প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে | বিশ্ব | DW | 01.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত

প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে

মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস করার অভিযোগ উঠলো উত্তরবঙ্গের একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে৷ ইতিমধ্যেই তাঁকে ডেকে পাঠানো হয়েছে কলকাতায়৷ তাঁর সঙ্গে রাজনীতির যোগ থাকার অভিযোগও উঠেছে৷

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

অভিযোগ আগেও ছিল৷ দু-একবার বিষয়টি নিয়ে আলোড়নও হয়েছে৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি৷ ফলে অভ্যাসটি থেকেই গিয়েছে৷ আরো একবার যা প্রমাণিত হলো৷ অভিযোগ, পশ্চিমবঙ্গের উত্তরে ময়নাগুড়ির সুভাষনগর হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক মাধ্যমিকের প্রশ্নপত্র ফাঁস করে দিয়েছিলেন৷ ইতিমধ্যেই বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে৷ উচ্চমাধ্যমিকের সমস্ত দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে ওই প্রধান শিক্ষককে৷

২৩ বছর আগে ময়নাগুড়ির সুভাষনগর হাইস্কুলে সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন হরিদয়াল রায়৷ কিছুদিনের মধ্যেই প্রধান শিক্ষকের পদ লাভ করেন তিনি৷ অভিযোগ, সে সময় সুভাষনগর হাইস্কুলের অবস্থা খুব ভালো ছিল না৷ এলাকায় স্কুলটির বিশেষ নামডাকও ছিল না৷ কিন্তু হরিদয়াল কাজে যোগ দেওয়ার পর থেকে ক্রমশ স্কুলটি নাম করতে শুরু করে৷ মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিকের মেধা তালিকায় নাম আসতে শুরু করে ছাত্রদের৷ অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন, তাহলে কি অসৎ উপায়েই ছাত্রদের কাছে প্রশ্ন ফাঁস করে দিয়ে এমন সাফল্য পেতেন হরিদয়াল?

অভিযোগ, এ বছর মাধ্যমিক পরীক্ষার সময় হরিদয়ালের প্রশ্ন ফাঁস করার বিষয়টি হাতেনাতে ধরা পড়ে যায়৷ বিষয়টি নিয়ে বেশ কিছুদিন জলঘোলাও হয়৷ অভিযোগ, এলাকার তৃণমূল নেতৃত্বের সঙ্গে সুসম্পর্ক ছিল হরিদয়ালের৷ তিনি নিজেও তৃণমূলের শিক্ষক সংগঠনের অংশ ছিলেন৷ যদিও প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর এলাকার তৃণমূল নেতৃত্ব হরিদয়ালের সঙ্গে নিরাপদ দূরত্ব তৈরি করেছে৷ নেতৃত্বের দাবি, দোষ প্রমাণ হলে হরিদয়ালের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নেওয়া উচিত৷ বস্তুত, একই কথা বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়৷ তিনি জানিয়েছেন, রাজ্য সরকার হরিদয়ালকে শিক্ষারত্ন পুরস্কার দিয়েছিল৷ অভিযোগ প্রমাণ হলে সেই সম্মানও কেড়ে নেওয়া হবে৷

ইতিমধ্যেই হরিদয়ালকে কলকাতায় মাধ্যমিক বোর্ডের দফতর মধ্যশিক্ষা পর্ষদে ডেকে পাঠানো হয়েছে৷ সেখানে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে খবর৷

শিক্ষাবিদরা অবশ্য অন্য প্রশ্ন তুলছেন৷ তাঁদের প্রশ্ন, একা হরিদয়ালকে শাস্তি দিলেই সমস্যার সমাধান হবে তো? তাঁদের ধারণা, রাজ্য জুড়ে এমন অনেক হরিদয়াল ছড়িয়ে আছেন৷ অর্থ এবং সম্মানের লোভে যাঁরা এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়ে চলেছেন দিনের পর দিন৷ কিন্তু রাজনৈতিক সংস্রব থাকার কারণে তাঁদের দোষ ধরা পড়ে না৷ হরিদয়াল হাতেনাতে ধরা না পড়লে তাঁর বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হতো না বলেই তাঁদের সন্দেহ৷

অন্যদিকে হরিদয়াল তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগই অস্বীকার করেছেন৷ তাঁর দাবি, তিনি রাজনৈতিক চক্রান্তের শিকার৷

ভারতের উত্তরপ্রদেশ এবং বিহারে প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়া নতুন কোনো ঘটনা নয়৷ প্রতি বছরই এ ধরনের অভিযোগ সেখানে ওঠে৷ কিছুদিন আগে এ নিয়ে বহু সমালোচনাও হয়েছিল দেশজুড়ে৷ পশ্চিমবঙ্গেও এ ধরনের অভিযোগ বেশ কয়েকবার উঠেছে৷ প্রশ্ন ফাঁস হয়ে যাওয়ার কারণে মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার কোনো কোনো বিষয়ে দু'বার করে পরীক্ষা নেওয়ার ঘটনাও ঘটেছে অতীতে৷ বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা না নিলে এবং সিস্টেমের ভেতরের ভূত তাড়াতে না পারলে এ ঘটনা চলতেই থাকবে৷

এসজি/এসিবি (আনন্দবাজার পত্রিকা, পিটিআই)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন