ফখরুদ্দিন, মইন-এর বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলার সুপারিশ | বিশ্ব | DW | 21.12.2011
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

ফখরুদ্দিন, মইন-এর বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলার সুপারিশ

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপেদেষ্টা ড. ফখরুদ্দিন আহমেদ এবং সেসময়ের সেনা প্রধান মইন ইউ আহমেদসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলার সুপারিশ করেছে সংসদীয় উপ কমিটি৷

বাংলাদেশের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপেদেষ্টা ড. ফখরুদ্দিন আহমেদ

বাংলাদেশের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপেদেষ্টা ড. ফখরুদ্দিন আহমেদ

কমিটি মঙ্গলবার তাদের রিপোর্ট পেশ করেছে৷ বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সহিংসতার ঘটনায় নির্যাতিত শিক্ষকদের একজন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, কোন প্রতিহিংসার জন্য নয় গণতন্ত্রের জন্যই দায়ীদের বিচার হওয়া উচিত৷

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় ২০০৭ সালের আগষ্ট মাসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠে খেলা দেখাকে কেন্দ্র করে ছাত্রদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন সেনা সদস্যরা৷ ওই সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠ সংলগ্ন জিমনেশিয়ামে সেনা ক্যাম্প ছিল৷ এই ঘটনায় প্রতিক্রিয়ায় ২০শে আগষ্ট থেকে ২৪শে আগষ্ট পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সহ দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিক্ষোভ দমন করতে ছাত্র ও শিক্ষকদের ওপর ব্যাপক দমন নির্যাতন চালান হয়৷ গ্রেফতার করা হয় ৬ জন শিক্ষসহ শতাধিক ছাত্রকে৷ গ্রেফতারের পর মামলা দায়ের করে তাদের ওপর নিপীড়ন চালান হয়৷ বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর গত বছর শিক্ষামন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির একটি উপকমিটি ওই ঘটনার তদন্ত শুরু করে৷ কমিটি তদন্ত শেষ করে মঙ্গলবার তাদের রিপোর্ট জমা দিয়েছে৷কমিটির প্রধান রাশেদ খান মেনন এমপি জানান, এই ঘটনার জন্য প্রধানত দায়ী তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক প্রধান উপেদষ্টা ড. ফখরুদ্দিন আহমেদ এবং সেসময়ের সেনা প্রধান মইন ইউ আহমেদ৷ এছাড়া সেসময়ের পুলিশ প্রধান ও প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা কর্মকর্তারা এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত৷ তাদের ৬ জনের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলার সুপারিশ করা হয়েছে৷

কমিটি তাদের রিপোর্টে ১১টি পর্যবেক্ষণ এবং ১৩টি সুপারিশ করেছে৷ তখন ছাত্রদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার এবং এধরনের ঘটনা যাতে আর না ঘটে তার জন্য সিন্ডেকটের অনুমোদন ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ে সেনা ক্যাম্প বা এরকম কিছু স্থাপনের বিরোধিতা করেছে কমিটি৷

রিপোর্ট পেশের পর প্রতিক্রিয়ায় সেসময়ে সেনা সদস্যদের হাতে আটক এবং নির্যাতনের শিকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেন, আরো অনেক নির্যাতনকারী আছে যাদের চিহ্নিত করা যায়নি৷ তিনি বলেন, গণতন্ত্রের স্বার্থেই তাদের আইনের আওতায় আনা প্রয়োজন৷

সংসদীয় কমিটির এই রিপোর্ট সংসদের আগামী অধিবেশনে আলোচনার জন্য উত্থাপন করা হবে৷

প্রতিবেদন: হারুন উর রশীদ স্বপন, ঢাকা

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন