‘প্রথম আধুনিক ব্রাইটন শ্যাম বর্ণের ছিলেন’ | বিশ্ব | DW | 12.02.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ব্রিটেন

‘প্রথম আধুনিক ব্রাইটন শ্যাম বর্ণের ছিলেন’

প্রায় ১০ হাজার বছর আগে বসবাসকারী এক ব্যক্তির ডিএনএ বিশ্লেষণ করে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন লন্ডনের বিজ্ঞানীরা৷ ঐ ব্যক্তির চোখের রং নীল ছিল বলেও জানিয়েছেন তাঁরা৷

ব্রিটেনের ন্যাশনাল হিস্ট্রি মিউজিয়াম ও ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের একটি যৌথ প্রকল্পের আওতায় বিজ্ঞানীরা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির মাথার খুলিতে দুই মিলিমিটার গর্ত করে ডিএনএ সংগ্রহ করেন৷

UK Cheddar-Man

কংকালটির মানুষকে ‘চেড্ডার ম্যান' ডাকা হচ্ছে

দক্ষিণ-পশ্চিম ইংল্যান্ডের চেড্ডার এলাকার একটি গুহায় ১৯০৩ সালে কংকালটি পাওয়া গিয়েছিল৷ তাই কংকালটির মানুষকে ‘চেড্ডার ম্যান' ডাকা হচ্ছে৷

প্রথম দিকে কংকালটি নিয়ে যে পরীক্ষা হয়েছিল, সেখানে বিজ্ঞানীরা চেড্ডার ম্যানের চোখের রং খয়েরি আর ত্বকের রং সাদা বলে ধারণা করেছিলেন৷

ন্যাশনাল হিস্ট্রি মিউজিয়ামের ক্রিস স্ট্রিঙ্গার বলেন, ‘‘এটি খুবই আশ্চর্যের বিষয় যে, ১০ হাজার বছর আগে একজন ব্রিট-এর এমন নীল চোখ আর শ্যাম বর্ণ ছিল৷''

নতুন এই গবেষণার ফল থেকে বিজ্ঞানীরা এই ধারণা করছেন যে, উত্তর ইউরোপের মানুষদের ফর্সা রংয়ের বৈশিষ্ট্যটি সাম্প্রতিক সময়ের, অর্থাৎ যতটা অতীতের মনে করা হয়েছিল, আসলে ততটা আগের নয়

 

চেড্ডার ম্যানসহ তাদের গোত্রের মানুষজন সবশেষ বরফ যুগের শেষের দিকে ব্রিটেনে অভিবাসন করেছিলেন৷ চেড্ডার ম্যানের ডিএনএর সঙ্গে আধুনিক যুগের স্পেন, হাঙ্গেরি ও লুক্সেমবার্গের মানুষদের মিল পাওয়া যাচ্ছে৷

ন্যাশনাল হিস্ট্রি মিউজিয়ামের প্রাচীন ডিএনএ নিয়ে গবেষণা করা সেলিনা ব্রেস বলেন, ‘‘গুহার পরিবেশের কারণে চেড্ডার ম্যানের শরীরের অংশ অক্ষত ছিল৷ গুহার ঠাণ্ডা, শুকনো পরিবেশ ডিএনএ-র ভেঙে যাওয়া রোধ করেছে৷''

এদিকে, থ্রিডি প্রিন্টিংয়ের সাহায্যে চেড্ডার ম্যানের একটি আবক্ষ মূর্তি তৈরি করা হয়েছে৷ আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রের জন্য তৈরি উচ্চপ্রযুক্তির এক স্ক্যানার ব্যবহার করে মূর্তিটি নির্মাণ করা হয়েছে৷ এতে সময় লেগেছে প্রায় তিন মাস

আলফনস কেনিস তাঁর ভাই আদ্রির সঙ্গে মিলে কাজটি সম্পন্ন করেন৷ ডিএনএ বিশ্লেষণ করে পাওয়া তথ্য ‘বৈপ্লবিক' বলে মন্তব্য করেন আলফনস কেনিস৷ চ্যানেল ফোর নির্মিত এক ডকুমেন্টারিতে তিনি বলেন, ‘‘অভিবাসন প্রক্রিয়ার ইতিহাসের গল্প এটি৷ আমরা সবাই অভিবাসী৷'' ১৮ ফেব্রুয়ারি ডকুমেন্টারিটি দেখানো হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন