ফ্রান্সের যে শহর পাইপ শিল্পের রাজধানী | অন্বেষণ | DW | 16.06.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

ফ্রান্সের যে শহর পাইপ শিল্পের রাজধানী

মুখে পাইপ ছাড়া শার্লক হোমসকে কল্পনা করা যায়! ধূমপানের চল কমে গেলেও পাইপের আলাদা আকর্ষণ থেকেই যাচ্ছে৷ ফ্রান্সের এক ছোট শহর গোটা বিশ্বের পাইপ রাজধানী হিসেবে ঐতিহ্য ধরে রাখছে৷

ফ্রান্সের স্যাঁ-ক্লোদ শহরে ধূমপানের পাইপের বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে৷ ঊনবিংশ শতাব্দী থেকেই ছোট এই শহরটি গোটা বিশ্বে পাইপ শিল্পের রাজধানী হিসেবে পরিচিত৷ ১৮৬৫ সাল থেকে ‘আতেলিয়ে জেনো' যে পাইপ তৈরি করছে, বিশ্বব্যাপী তার সমাদর রয়েছে৷

সেবাস্তিয়াঁ বো সেখানে পাইপ তৈরির কাজের নেতৃত্ব দিচ্ছেন৷ ৪০ বছর বয়সি মানুষটি ২০০৬ সালে কোম্পানির দায়িত্ব গ্রহণ করেন৷ নিজের কারখানা ঘুরে দেখাতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘‘এখানে পাইপের মাথা বাঁকানো হয়৷ কাঠই মূল উপাদান৷ প্রত্যেকটি যন্ত্রে পাইপের নির্দিষ্ট অংশ প্রস্তুত করা হয়৷ আমরা বড় আকারে উৎপাদন করি৷ অর্থাৎ নির্দিষ্ট মডেল তৈরি করতে আমি  প্রত্যেকটি যন্ত্র প্রস্তুত করি৷ এটা প্রথম ধাপ৷ এই ছাঁচের সাহায্যে আমি পাইপের মাথা, ভেতরের ও বাইরের অংশ তৈরি করি৷''

সেই কাজের আওতায় কাঠ ভালো করে চাঁচতে হয়৷ কাঠের আকার ও মান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশ৷ সব রকম কাঠ পাইপ তৈরির উপযুক্ত নয়৷ সেবাস্তিয়াঁ জানালেন, ‘‘এটা ট্রি হিথ গাছের শিকড়৷ এটাই একমাত্র কাঠ, যা দিয়ে পাইপ তৈরি করা উচিত, কারণ সেটি সহজেই জ্বলতে পারে এবং কোনো নিজস্ব গন্ধ নেই৷ আমাদের পাইপগুলি হেদার উড দিয়ে তৈরি৷''

কাঠের টুকরো থেকে পাইপ তৈরির প্রক্রিয়ার সব মিলিয়ে ৫০টি ধাপ আছে৷ আতেলিয়ে জেনো বছরে ২,০০০ পাইপ তৈরি করে৷ এর এক তৃতীয়াংশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানি করা হয়, এক তৃতীয়াংশ ফ্রান্স এবং বাকি অংশ ইউরোপের অন্যান্য অঞ্চলে বিক্রি করা হয়৷ সেবাস্তিয়াঁ বো বলেন, ‘‘আমাদের যা আছে, তাই দিয়েই কাজ করি৷ বর্জ্যের মাত্রা যতটা সম্ভব কম রাখতে কাঠের ব্লক ঠিকমতো কাটা জরুরি৷''

গোটা শহরজুড়ে পাইপের ইতিহাসের ছাপ থাকলেও সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সেটির গুরুত্ব অনেক কমে গেছে৷ সেইসঙ্গে চাহিদাও কমছে৷

স্যাঁ-ক্লোদ : সেরা পাইপের ঠিকানা

স্যাঁ-ক্লোদ শহরের পাইপ মিউজিয়ামে প্রায় ৩,০০০ পাইপ শোভা পাচ্ছে, যার মধ্যে অনেক বিরল ও হাতে তৈরি পাইপও রয়েছে৷ মিউজিয়ামের প্রধান অঁতোয়ান গ্রেনার নিজেও পাইপ প্রস্তুতকারক৷ তিনি বলেন, ‘‘এখন একমাত্র আমাদের কোম্পানিরই ২০ জনেরও বেশি কর্মী রয়েছেন এবং একমাত্র এখানেই বছরে প্রায় ৫০,০০০ পাইপ তৈরি করা হয়৷ বিংশ শতাব্দীর সূচনার তুলনায় এই সংখ্যাটা হাস্যকর৷ তখন এখানে বছরে তিন কোটি পাইপ উৎপাদন করা হতো৷''

মিউজিয়ামের সংগ্রহে রোজার ভ্যাঁসোঁর হাতে তৈরি শৈল্পিক পাইপও রয়েছে৷ ছয় দশকেরও বেশি সময় ধরে এটাই তাঁর নেশা৷ বাবার কাছে তিনি সেই কাজ শিখেছিলেন৷ মিউজিয়ামের একটি অংশ দেখিয়ে রোজার বলেন, ‘‘এই আধারের মধ্যে রাখা সব পাইপ আমার তৈরি৷ এখানে সব ফরাসি লেখক এবং শেক্সপিয়ারের মতো ব্রিটিশ স্রষ্টাও আছেন৷ এখানে ফ্রান্সের সব প্রেসিডেন্ট এবং ওখানে বড় সুরকারদের দেখা যাচ্ছে৷ আমি মানুষের পোর্ট্রেটও তৈরি করি৷ আপনি চাইলে আপনার প্রতিকৃতিও তৈরি করতে পারি৷ কিন্তু মোটেই সস্তায় হবে না! একটি পোর্ট্রেটের জন্য আমি দেড় হাজার ইউরো পারিশ্রমিক নেই৷ বছরে একটির বেশি করি না৷''

আবার সেবাস্তিয়াঁ বো-র স্টুডিওয় ফেরা যাক৷ আধ ঘণ্টা পর পাইপ প্রস্তুত হয়ে গেছে৷ শেষে কোম্পানির লোগোর ছাপ দিতে হয়৷ এই পাইপ প্রস্তুতকারক নিজের পেশার ভবিষ্যৎ সম্পর্কে আশাবাদী৷ সেবাস্তিয়াঁ বলেন, ‘‘এই পেশা লুপ্তপ্রায় বলে আমি মনে করি না৷ আমরা তরুণদেরও প্রশিক্ষণ দেই৷ বস্তু হিসেবে মানুষ পাইপ পছন্দ করে৷ আগের মতো চল আর না থাকলেও এখনো অনেকে পাইপের অনুরাগী৷''

কয়েক শতাব্দী ধরে নানা রকম আকার-আয়তনের পাইপ টিকে রয়েছে৷ ভবিষ্যতেও অনেকে পাইপ পছন্দ করবেন৷ স্যাঁ-ক্লোদের বাইরেও এর কদর থাকবে৷

কাই হর্স্টমায়ার/এসবি