প্রশ্নপত্র ফাঁসের দায়ে তুরস্কে ১,১১২ জন গ্রেপ্তার | বিশ্ব | DW | 12.02.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

তুরস্ক

প্রশ্নপত্র ফাঁসের দায়ে তুরস্কে ১,১১২ জন গ্রেপ্তার

মঙ্গলবার তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারাসহ মোট ৭৬টি প্রদেশে অভিযান চালিয়ে প্রশ্নপত্র ফাঁসের দায়ে ১,১১২জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ সরকারপক্ষে জানানো হয়, অভিযুক্তরা যুক্তরাষ্ট্র-নিবাসী ইসলামী প্রচারক ফেতুল্লাহ গুলেনের অনুসারী৷

২০১৬ সালে রাষ্ট্রপতি রেচেপ তাইয়্যিপ এর্দোয়ানকে ক্ষমতাচ্যুত করার উদ্দেশ্যে  তুরস্কে একটি সামরিক অভ্যুত্থানের চেষ্টা হয়৷ তখন সরকার টলাতে না পারলেও সংঘর্ষে মারা যান আড়াইশ' মানুষ৷ ক্ষয়ক্ষতিও হয় বিপুল৷

রাষ্ট্রপতি এর্দোয়ান অভিযোগের আঙুল তোলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভ্যানিয়া নিবাসী ইসলামী প্রচারক ফেতুল্লাহ গুলেনের দিকে৷ উল্লেখ্য, এর্দোয়ানবিরোধী হিসেবে পরিচিত গুলেন সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন৷

পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস

২০১০ সালে তুরস্ক পুলিশের একটি পরীক্ষা আয়োজিত হয়৷ যে পুলিশ অফিসাররা ডেপুটি ইন্সপেক্টর পদে নিযুক্ত হতে চান, তাদের জন্য ছিল এই পরীক্ষা৷ কিন্তু সেই সময় পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়ে যায়৷ ফলে বাতিল করতে হয় পরীক্ষাটি৷

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীদের মতে, প্রশ্নফাঁসের পেছনে গুলেনের ভূমিকা ছিল৷ ফলে, গুলেনপন্থি পুলিশ কর্মকর্তারা পরীক্ষার আগেই প্রশ্নপত্র পেয়ে যান৷

সিএনএন তুরস্ক জানায়, দীর্ঘ নয় বছর পর অবশেষে গত মঙ্গলবার এক অভিযানে ১,১১২জন সন্দেহভাজন গুলেনপন্থি পরীক্ষার্থীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ৷

উল্লেখ্য, অভ্যুত্থানের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে ২০১৬ সাল থেকে এখন পর্যন্ত মোট ২ লক্ষ ১৮ হাজার জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ এর মধ্যে ৭৭ হাজার জন এখনো কারাবন্দি হয়ে বিচারের অপেক্ষায়৷

এসএস/এসিবি (রয়টার্স/এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন