ফ্লোরেন্স শহরের অন্যতম আকর্ষণ অভিনব কাগজ | অন্বেষণ | DW | 06.05.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

ফ্লোরেন্স শহরের অন্যতম আকর্ষণ অভিনব কাগজ

কারখানার যন্ত্রে তৈরি সুলভ সামগ্রীর এই যুগে ক'জনই বা হাতে তৈরি অনন্য বস্তুর কদর করে! ইটালির ফ্লোরেন্স শহরে অভিনব ফ্লোরেন্টাইন পেপার কিন্তু এখনও যথেষ্ট জনপ্রিয়৷ কিছু কাগজ যন্ত্রে ছাপা হলেও সেই প্রক্রিয়ারও ঐতিহ্য রয়েছে৷

শহর হিসেবে ফ্লোরেন্স শিল্প ও সংস্কৃতিতে সমৃদ্ধ৷ কয়েক শতাব্দী ধরে সেখানে কাগজ তৈরির ঐতিহ্যও চালু আছে৷ উপহারের মোড়ক থেকে শুরু করে বই ছাপানোর জন্য ফ্লোরেন্টাইন কাগজের অনেক বৈচিত্র্য রয়েছে৷ কিছু ক্ষেত্রে এমনকি হাতে করে সেই কাগজ তৈরি হয়৷ কাগজ উৎপাদন কেন্দ্রের প্রধান মারিয়া জানিনি বলেন, ‘‘এই কাগজকে ফ্লোরেন্টিন কাগজ বলা হয়, যদিও মার্বেল্ড পেপার সেটির আসল উৎস৷ কাগজের সজ্জার অত্যন্ত প্রাচীন কৌশল এটি৷ ফ্লোরেন্সে মূলত বই বাঁধানোর প্রক্রিয়ায় এর অনেক ব্যবহার হয়েছে৷ বই ও প্রিন্টিং ক্ষেত্রে এখানে চিরকাল এর যোগসূত্র ছিল৷''

ছয় প্রজন্ম ধরে মারিয়া জানিনির পরিবার কাগজ কারখানার মালিক৷ ‘জুলিও জানিনি এ ফিলিও' ফ্লোরেন্স শহরের সবচেয়ে প্রাচীন মার্বেল পেপার প্রস্তুতকারক৷ এখনো সেখানে হাতে করে কাগজ প্রস্তুত করা হয়৷

বিভিন্ন কোর্সের মাধ্যমে সেই কৌশল শেখানো হয়৷ মারিয়া জানিনি এমনই এক পাঠক্রমের শিক্ষার্থীদের বলেন, ‘‘আমি মার্বেল পেপার প্রস্তুত করবো৷ এই জিলেটিনের মধ্যে কিছু রং ছড়িয়ে দেবো৷ তারপর ধাপে ধাপে একটি নক্সা তৈরি করবো৷ সবশেষে তার উপর কাগজ বিছিয়ে দেবো৷ দেখবেন কাগজের সজ্জা কীভাবে ফুটে ওঠে৷''

উৎপাদন প্রক্রিয়া অত্যন্ত জটিল ও কষ্টসাধ্য৷ অনেক ভালোবাসা নিয়ে খুঁটিনাটি বিষয়গুলির প্রতি মনোযোগ দিতে হয়৷ একটিমাত্র কাগজের জন্য মারিয়া জানিনির প্রায় ২০ মিনিট সময় লাগে৷ প্রত্যেকটি কাগজের জন্য নতুন রং নিয়ে গোটা প্রক্রিয়া নতুন করে শুরু করতে হয়৷ তবে তার ফল অসাধারণ হয়৷

আজকাল যন্ত্রের মাধ্যমে ফ্লোরেন্টিন কাগজ ছাপা হয়৷ রসি নামের কাগজের কারখানায় সেই প্রক্রিয়ারও দীর্ঘ ঐতিহ্য রয়েছে৷ ১৯৩১ সালে এক পরিবার সেই ছাপাখানার পত্তন করেছিল৷ প্রতিষ্ঠানের বিপণন বিভাগের প্রতিনিধি মাটিয়া রসি বলেন, ‘‘এই কারখানায় আমরা পুরানো যন্ত্র দিয়েও প্রিন্ট করি৷ কিন্তু গত শতাব্দীর পুরানো যন্ত্রগুলিকে নতুন প্রযুক্তির সাহায্যে আধুনিক করে তোলা হয়েছে৷ এই সব প্রিন্টিং মেশিন ঘণ্টায় এক থেকে দেড় হাজার কাগজ ছাপতে পারে৷''

তবে চিরকার এত দ্রুত কাগজ ছাপা সম্ভব ছিল না৷ উনবিংশ শতাব্দীর এই অক্ষত প্রিন্টিং প্রেস ধীর গতিতে একের পর এক কাগজ ছাপতে পারতো৷ মাটিয়া রসি বলেন, ‘‘কোম্পানির জন্মলগ্নে এটাই ছিল প্রথম যন্ত্র৷ আমার পিতামহ আন্তোনিও এই প্রেসে কিছু কার্ড ছাপিয়ে কাজ শুরু করেন৷ এক জায়গায় কাগজ, অন্য জায়গায় কালি ভরতে হতো৷''

ফুলের নক্সা, সোনালী অ্যাকসেন্ট বা রেখা এবং উজ্জ্বল রং ফ্লোরেন্টাইন কাগজের অনবদ্য বৈশিষ্ট্য৷ দ্বাদশ শতাব্দীতে জাপানে নাকি মার্বেলড পেপার আবিষ্কৃত হয়৷ সপ্তদশ শতাব্দীর প্রথম দিকে সেই কাগজ ইউরোপে আসে৷ জাল করা অথবা মুছে যাওয়ার মতো বিপদ এড়াতে গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্রের জন্য সেই কাগজ ব্যবহার করা হতো৷ আজকাল মূলত সুভেনির বা উপহার হিসেবেই সেটির চল বাড়ছে৷ মারিয়া জানিনি মনে করেন, ‘‘মানুষ হাতে তৈরি ও অনন্য জিনিসের খোঁজ করে৷ একেবারে অনবদ্য৷ তারা রংয়ের প্রেরণা অথবা এক টুকরো অভিনব কাগজ হাতে পেতে পারে৷''

হাতে তৈরি হোক, অথবা যন্ত্রে ছাপা – ফ্লোরেন্টাইন কাগজের নক্সার মধ্যে এখনো ইতিহাস ও ঐতিহ্যের ছাপ পাওয়া যায়৷

মেগিন লেই/এসবি

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়