প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে ঝাড়লণ্ঠন তৈরি করছেন চেক শিল্পী | অন্বেষণ | DW | 25.11.2021

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে ঝাড়লণ্ঠন তৈরি করছেন চেক শিল্পী

পরিবেশ দূষণের জন্য প্লাস্টিকের যথেচ্ছ ব্যবহার অনেকাংশেই দায়ী৷ প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে স্থাপত্য সৃষ্টি করে সে বিষয়ে সচেতনতা বাড়ানোর চেষ্টা করছেন এক চেক শিল্পী৷ প্লাস্টিকের এমন বিকল্প ব্যবহারও পরিবেশের জন্য উপকারী৷

অতীতের জঞ্জাল ভবিষ্যতের শিল্পকীর্তি হয়ে উঠছে৷ ফেলে দেওয়া প্লাস্টিকের বোতল রিসাইক্লিংয়ের দৌলতে ভাস্কর্যে পরিণত হচ্ছে৷ এই উদ্যোগের পেছনে রয়েছেন চেক প্রজাতন্ত্রের শিল্পী ভেরোনিকা রিশত্রোভা৷ ২০০৪ সাল থেকে তিনি এমন সৃষ্টি করে চলেছেন৷
ভেরোনিকা প্রাগের কাছে বুশটিয়েরাট শহরে বাস করেন৷ প্রাগ ও প্যারিসে তিনি শিল্পকলা, স্থাপত্য ও ডিজাইন নিয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেছেন৷ ফ্রান্সে তিনি মূলত পুরানো ধাতু নিয়ে কাজ করেছেন৷ স্থাপত্যের উপকরণ হিসেবে প্লাস্টিক ব্যবহারের কোনো পরিকল্পনা ছিল না৷ ভেরোনিকা বলেন, ‘‘সেটা ছিল কাকতালীয় ঘটনা৷ জানি না, কাকতালীয় ছিল না উপর থেকে যেন আমার কাছে নির্দেশ এসেছিল৷ একবার গরম বাতাস নিয়ে কাজ করছিলাম এবং পানীয় শেষ করার পর বোতলটি গরম করছিলাম৷ ঠিক সেই মুহূর্তে স্থাপত্যের জন্য এই উপকরণ ব্যবহারের আইডিয়া এসেছিল৷ সবাই বলেছিলো, তুমি কি পাগল! এ তো জঞ্জাল!''
পলিইথিলিন টেরেফথালেট দিয়ে পেট বোতল তৈরি করা হয়৷ পেট্রোলিয়াম দিয়ে তৈরি বলে প্লাস্টিক পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর৷ প্লাস্টিকের ক্ষয় হতে দীর্ঘ সময় লাগে৷
তথাকথিত ‘পেট আর্ট'-এর মাধ্যমে ভেরোনিকা উপাদান হিসেবে প্লাস্টিকের প্রতি এক নতুন দৃষ্টিভঙ্গি এবং সৃজনশীল রিসাইক্লিংয়ের বিস্ময়কর সম্ভাবনা তুলে ধরছেন৷ বর্তমানে তিনি এক ঝাড়লণ্ঠন তৈরির কাজে ব্যস্ত৷ ভেরোনিকা জানান, ‘‘কাজ শুরু করার সময় একটা আইডিয়া থাকে৷ প্রায়ই দেখি, সেই আইডিয়া কাজ করছে না৷ তখন হয় অন্য কৌশল প্রয়োগ করতে হয় অথবা অন্য বোতলের খোঁজ করতে হয়৷ কাজ করতে করতে বুঝতে পারি, কীভাবে সেটি করা সম্ভব৷''
এই চেক শিল্পী প্লাস্টিক জঞ্জাল থেকে শিল্পসৃষ্টি করতে নানা কৌশল আবিষ্কার করেছেন৷ প্লাস্টিকের বোতল গরম করে, গলিয়ে, কেটে এবং জোড়া দিয়ে ভেরোনিকা নানা ধরনের বস্তুর রূপ দিচ্ছেন৷ তাঁর মতে, কীভাবে ধরতে হয়, কোন তাপমাত্রায় কতক্ষণ গরম করতে হয়, সেসব জানতে হবে৷ অভিজ্ঞতাই আসল কথা৷


তাঁর বাগানবাড়ি ও ছোট চালা ঘর নানা রং ও আকার-আকৃতির হাজার হাজার পেট-বোতলের গুদাম হয়ে উঠেছে৷ নিজের উদ্যোগ সম্পর্কে ভেরোনিকা বলেন, ‘‘আমার শিল্পের মাধ্যমে পৃথিবী বাঁচাতে পারবো বলে মনে করি না৷ তবে জিনিসপত্রের যে পুনর্ব্যবহার করা যায়, বিশ্বকে আমি সেটা দেখাতে চাই৷ কোনো কিছু সৃষ্টির পর প্রায়ই কিছু প্লাস্টিকের বোতল পড়ে থাকে৷ যেমন এটি এক মাছির শরীর হয়ে উঠবে৷ তারপরেও যা উদ্বৃত্ত থাকবে, সেটি দিয়েও গাছ বা অন্য কিছু তৈরি হবে৷ সেটা থেকে প্রেরণা পাই৷ কখনো তা শেষ হয় না৷''
অর্ডার অনুযায়ী এই শিল্পকর্ম তৈরি করেছেন ভেরোনিকা৷ ৮০০ ইউরো মূল্যে সেটি বিক্রিও হয়ে গেছে৷ এই কাজে তিনি ৪০টি বোতল পুনর্ব্যবহার করেছেন৷ ভেরোনিকার প্লাস্টিক শিল্প একই সঙ্গে সৃজনশীল ও পরিবেশবান্ধব৷
রেগিনা নিডেনসু/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক