প্রবাসীদের ক্ষুদ্র বিনিয়োগকে উৎসাহ দিন | আলাপ | DW | 07.05.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

প্রবাসীদের ক্ষুদ্র বিনিয়োগকে উৎসাহ দিন

যেসব দেশ থেকে সবচেয়ে বেশি মানুষ বিদেশে থাকেন, সে তালিকায় বাংলাদেশ পঞ্চম৷ এদের বেশিরভাগই প্রবাসে শ্রম দিয়ে রক্ত পানি করা অর্থ দেশে পাঠান৷ তাঁদের এই অর্থের যথাযথ মূল্যায়ন করা উচিত৷

ফিলিপাইন্সে সাংবাদিকতা পড়ার সময় একবার গ্লোবাল মিডিয়া স্টাডিজ বিষয়টির একটি ক্লাসে ‘কাভি খুশি কাভি গাম' মুভিটি দেখানো হচ্ছিল৷ পুরো ছবিটা আগেই দেখেছিলাম৷ তাই ফিলিপিনো-চীনা শিক্ষক যখন জোর করে আবার দেখাচ্ছিলেন পুরো ছবিটি, তখন আমার আর আমার ভারতীয় বন্ধু বিপাশার অবস্থা ছিল ‘টাইট'৷ অন্যরা ভিন্ন দেশের৷ তাই তারা আগ্রহ নিয়েই দেখছিলেন৷ ইন্দোনেশিয়ার এক বন্ধু তো চোখের জল নাকের জল এক করে ফেলছিলেন৷

শিক্ষক আসলে ‘সফট ডিপ্লোমেসি' বোঝাবার জন্য মুভিটি (তাই বলে পুরোটা?) দেখিয়েছিলেন৷ কীভাবে প্রবাসীদের দেশমুখী করা যায়, অন্তত দেশের সঙ্গে সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন না হয়, সে চেষ্টা ভারতীয়রা বরাবরই করে গেছেন৷ সে কাজে বলিউড বিরাট ভূমিকা রেখেছে৷ তাই বলিউডের অনেক মুভিতেই দেখা যায়, দেশে ফেরার গল্প রয়েছে৷ এর মূল কারণ অর্থনৈতিক৷ দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন না হলে, অর্থ আসবে দেশে, এই চিন্তা থেকে৷ 

বিদেশে যারা থাকেন, তাদের (সাধারণভাবে) এমনিতেই দেশের প্রতি টানটা বেড়ে যায়৷ তাই অনেকে যখন বলেন, ‘‘বিদেশে বসে দেশের অবস্থা নিয়ে বড় বড় কথা বলছে!'', সেই সমালোচনাটা আসলে সাধারণভাবে খাটে না৷ সে যা-ই হোক,  বিদেশে যাঁরা থাকেন, তাঁরা দেশে অর্থ পাঠান মূলত পরিবারের খরচ মেটাতে, জমি-বাড়ি এসব সম্পত্তিতে বিনিয়োগ হিসেবে৷ কিন্তু এই বিনিয়োগকে আরেকটু পদ্ধতিগতভাবে উৎসাহিত করা যেতে পারে৷

গত ফেব্রুয়ারিতে সংসদে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি জানান যে, বর্তমানে বিশ্বের ১৬৫টি দেশে ১ কোটিরও বেশি বাংলাদেশি কর্মী কর্মরত আছেন৷

বাংলাদেশে এফডিআই বা সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগে স্থবিরতা চলছে গত এক দশক ধরে৷ এ অবস্থায় বর্তমান সরকার প্রবাসীদের বিনিয়োগ বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে৷ কিন্তু কাজের সূত্রে অনেক ব্যবসায়ীই আমাকে বলেছেন যে, বাংলাদেশে বিনিয়োগ পদ্ধতি জটিল৷ অনেকগুলো ধাপ৷ সরকার বলেছে যে, এসব ধাপ সহজ করে আনা হবে৷ 

সম্প্রতি পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, প্রবাসীরা যেন দেশে ব্যবসায় বিনিয়োগ করেন, সেজন্য এর ধাপগুলো সহজ করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার৷ এটি সুখবর৷

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও সব বিদেশ সফরে প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানান৷ বিশেষ করে অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে বিনিয়োগের কথা বলেন৷ সম্প্রতি প্রবাসী প্রকৌশলীদের সঙ্গেও এক বিনিয়োগ সম্মেলন হয়ে গেল৷ আরো সম্মেলন হবার কথা রয়েছে৷

তবে প্রাতিষ্ঠানিক বা বড় আকারের বিনিয়োগের পাশাপাশি ক্ষুদ্র বিনিয়োগকেও উৎসাহিত করতে হবে৷ এর মধ্যে প্রবাসীদের জন্য চালু বন্ডগুলো ভালো উদ্যোগ৷ এখন পর্যন্ত চালু তিন বন্ডে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগও করেছেন প্রবাসীরা৷ সুদের হার বেশি হওয়ায়, বিশেষ করে ‘ওয়েজ আর্নার্স বন্ড' ভালো সাড়া পেয়েছে৷ 

HA Asien | Zobaer Ahmed

যুবায়ের আহমেদ, ডয়চে ভেলে

পাঁচ বছর মেয়াদি এ বন্ডে ২৫ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগ করা যায়৷ মুনাফা ১২ শতাংশ৷ প্রতি ছয় মাস পরপর মুনাফা তোলা যায়৷ আর ছয় মাসে মুনাফা না তুললে ষাণ্মাসিক ভিত্তিতে ১২ শতাংশ চক্রবৃদ্ধি হারে মুনাফা পাওয়া যায়৷

আরেকটি বিষয় হলো, আট কোটি টাকা বা তার বেশি বিনিয়োগ করলে সিআইপি সুবিধা পাওয়া যায়৷ তাই অনেক ব্যবসায়ীরও আগ্রহ আছে এতে৷ কিন্তু প্রবাসে তুলনামূলক স্বল্প আয়ের মানুষদের কাছে একে আরো জনপ্রিয় করতে হবে৷ এর ক্রয়পদ্ধতি সহজ করতে হবে৷ দূতাবাসগুলো এক্ষেত্রে ভুমিকা রাখতে পারে৷ আলোচনা করতে পারে প্রবাসীদের সঙ্গে৷ তুলে ধরতে পারে লাভ-ক্ষতির হিসেব৷

প্রবাসী বিনিয়োগের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো, এই অর্থ দেশেই থেকে যাবে৷ কিন্তু তাদের জন্য বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ তৈরির জন্য সরকারকে উদ্যোগ বাড়াতে হবে৷ শুধু সম্মেলন বা সরাসরি যোগাযোগই নয়, প্রবাসীদের সঙ্গে সাংস্কৃতিক যোগাযোগও বাড়াতে হবে৷ নতুন নতুন সৃজনশীল ‘আইডিয়া' নিয়ে কাজ করতে হবে৷ মোট কথা, প্রবাসীদের সঙ্গে একটা সেতুবন্ধন রাখতে হবে৷

প্রিয় পাঠক, আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷ 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন