প্রোটিনের চাহিদা পূরণ করতে পারে সামুদ্রিক উদ্ভিদ | অন্বেষণ | DW | 04.03.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

প্রোটিনের চাহিদা পূরণ করতে পারে সামুদ্রিক উদ্ভিদ

মানুষের পুষ্টি, বিশেষ করে প্রোটিনের চাহিদা মেটানো মানুষের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ৷ সমুদ্রের নীচে অ্যালজি সেই চাহিদা পূরণ করতে পারে৷ একটি কোম্পানি গবেষণাগারে বড় আকারে অ্যালজি চাষ করে সেই লক্ষ্যে অগ্রসর হচ্ছে৷

কাচের ছোট চোঙার মধ্যে ক্লোরেলা নামের মাইক্রো-অ্যালজি বেড়ে উঠছে৷ সালোকসংশ্লেষ পদ্ধতির জন্য মিঠা পানি, পুষ্টি, কার্বন-ডাই-অক্সাইড ও সূর্যের আলো প্রয়োজন৷ ইয়োর্গ উলমান এ ক্ষেত্রে পথিকৃতের ভূমিকা পালন করছেন৷ গত ৭ বছর ধরে তিনি রোকেট ক্ল্যোৎসে কোম্পানির প্রধান৷ ইয়োর্গ বলেন, ‘‘এখানে ৫০০ কিলোমিটার দীর্ঘ ও প্রায় ৬ লক্ষ লিটার পরিমাণ কাচের চোঙা রয়েছে৷ তার সাহায্যে মার্চ থেকে নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত মরসুমে আমরা ৩০ থেকে ৬০ টন বায়োমাস উৎপাদন করতে পারি৷''

প্রায় ১ দশমিক ২ হেক্টর এলাকায় ৫০ টন অ্যালজি বায়োমাস উৎপাদিত হচ্ছে৷ সেই আয়তনের জমিতে বড়জোর ৭ থেকে ৮ টন গম উৎপাদন করা সম্ভব৷ তাছাড়া ক্লোরেলা অ্যালজির মধ্যে প্রোটিনের অনুপাত ৫০ শতাংশেরও বেশি৷ ডিম ও মাংসেও এমনটা পাওয়া যায় না৷ অন্য প্রজাতির অ্যালজিরও চাহিদা রয়েছে৷ ইয়োর্গ উলমান বলেন, ‘‘এর মধ্যে আমরা প্রায় ১২টি প্রজাতির মাইক্রো-অ্যালজি উৎপাদন করছি৷  তার একটা বড় অংশ পাউডার বা অন্য রূপে সাপ্লিমেন্ট হিসেবে ব্যবহার করা হয়৷ আমরা খাদ্য ও কসমেটিক শিল্পের কাছে কাঁচামালও বিক্রি করি৷ প্রাণীদের খোরাকেও তা ব্যবহার করা হয়৷ গোটা বিশ্বেই আমাদের বাজার ছড়িয়ে রয়েছে৷ ইউরোপে বিক্রি করছি৷ উত্তর অ্যামেরিকায় ক্যানাডা ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি এশিয়া মহাদেশেও আমরা রপ্তানি করি৷''

গবেষণাগারই কোম্পানির প্রাণকেন্দ্র৷ সেখানে অনেক প্রজাতির অ্যালজির নমুনা রাখা আছে৷ প্রায় ৬৫ বছর ধরে অ্যালজি ও খাদ্য নিয়ে গবেষণা চলছে৷ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানতে পারে, যে বিশ্বের জনসংখ্যার প্রায় এক চতুর্থাংশ প্রোটিনের অভাবে ভুগছে৷ ফলে তখন থেকেই স্পিরুলিনা বা ক্লোরেলার মতো উচ্চ মাত্রার প্রোটিন-সমৃদ্ধ অ্যালজির পরীক্ষা শুরু হয়েছে৷ রোকেট ক্ল্যোৎসে কোম্পানির কর্ণধার ইয়োর্গ উলমান বলেন, ‘‘এই গবেষণাগারে বলতে গেলে প্রথমবার অ্যালজি চাষ হচ্ছে৷ ক্ষুদ্র এককোষী চারা থেকে প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে৷ দিনে একবার সেটি ২ থেকে ১৬টি কোষে বিভক্ত হয়ে পড়ছে৷ আমরা অভাবনীয় এই বৃদ্ধি প্রত্যক্ষ করছি৷ গবেষণাগারে ধারাবাহিকভাবে পরিমাণ বাড়িয়ে চলাই আমাদের লক্ষ্য৷ নির্দিষ্ট পরিমাণ উৎপাদন সম্ভব হলে গ্রিনহাউসে গিয়ে উৎপাদন শুরু করাই লক্ষ্য৷''

তবে সব প্রজাতির অ্যালজির বৃদ্ধি এত দ্রুত হয় না৷ ফলে বড় আকারে সেগুলির উৎপাদন সম্ভব নয়৷ জুরিখ বিজ্ঞান-প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আলেক্সান্ডার মাটিস ও তাঁর সহকর্মীরা সে ক্ষেত্রেও উন্নতি আনতে চান৷ আলেক্সান্ডার বলেন, ‘‘বর্তমানে অত্যন্ত ধীর গতিতে অ্যালজির বৃদ্ধি ঘটছে৷ চাষের শেষে যে পরিমাণ পাওয়া যাচ্ছে, তা খুবই কম৷ ফলে মাইক্রো-অ্যালজির উৎপাদন ও প্রক্রিয়াজাতকরণের ব্যয় খুব বেশি হচ্ছে৷''

ভিডিও দেখুন 04:38

অ্যালজি থেকে তৈরি হয় বিদ্যুৎ

হাই ভোল্টেজ পাল্স সিমুলেশন পদ্ধতির মাধ্যমে গবেষকরা অ্যালজির বৃদ্ধির গতি বাড়ানোর চেষ্টা করছেন৷  অ্যালজির মধ্যে বিশাল সম্ভাবনা লুকিয়ে রয়েছে৷ আলেক্সান্ডার মাটিস মনে করেন, ‘‘মাইক্রো-অ্যালজি থেকে আমরা মাংসের বিকল্প পদার্থ তৈরি করতে পারি৷ অ্যালজির প্রোটিন আমরা মাংসের মতো কাঠামোয় আনতে পারি৷ উদ্ভিদজাত প্রোটিন খাদ্য তৈরি করে মাংসের চাহিদা কমিয়ে আনতে পারি৷''

রোকেট ক্ল্যোৎসে কোম্পানি কয়েক লক্ষ ইউরো মূল্যের অ্যালজি বিক্রি করতে চায়৷ চাহিদা এর মধ্যেই এত বেড়ে গেছে, যে নতুন এক উৎপাদনকেন্দ্র নির্মাণের কাজ চলছে৷ পরীক্ষামূলক উৎপাদন প্রক্রিয়াও অব্যাহত রয়েছে৷

লিৎস হরোভিৎস/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন