প্রাচীরের স্বার্থে প্রাচীর গড়ে তুলছেন ট্রাম্প | বিশ্ব | DW | 09.01.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

প্রাচীরের স্বার্থে প্রাচীর গড়ে তুলছেন ট্রাম্প

মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর গড়ার প্রতিশ্রুতি পালন করতে বিরোধী দলের সঙ্গে চরম সংঘাতে জড়িয়ে পড়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প৷ ফলে প্রশাসনে অচলাবস্থা কাটার কোনো লক্ষণ এখনো দেখা যাচ্ছে না৷

ধীরে ধীরে ঘরে-বাইরে আরো কোণঠাসা হয়ে পড়ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ ক্ষমতায় আসার পর প্রথম দুই বছর সংসদের উভয় কক্ষে নিজের রিপাবলিকান দলের সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় নিজের ইচ্ছামতো অনেক পদক্ষেপ নিতে পেরেছেন তিনি৷ কিন্তু মিডটার্ম নির্বাচনে হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভে ডেমোক্র্যাটদের আধিপত্যের পর সেই সুবিধা হারিয়েছেন তিনি৷ ফলে শুরুতেই সংঘাতে জড়িয়ে পড়েছেন ট্রাম্প৷ তার জের ধরে বাজেট নিয়ে চরম অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে৷ ‘শাটডাউন'-এর কারণে মার্কিন প্রশাসনের অনেক কার্যকলাপ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে গেছে, অনেক সরকারি কর্মী বেতন পাচ্ছেন না৷ সংশ্লিষ্ট কনট্রাক্টরদের আয়ও বন্ধ হয়ে গেছে৷

এমন প্রেক্ষাপটে মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিলেন ট্রাম্প৷ তবে তাতেও আপোশের তেমন সুর শোনা গেল না৷ মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর নির্মাণের প্রতিশ্রুতি পালন করতে ট্রাম্প বদ্ধপরিকর রয়েছেন৷ তার ব্যয় হিসেবে মার্কিন কংগ্রেসের উদ্দেশ্যে তিনি আবার ৫৭০ কোটি ডলার মঞ্জুর করার ডাক দিলেন৷ ট্রাম্প অবশ্য আগের হুমকিমতো জাতীয় আপৎকালীন পরিস্থিতি ঘোষণা করেননি৷ সেক্ষেত্রে তিনি কংগ্রেসকে এড়িয়ে সরাসরি সামরিক তহবিল থেকে প্রাচীর তৈরির অর্থ আদায় করতে পারেন৷ জনগণের উদ্দেশে তিনি এই প্রাচীরের প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে বলেন, মেক্সিকো সীমান্তে নিরাপত্তা ও মানবিক সংকট বেড়ে চলায় এই পদক্ষেপ কার্যকর করা জরুরি হয়ে উঠেছে৷ তাঁর মতে, বেআইনি অনুপ্রবেশকারী ও মাদকপাচারকারীদের কারণে অ্যামেরিকার নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়ছে৷ তিনি প্রশ্ন তোলেন, ‘‘আর কত মার্কিন রক্ত বওয়ার পর কংগ্রেস তার কাজ করবে?''

অ্যামেরিকায় জনমানসে সরকারি অচলাবস্থার বিরুদ্ধে ক্ষোভ বেড়েই চলেছে৷ একটি জনমত সমীক্ষা অনুযায়ী, প্রায় ৫১ শতাংশ মানুষ এই শাটডাউনের জন্য ট্রাম্পকে দায়ী করছেন৷ ফলে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্প তাঁর প্রতি সমর্থন নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন৷ গত মাসে তিনি বলেছিলেন, প্রাচীর গড়ার স্বার্থে তিনি গর্বের সঙ্গে সরকারের কাজকর্ম বন্ধ করে দেবেন৷

বিরোধী ডেমোক্র্যাটিক দলের নেতারাও টেলিভিশনে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ভুল তথ্য ছড়িয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করার অভিযোগ করেন৷ স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি বলেন, ‘‘প্রেসিডেন্ট ভয়ভীতির পথ বেছে নিয়েছেন৷ আর আমরা তথ্য দিয়ে যুক্তি তুলে ধরতে শুরু করেছি৷ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প জনস্বাস্থ্য, নিরাপত্তা ও অ্যামেরিকার মানুষের কল্যাণকে জিম্মি করার পথ বেছে নিয়েছেন৷ গোটা দেশ জুড়ে প্রায় ৮ লক্ষ নিরপরাধ কর্মীর বেতন বন্ধ করে দিয়েছেন তিনি৷'' 

এই অবস্থায় রিপাবলিকান দলের সংসদ সদস্যদের মধ্যেও অস্বস্তি বেড়ে চলেছে৷ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যেভাবে এই সংকট সামলানোর চেষ্টা করছেন, তার বিরুদ্ধে দলের মধ্যেও অসন্তোষ বাড়ছে৷ বুধবার ট্রাম্প হোয়াইট হাউসে উভয় দলের সদস্যদের সঙ্গে এক বৈঠক করবেন বলে জানিয়েছেন৷

এসবি/এসিবি (রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন