প্রয়োজনে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত ভারতের সেনা: জেনারেল রাওয়াত | বিশ্ব | DW | 25.08.2020

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

প্রয়োজনে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত ভারতের সেনা: জেনারেল রাওয়াত

কূটনৈতিক স্তরে সমাধানসূত্র না বেরোলে ভারতের সেনা জবাব দেবে। জানিয়ে দিলেন ভারতের সামরিক প্রধান বিপিন রাওয়াত।

ভারতের সেনা চীনকে জবাব দেওয়ার জন্য তৈরি। প্রয়োজনে জবাব দেওয়াও হবে। মন্তব্য করলেন ভারতের সামরিক বাহিনীর প্রধান জেনারেল বিপিন রাওয়াত। যা নিয়ে ফের কূটনৈতিক মহলে বিতর্ক দানা বেঁধেছে।

এ বছর এপ্রিল মাসের শেষ থেকেই ভারত এবং চীনের মধ্যে সীমান্ত বিতর্ক শুরু হয়। মে মাসে প্রথমে সিকিম সীমান্তে, তারপর লাদাখের প্যাংগং সেক্টরে সংঘাত বাড়ে। দুই দেশের সেনার মধ্যে হাতাহাতিও হয়। তবে সব চেয়ে বড় সংঘাত হয় ১৫ জুন গালওয়ানে। ১৪ নম্বর পোস্টে সারা রাত ধরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে বহু ভারতীয় সেনা নিহত হন। তারপরেই কার্যত যুদ্ধ পরিস্থিতি তৈরি হয় দুই দেশের মধ্যে। চীন এবং ভারত দুই পক্ষই সীমান্তের ধারে সেনার সংখ্যা কয়েক গুণ বৃদ্ধি করে। বায়ুসেনাও সীমান্তের কাছে যুদ্ধবিমান নিয়ে যায়।

তবে দুই দেশই কূটনৈতিক ভাবে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা শুরু করেছে মে মাস থেকেই। ১৫ জুনের ঘটনার পর একদিকে যেমন স্ট্যান্ড অফ হয়েছে, অর্থাৎ, দুই দেশের সেনা মুখোমুখি দাঁড়িয়ে থেকেছে, অন্যদিকে কূটনৈতিক, রাজনৈতিক এবং সেনাস্তরে একের পর এক বৈঠক হয়েছে। সেনা স্তরে চার দফা বৈঠকের পর সিদ্ধান্ত হয়েছিল, দুই দেশই সীমান্ত থেকে সেনা সরিয়ে নেবে। বস্তুত, কূটনৈতিক স্তরে ভারতের এনএসএ অজিত ডোভাল এবং চীনের বিদেশমন্ত্রী বৈঠক করেন। ভারত এবং চীনের বিদেশমন্ত্রীও বৈঠক করেছেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কোনও বৈঠকই ফলপ্রসূ হয়নি। ভারতের অভিযোগ, চীন প্যাংগং এবং গোগরা হট স্প্রিং অঞ্চল থেকে সেনা সরায়নি। ডেপসাং নিয়ে দুই দেশের মধ্যে বিতর্কও এখনও অব্যাহত। চীনের দাবি, ভারত প্যাংগংয়ের আট নম্বর ফিঙ্গার পয়েন্ট পর্যন্ত পেট্রলিং করতে চাইছে। কিন্তু চার নম্বর ফিঙ্গার পয়েন্টের পিছনে তারা যেতে রাজি নয়। এই পরিস্থিতিতে আপাতত আলোচনার মাধ্যমে সমাধান সূত্র মিলবে না বলেই কোনও কোনও বিশেষজ্ঞ মনে করছেন।

সরকারি ভাবে ভারতের বক্তব্য, যুদ্ধ কোনও সমাধান সূত্র নয় বলেই তারা মনে করে। ভারতের বিশ্বাস কূটনৈতিক এবং রাজনৈতিক স্তরে আন্তরিক আলোচনাই সমাধানের রাস্তা খুলে দেবে। কিন্তু সেখান থেকে সমাধান সূত্রে পৌঁছনো না গেলে ভারত যে জবাব দেওয়ার জন্য সেনাবাহিনী প্রস্তুত রেখেছে, সে কথাই বলেছেন জেনারেল রাওয়াত।

ভিডিও দেখুন 16:17

‘শীতের আগে সংঘাত না থামলে ভারতের সমস্যা বাড়বে’

ভারতীয় সেনার সাবেক লেফটন্যান্ট জেনারেল উৎপল ভট্টাচার্য ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, ''রাজনৈতিক, কূটনৈতিক এবং সেনা স্তরে বেশ কিছু রাউন্ড আলোচনা হয়ে গিয়েছে। সমাধান সূত্রে পৌঁছনোর রাস্তাই এখনও খোলেনি। ফলে সেনা বাহিনীকে প্রস্তুত রাখতেই হবে। মাথায় রাখতে হবে, শীত এগিয়ে আসছে। ফলে ওই উচ্চতায় সেনাকে প্রস্তুত রাখা যথেষ্ট কঠিন। জেনারেল রাওয়াত সে কথাই বলেছেন। আর এ ধরনের মন্তব্য সেনা বাহিনীর মনোবলও বাড়ায়।''

২০১৭ সালে ভারত এবং চীনের মধ্যে ডোকলাম সংকট হয়েছিল। ৭২ দিন দুই দেশের সেনা মুখোমুখি দাঁড়িয়েছিল। সে সময় ভারতীয় সেনার চিফ অফ স্টাফ ছিলেন জেনারেল রাওয়াত। এনএসএ ছিলেন অজিত ডোভাল। জয়শংকর ছিলেন বিদেশ সচিব। ভারতীয় সরকার মনে করে, এই তিনজনই ডোকলামে সাফল্যের প্রধান কারিগর। কোনও কোনও বিশেষজ্ঞের বক্তব্য, মোদী সরকার ভেবেছিল, এ বারেও এই তিনজনই দ্রুত সমস্যা সমাধানের রাস্তা তৈরি করতে পারবে। বস্তুত, ১৫ জুনের পর এই তিনজনই চীনের সঙ্গে একের পর এক আলোচনার রাস্তা তৈরি করে। জয়শংকর এবং ডোভাল নিজেরাই দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে বসেছেন। রাওয়াতের নেতৃত্বাধীন সেনা কম্যান্ডাররা একাধিক বার বৈঠকে বসেছেন। কিন্তু সমাধানের রাস্তাই এখনও পর্যন্ত খোলা যায়নি। ফলে কূটনৈতিক ভাবে এই তিনজনের উপরেও চাপ বাড়ছে।

রাওয়াতের মন্তব্যে তার আভাস আছে বলেও অনেকে মনে করছেন। শীতের আগে সমাধানের রাস্তা যে বেরনো প্রয়োজন, তা সকলেই বুঝতে পারছেন। বস্তুত, দুই দিন আগেই জেনারেল রাওয়াত সহ সামরিক বাহিনীর তিন প্রধানের সঙ্গে বৈঠক করেছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। বৈঠকে অজিত ডোভালও ছিলেন। ভারত যে বিকল্প রাস্তা তৈরি করে রাখছে, তা এখন অনেকটাই স্পষ্ট। রাওয়াতের মন্তব্যেও সেই ইঙ্গিত রয়েছে।