প্রত্যাবর্তন চুক্তি আবার ভেবে দেখতে বলল জাতিসংঘ | বিশ্ব | DW | 24.01.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

রোহিঙ্গা

প্রত্যাবর্তন চুক্তি আবার ভেবে দেখতে বলল জাতিসংঘ

রোহিঙ্গাদের ফিরে যাওয়া নিয়ে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে সম্প্রতি যে চুক্তি হয়েছে, তা পুনরায় ভেবে দেখার আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর-সহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক গোষ্ঠী৷

তাদের আশংকা, রোহিঙ্গাদের ফিরে যেতে বাধ্য করা হতে পারে৷ তাছাড়া ফিরে যাওয়া রোহিঙ্গাদের জন্য মিয়ানমারে যে ক্যাম্প তৈরি করা হয়েছে, সেখানে জাতিসংঘসহ অন্যান্য ত্রাণ সংস্থার প্রবেশাধিকার না থাকায় ফিরে যাওয়াদের নিরাপত্তা নিয়েও উদ্বিগ্ন এসব সংস্থা৷

রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্বের বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত না হওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করে ইউএনএইচসিআর প্রধান ফিলিপো গ্র্যান্ডি বলেন, ‘‘প্রত্যাবর্তনের বিষয়টি সফল ও টেকসই করতে কয়েকটি বিষয়ের দিকে ভালভাবে নজর দিতে হবে৷ কিন্তু আমরা এখনও সেসব বিষয়ে কিছু শুনিনি৷''

রোহিঙ্গারা যেন ফিরে গিয়ে নিরাপদ থাকতে পারে, সেজন্য জাতিসংঘসহ অন্যান্য ত্রাণ সংস্থাকে রাখাইন রাজ্যে বাধাহীনভাবে কাজ করার অনুমতি দিতে মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ইউএনএইচসিআর৷

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুযায়ী মঙ্গলবার থেকে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবর্তন শুরু হওয়ার কথা ছিল৷ কিন্তু বাংলাদেশ জানিয়েছে, পুরো প্রক্রিয়া এখনও শেষ না হওয়ায় এখনই প্রত্যাবর্তন শুরু করা যাচ্ছে না৷

মঙ্গলবার মিয়ানমারের কর্মকর্তারা এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, রোহিঙ্গাদের গ্রহণ করতে তাঁরা প্রস্তুত৷ কিন্তু সম্ভাব্য প্রত্যাবর্তনকারীরা এখনও ফরম পূরণ করতে না পারায় বাংলাদেশ সেই প্রক্রিয়া শুরু করতে পারেনি বলে জানান তাঁরা৷

ভিডিও দেখুন 01:41

ফিরে যাবেন রোহিঙ্গারা!

মিয়ানমারের আন্তর্জাতিক সহযোগিতা বিষয়ক মন্ত্রী কিয়াও তাও বলেন, ফরম পূরণ শেষে ইউএনএইচসিআর সেগুলো পরীক্ষা করে দেখবে যে, তালিকায় থাকা রোহিঙ্গারা আসলেই ফিরতে চান কিনা৷ তবে বাংলাদেশে ইউএনএইচসিআর-এর একজন মুখপাত্র রয়টার্সকে বলেছেন, চুক্তি সংক্রান্ত আলোচনায় তাঁর সংস্থা যুক্ত ছিল না৷

এদিকে, ফিরে যাওয়া রোহিঙ্গাদের জন্য মিয়ানমারে যে ক্যাম্প তৈরি করা হয়েছে সেখানে বুধবার এপি'সহ কয়েকটি গণমাধ্যমের সাংবাদিকদের নিয়ে যাওয়া হয়েছিল৷

প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়া এখনও শুরু না হওয়ায় ভালো হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হিদার নাওয়ার্ট৷ মিয়ানমারের ক্যাম্পে জাতিসংঘের সংস্থাগুলোর প্রবেশের অনুমতি না থাকায় ওয়াশিংটন উদ্বিগ্ন বলেও জানান তিনি৷

মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জিম মাটিস বলেছেন, গণমাধ্যমে যতটা দেখানো হয়েছে তার চেয়েও বেশি খারাপ পরিস্থিতিতে আছে রোহিঙ্গারা৷ ‘‘সিএনএন বা বিবিসি যতটা দেখাতে পেরেছে, তার চেয়েও খারাপ ট্র্যাজেডি এটা,'' বলেন ইন্দোনেশিয়া সফররত মাটিস৷

জেডএইচ/এসিবি (রয়টার্স, এপি, এএফপি, ডিপিএ)

 

আপনিও কি আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলোর সঙ্গে একমত? লিখুন নিচের মন্তব্যের ঘরে৷ 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন