ফিনল্যান্ডের রান্নার রকমারি স্বাদ | অন্বেষণ | DW | 16.12.2015
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ফিনল্যান্ডের রান্নার রকমারি স্বাদ

ফিনল্যান্ডের একটি ছোট্ট দ্বীপের ওপর রেস্টুরেন্ট খুলেছেন মিকায়েল বিয়র্কলুন্ড৷ নিজেই রেস্টুরেন্টের শেফ৷ রাঁধেন স্থানীয় শাক-সবজি, মাছ, ঝিনুক ইত্যাদি দিয়ে৷ আঞ্চলিক রান্না করতেই ভালোবাসেন মিকায়েল৷

কাস্টেলহল্ম ক্যাসলটি মধ্যযুগের৷ তার কাছেই একটি অপেক্ষাকৃত নতুন বাড়িতে পাবেন ‘স্মকবিন' রেস্টুরেন্ট-টিকে৷ স্মকবিন কথাটার মানে হল ‘যে গ্রামে ভালো খাওয়া-দাওয়া করা যায়'৷ কথাটা সত্যি, কেননা এই রেস্টুরেন্টটি হল একটি বড় প্রকল্পের অঙ্গ৷ রেস্টুরেন্টের শেফ মিকায়েল বিয়র্কলুন্ড বলেন, ‘‘স্মকবিন প্রকল্প থেকে ধীরে ধীরে এমন একটা গ্রাম গড়ে ওঠার কথা, যেখানে মাংস, দুধ, চিজ ইত্যাদি সবই স্থানীয়ভাবে উৎপন্ন হবে৷ আমরা সকলকে দেখাব যে, আমাদের এই উত্তরাঞ্চলেও হাত দিয়ে খাদ্যদ্রব্য তৈরি করা হয়৷''

স্মকবিন রেস্টুরেন্টটি চালু হয় ২০১৩ সালের ডিসেম্বর মাসে৷ এখানে ফিনল্যান্ডের, বিশেষ করে অ-লান্ড অঞ্চলের নানান খাবার-দাবার পাওয়া যায়৷ মিকায়েল বিয়র্কলুন্ড তাঁর অ-লান্ড প্যানকেকের জন্য বিখ্যাত৷

অ-লান্ডের অন্যান্য সব খানদানি রান্নাও আছে, যেমন সেদ্ধ করা সবজির উপর পার্চ মাছ৷ এছাড়া আছে অ-লান্ডের মাখন, যা সুইডেনের সব মানুষ চেনেন৷ স্টকহোমের কিছু নামকরা শেফ অ-লান্ডের মাখন ছাড়া রান্না করেন না৷

পার্চ হল টাটকা জলের মাছ, অ-লান্ডের মানুষজনের খুবই প্রিয়৷ মিকায়েল বললেন, ‘‘আমরা এখানে যে মাছটা রাঁধছি, সেটা হল পার্চ মাছ৷ মাছটা আগেই কেটেকুটে, কাঁটা ফেলে তৈরি করে রাখা হয়েছে৷ আমরা এখানে বলি: কোনো অতিথি যদি কোনো রেস্টুরেন্টে পার্চ মাছ খেতে এসে কাঁটা খুঁজে পান, তবে তাঁর রাঁধুনির কাছ থেকে একটা চুমু পাওনা থাকে৷ প্রতিটি কাঁটার জন্য একটি করে চুমু৷''

14.10.2014 DW EUROMAXX a la carte Barsch Koch

রান্না করছেন মিকায়েল বিয়র্কলুন্ড

সবজিগুলোও অ-লান্ড থেকেই এসেছে৷ মিকায়েল বিয়র্কলুন্ড উৎকর্ষে বিশ্বাসী৷ দামি রেস্টুরেন্টের রান্না একটু গ্রাম্য হলেও তাঁর কোনো আপত্তি নেই৷ মিকায়েল জানালেন, ‘‘যখন দেখি, এখানকার মাঠে-ঘাটে-বাগানে কি ফলছে, তখন কিচেনেও একটু আঞ্চলিক স্বাদ আনতে ইচ্ছে করে৷ এভাবে রান্না করাটা উন্নাসিক ‘গুরমে' রান্নার চেয়ে অনেক বেশি মজার৷ এভাবে রান্না করতেই ভালো লাগে৷''

চল্লিশ বছর বয়সি মিকায়েল বিয়র্কলুন্ড নিজেকে খাবার-দাবারের জগতের ম্যানেজার বলে মনে করেন৷ নিজে কুকবুক লেখেন, ফিনিশ টেলিভিশনে বহু বছর ধরে তাঁর নিজের কুকিং শো চলেছে৷ মিকায়েল কাজ শিখেছেন অংশত দেশের বাইরে৷ ফ্রান্সের প্রখ্যাত শেফ পল বোকুজ-এর সঙ্গেও কিছুদিন ছিলেন৷

প্রথমে অল্প সেদ্ধ করা সবজি, তার ওপর মাখনে ভাজা পার্চ মাছের ‘ফিলে'৷ মিকায়েল বিয়র্কলুন্ড গোটা ডিশটা সার্ভ করেন ঝিনুকের মাংসের ‘সস' দিয়ে৷ উৎসাহ দিয়ে বললেন: ‘‘অ-লান্ডের ঝিনুকগুলোর স্বাদই আলাদা৷ একবার পরখ করে দেখুনই না৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

বিজ্ঞাপন