প্রথম হিন্দু দলিত মহিলা সেনেটর পেল পাকিস্তান | বিশ্ব | DW | 05.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাকিস্তান

প্রথম হিন্দু দলিত মহিলা সেনেটর পেল পাকিস্তান

পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশের প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে উঠে এসে সেনেটর হলেন কৃষ্ণা কুমারী কোহলি৷ এই প্রথম কোনো দলিতকে রাজনীতিতে পেল পাকিস্তান, যা নিয়ে সকলেই সন্তোষ প্রকাশ করেছেন৷

ইংরেজিতে একটি বহুল প্রচলিত কথা আছে, ‘‘বেটার লেট দ্যান নেভার৷'' বাংলায় বললে হয়, দেরিতে হলেও বোধের জন্ম হলো৷ স্বাধীনতার ৭০ বছর পেরিয়ে যাওয়ার পর পাকিস্তানে এই প্রথম নিম্নবর্ণ দলিত সম্প্রদায়ের কোনো ব্যক্তি সেনেটর হলেন৷ আরো গুরুত্বপূর্ণ খবর হলো, নির্বাচিত ব্যক্তি একজন মহিলা৷ পাকিস্তান পিপলস পার্টি বা পিপিপি'র হয়ে নির্বাচনে লড়েছিলেন তিনি৷ এবং খানিকটা অপ্রত্যাশিতভাবেই জয় লাভ করেছেন৷ বিশেষজ্ঞরা বিষয়টিকে পাকিস্তানের সামাজিক রাজনৈতিক পটভূমিকায় এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা হিসেবে দেখছেন৷

কৃষ্ণা কুমারী কোহলি৷ পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশের প্রত্যন্ত থর অঞ্চলের বাসিন্দা৷ ছোটবেলা থেকেই দারিদ্র্য তাঁকে তাড়া করে বেড়িয়েছে৷ সাধারণ কৃষক পরিবারের মেয়ে কৃষ্ণা ১৯৭৯ সালে পরিবারের বাকি সদস্যদের সঙ্গে স্থানীয় ভূস্বামীর ব্যক্তিগত জেলেও বহুদিন কাটিয়েছেন৷ সম্ভবত খাজনা দিতে না পারার জন্যই তাঁদের আটক করেছিল ওই ভূস্বামীর ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষীরা৷ তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী তখন কৃষ্ণা৷ বন্ধ হয়ে গিয়েছিল পড়াশোনা৷ কিন্তু অদম্য জেদকে সঙ্গে নিয়ে এরপরেও পড়াশোনা চালিয়ে গিয়েছেন৷ স্কুল ফাইনাল শেষ করতে না করতেই তাঁর বিয়ে হয়ে যায় মাত্র ১৬ বছর বয়সে৷ কিন্তু তারপর পড়াশোনা বন্ধ করেননি৷ সিন্ধু বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজতত্ত্বে স্নাতকোত্তর করে রাজনীতিতে যোগ দেন৷

সংবাদ সংস্থা এএফপি'কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে কৃষ্ণা বলেছেন, তাঁকে রাজনীতিতে আসার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য এবং নির্বাচনে প্রার্থী করার জন্য তিনি পিপিপি দলের প্রতি ঋণী৷ এর আগে অবশ্য দীর্ঘদিন সমাজসেবামূলক কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তিনি৷ পাকিস্তানের দরিদ্র্, পিছিয়ে পড়া মানুষ এবং সংখ্যালঘুদের জন্য অনেক কাজ করেছেন৷ রাজনীতি অবশ্য তাঁর পরিবারের ঐতিহ্য৷ তাঁর দাদু ব্রিটিশদের সঙ্গে লড়াই করেছিলেন ১৮৫৭ সালে৷ ব্রিটিশরা তাঁকে ফাঁসিও দিয়েছিল৷ কৃষ্ণার দাদাও রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত৷

এই মুহূর্তে পাকিস্তানে সংখ্যালঘু হিন্দুর সংখ্যা ২ শতাংশের কিছু বেশি৷ তার মধ্যে নিম্নবর্ণের দলিতের সংখ্যা আরো কম৷ স্বাভাবিকভাবেই তাঁদের অবস্থা মোটেই ভালো নয়৷ দুঃখজনক সত্য হলো, এতদিন তাঁদের কথা বলার মতো রাজনীতিতে কেউ ছিলেন না৷ পাকিস্তানের বিশিষ্ট মানুষেরা কৃষ্ণার জয়কে তাই অতিরিক্ত গুরুত্ব দিচ্ছেন৷ সকলেই মনে করছেন, এর ফলে পাকিস্তানের রাজনীতি সমৃদ্ধ হলো৷

তবে কোনো কোনো বিশেষজ্ঞ বিস্ময়ও প্রকাশ করেছেন৷ তাঁদের প্রশ্ন, এতদিন কেন কোনো দলিত মানুষ নির্বাচিত হননি? কেন এতদিন তাঁরা অবহেলিত ছিলেন? কেন কোনো দল এ নিয়ে এতদিন মাথা ঘামায়নি? শুধু তাই নয়, একুশ শতকে দাঁড়িয়েও ‘দলিত' শব্দটি ব্যবহৃত হচ্ছে এবং তা নিয়ে উদযাপন করতে হচ্ছে, এই বিষয়টিকেই মেনে নিতে পারছেন না অনেকে৷

এসজি/এসিবি (এএফপি/রয়টার্স/টাইমস অফ ইন্ডিয়া)

এ নিয়ে আপনার মতামত লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন