাদের তৃতীয় বিশেব সাক্ষরতার হার বাড়েনি৷ বিশ্বায়নের সঙ্গে তাল মেলাতে নতুন পদ্ধতি উদ্ভাবনে আমরা ব্যর্থ৷’’

সংশ্লিষ্ট বিষয়