ফেসবুকের কাছে উত্তর চায় জার্মানি | বিশ্ব | DW | 22.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

ফেসবুকের কাছে উত্তর চায় জার্মানি

জার্মানির বিচারমন্ত্রী কাটারিনা বার্লে ফেসবুক প্রতিষ্ঠাতা মার্ক সাকারবার্গকে তাঁর অফিসে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন৷ ব্যবহারকারীদের তথ্যের নিরাপত্তা সংক্রান্ত কেলেংকারি বিষয়ে তাঁকে কিছু প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে বলে জানান বার্লে৷

সংবাদপত্র প্রকাশক ফুংকে-মিডিয়েনগ্রুপে’কে দেয়া সাক্ষাৎকারে বার্লে এই কেলেংকারিকে গণতন্ত্রের জন্য হুমকি বলেও মন্তব্য করেন৷

পরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি জার্মান ফেসবুক ব্যবহারকারীদের অ্যাকাউন্ট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কিনা এবং এমন ঘটনা যেন ভবিষ্যতে না ঘটে সেজন্য ফেসবুক কী ধরনের পরিকল্পনা গ্রহণ করছে সে তথ্য দিতে ফেসবুকের কাছে দাবি জানান৷

উল্লেখ্য, গত রবিবার ব্রিটেনের অবজারভার ও যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক টাইমস পত্রিকায় প্রকাশিত খবরে জানা যায়, কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা নামে ব্রিটেনের এক কোম্পানি বছর কয়েক আগে ফেসবুকের প্রায় পাঁচ কোটি ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য হাতে পেয়েছিল৷ একটি অ্যাপের সাহায্যে সেটি সম্ভব হয়েছিল৷ অ্যাপটির নাম ছিল ‘দিসইজমাইডিজিটাললাইফ’৷ কেমব্রিজ অ্যানালিটিকার হয়ে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞানের শিক্ষক আলেক্সান্ডার কোগান এটি তৈরি করেছিলেন৷ মূলত কুইজের এই অ্যাপ দিয়ে ২০১৫ সালে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের উপর একটি জরিপ চালানো হয়৷

এর মাধ্যমে কুইজে অংশগ্রহণকারীদের ব্যক্তিত্বের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করেছিল কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা৷ প্রায় তিন লক্ষ ২০ হাজার ফেসবুক ব্যবহারকারী কুইজে অংশ নিয়েছিলেন বলে জানা যায়৷ অর্থাৎ কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা অ্যাপের মাধ্যমে তিন লক্ষ ২০ হাজার জনের বিস্তারিত তথ্য পেয়েছিল৷ তবে শুধু তাই নয়, ফেসবুকের সেই সময়কার নীতি অনুযায়ী, অ্যাপটির মাধ্যমে ঐ তিন লক্ষ ২০ হাজার জনের বন্ধুদেরও বিস্তারিত তথ্য কেমব্রিজ অ্যানালিটিকার হাতে চলে এসেছিল৷ সবমিলিয়ে প্রায় পাঁচ কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য পেয়েছিল ঐ গবেষণা সংস্থাটি৷ পরবর্তীতে এই তথ্য সংস্থাটির সেই সময়কার ক্লায়েন্ট ও বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাচনি প্রচারণায় ব্যবহার করা হয় বলে অভিযোগ উঠেছে৷ ঐসব তথ্যের ভিত্তিতে বিজ্ঞাপন তৈরি এবং ভোটারদের ব্যক্তিত্ব অনুযায়ী তাঁদের কাছে নির্দিষ্ট বার্তা পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হয়৷

এই প্রক্রিয়া ট্রাম্পকে নির্বাচনে জয়ী হতে ভূমিকা রাখে বলে দাবি করেছিলেন কেমব্রিজ অ্যানালিটিকার সদ্য বরখাস্ত প্রধান নির্বাহী আলেক্সান্ডার নিক্স৷ ব্রিটেনের চ্যানেল ফোর-এর একদল ছদ্মবেশী সাংবাদিকের কাছে তিনি এমন মন্তব্য করেছিলেন৷ অবশ্য আনুষ্ঠানিকভাবে কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা ট্রাম্পের প্রচারণায় ফেসবুকের তথ্য ব্যবহার করার বিষয়টি অস্বীকার করেছে৷

সাকারবার্গের ক্ষমাপ্রার্থনা

কেমব্রিজ অ্যানালিটিকার বিষয়টি সামনে আসায় গত কয়েকদিনে ফেসবুকের শেয়ারমূল্যের ব্যাপক দরপতন হয়েছে৷ এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রসহ ব্রিটেন, জার্মানি, ইউরোপীয় পার্লামেন্ট এই ঘটনায় ফেসবুকের সমালোচনা করেছে৷

এমন প্রতিক্রিয়ার জবাবে বুধবার মুখ খোলেন সাকারবার্গ৷ সিএনএনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এই ঘটনায় ‘খুবই দুঃখিত’ বলে জানান৷ সাকারবার্গ বলেন, ‘‘এটি বিশ্বাস ভঙ্গের একটি বড় ঘটনা৷ এমনটা যে ঘটেছে, সেজন্য আমি খুবই দুঃখিত৷ আপনাদের ডাটার নিরাপত্তা দেয়ার দায়িত্ব আমাদের৷ আমরা যদি তা না পারি তাহলে আমরা আপনাদের সেবা দেয়ার দায়িত্ব নিতে পারিনা৷’’ এমন ঘটনা যেন আর না ঘটে তার জন্য ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলেও জানান সাকারবার্গ৷

জেডএইচ/এসবি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন